তাহিরপুরে অগ্নিকাণ্ডে কোটি টাকার ক্ষতি

স্টাফ রিপোর্টার, তাহিরপুর
তাহিরপুর বাজারে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ১৫টি ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের মালামাল পুড়ে প্রায় এক কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। রবিবার ভোররাত ৩ টায় এ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে বলে তাহিরপুর থানা পুলিশ, বাজার ব্যবসায়ী ও বাজার সংশ্লিষ্ট এলাকাবাসী জানিয়েছেন। ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানগুলো হলো, শাহজালাল টাওয়ার, আব্দুল বাছিতের মুদি দোকান, তোফাজ্জলের লেপ তোষকের দোকান,  ফরহাদের চা ও কনফেকসনারী দোকান, লালমিয়া স্টোর, রজত সিংহের ফার্ম্মেসী, রেনু মিয়ার বাঁশ বেতের দোকান, সুজিতের সেলুন, দলিল লিখক কাজলের ঘর, বাবলু ইঞ্জিনিয়ারিং, মোহন বেকারী, কটু শীলের সেলুন, আলমাজের সিমেন্টর গোদাম, শফিকুল মিস্ত্রীর ফার্নিচারের দোকান, তোফাজ্জলের লেপ তোষকের কারখানা।
আগুনের সূত্রপাত সম্পর্কে ফরহাদের চা ও কনফেকসনারী দোকানের কর্মচারী ফরহাদ আলম বলেন, রাত ৩টায় হঠাৎ দেখতে পাই ভয়াবহ আগুন। এ সময় ঘর থেকে কোন রকমে বের হই। বের হয়ে পাশ্ববর্তী লামিয়া ষ্টোরের দরজায় লাথি মারলে লামিয়া স্টোরের মালিক এর পিতা রেণু মিয়া চিৎকার করে ঘর থেকে বেরিয়ে যান। কোন কিছু বলার আগেই পাশাপাশি ১৪টি দোকান ঘর পুড়ে ছাড়খাড় হয়ে আগুর শাহজালাল টাওয়ারে গিয়ে স্পর্শ করে। শাহজালাল টাওয়ারের দ্বিতীয় তলাতে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের কাঁচের জানালা পুড়েছে। এতে শাহজালাল টাওয়ারের বিদ্যুৎ ও পানীয় সংযোগ লাইনের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।
আগুন ধরার সাথে সাথে বাজার ব্যবসায়ী ও ভাটি তাহিরপুর গ্রামের লোকজনের সহায়তায় আগুন নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসার পর পৌনে ৪টার সময় ফায়ার ব্রিগেড সদস্যরা তাদের আগুন নির্বাপক সরঞ্জামাদি নিয়ে তাহিরপুরে পৌঁছে। এ সময় স্থানীয় সমাজসেবক আতিকুর রহমান ও স্থানীয়রা চিৎকার করে বলতে থাকেন তাহিরপুরে ফায়ার ব্রিগেড সার্ভিস থাকলে বড় ধরনের অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটত না। এ সময় ফায়ার ব্রিগেডের লোকজন জানান,উচ্চ আদালতে মামলা থাকায় তাহিরপুরে ফায়ার ব্রিগেড অফিস স্থাপন করা যাচ্ছে না। ফায়ার সার্ভিসের লোকজন আরো জানান, তাহিরপুর উপজেলা সদরে ফায়ার ব্রিগেডের নির্ধারিত একটি জায়াগার উপর তাহিরপুর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আনিসুল হক রীট মামলায় স্থগিতাদেশ এনেছেন। এ কারণে সমস্যা হচ্ছে।
তাহিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ নন্দন কান্তি ধর বলেন,আগুনের সংবাদ শুনে তিনি তাৎক্ষণিক সময় সুনামগঞ্জ ফায়ার ব্রিগেডে সংবাদ দেন।