তাহিরপুরের অপহৃত ২ কয়লা ব্যবসায়ীকে বাগেরহাট থেকে উদ্ধার, আটক ৩

তাহিরপুর প্রতিনিধি
তাহিরপুর কয়লা আমদানীকারক সমিতির ২ কয়লা ব্যবসায়ীকে ইট ভাটার জন্য কয়লা নেয়ার কথা বলে কৌশলে ডেকে নিয়ে অপহরণ করার পর মুক্তিপণ চাওয়ার অভিযোগে ৩ অপহরণকারীকে আটক করেছে পুলিশ।
শুক্রবার গভীর রাতে বাগেরহাট জেলার মোড়েলগঞ্জ উপজেলার সীমান্তবর্তী পানগুছি নদীর পাড় থেকে অপহৃত দুই কয়লা ব্যবসায়ীকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। উদ্ধারকৃত দুই কয়লা ব্যবসায়ীরা হলেন, তাহিরপুর উপজেলার লাকমা গ্রামের আলীমুদ্দিনের ছেলে নুরুল আলম (৩৭) ও একই উপজেলার মাটিকাটা গ্রামের মৃত আবু মিয়ার ছেলে মুসলিম মিয়া (৩৫)।
আটককৃত অপহরণকারীরা হলেন, পিরোজপুর জেলার দক্ষিণ ভিটাবাড়িয়া গ্রামের আব্দুল মান্নানের ছেলে তুহিন শিকদার (২২), একই জেলার উত্তর পূর্ব মাছিমপুর গ্রামের রফিক হালদারের ছেলে পারভেজ হালদার (২৫) ও পোরগোল গ্রামের আশরাফ আলীর ছেলে আজগার আলী (৩৫)।
অপহৃত কয়লা ব্যবসায়ী নুরুল আলম জানান, ইটভাটায় কয়লা লাগবে বলে চুক্তি করতে কৌশলে অপহরণকারীরা সুনামগঞ্জ থেকে আমাদের পিরোজপুর ডেকে নেন। পরে আমাদেরকে নদীর পাড়ে নিয়ে নৌকায় তুলে দুইদিন আটক রেখে মানষিক নির্যাতন করে।
সুনামগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান জানান, আমরা অপহরণের বিষয়টি জানার পর তা বাগেরহাট জেলা পুলিশ সুপারকে অবগত করি। তাদেরকে বিষয়টি অবহিত করলে জেলা পুলিশের একাধিক টিম অপহৃত দুই ব্যবসায়ীকে উদ্ধারের জন্য অভিযান শুরু করে। এক পর্যায়ে দুইদিন পর তাদেরকে উদ্ধার করতে পুলিশ সফল হয়।
বাগেরহাটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহফুজ আফজাল বলেন, সুনামগঞ্জের দুই কয়লা ব্যবসায়ীকে ব্যবসার কথা বলে একটি চক্র এখানে নিয়ে আসার পর তাদেরকে অপহরণ করে এবং মুক্তিপণ হিসেবে ২০ লাখ টাকা দাবি করে। পরে বাগেরহাট শহরের এসএ পরিবহনের অফিস থেকে মুক্তিপণের টাকা উত্তোলনের সময় তিন অপহরণকারীকে আটক করে পুলিশ। তিনি বলেন, অপহরণকারী চক্রের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।