তাহিরপুরে ঈদের আগেই ধান ক্রয়ের দাবি

আমিনুল ইসলাম, তাহিরপুর
তাহিরপুরে দ্বিতীয় পর্যায়ে ৮৮৪ মেট্রিক টন ধান বিক্রির জন্য লটারির মাধ্যমে কৃষক নির্বাচন প্রক্রিয়া শেষ হয়েছে। লটারীতে বিজয়ী কৃষকগণ দাবি করেছেন তারা যেন আগামী ঈদ-উল আজহার এক সপ্তাহ পূর্বেই তাদের ধান খাদ্য গোদামে বিক্রয় করে ওই টাকা দিয়ে ঈদ করতে পারেন। উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের মধ্যে তাহিরপুর সদর ইউনিয়ন, বালিজুড়ি ইউনিয়ন, উত্তর শ্রীপুর ইউনিয়ন, দক্ষিণ শ্রীপুর ইউনিয়ন ও দক্ষিণ বড়দল ইউনিয়নে এই কৃষক নির্বাচন কাজ শেষ হয়েছে। উত্তর বড়দল ও বাদাঘাট ইউনিয়নে লটারী কার্যক্রম চলমান রয়েছে।
উপজেলার দক্ষিণ বড়দল ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডের কৃষক সুহেল মিয়া বলেন, তিনি কখনো উপজেলার খাদ্য গোদামে ধান জমা দিতে পারেননি। এবার লটারির মাধ্যমে কৃষক নির্বাচন করায় ভাল হয়েছে।
শ্রীপুর দক্ষিণ ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের কৃষক কিবরিয়া বলেন, লটারীর মাধ্যমে কৃষক নির্বাচন হওয়ায় ফরিয়া ধান কারবারি ও মিল মালিকরা অসন্তুষ্ট। লটারির ব্যবস্থা প্রতিবছর এভাবে চলমান থাকলে হাওরপারের সাধারণ কৃষকরা লাভমান হবেন।
তাহিরপুর সদর ইউনিয়নের লটারীতে বিজয়ী ২নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মাফিক মোরাদ বলেন, দ্রুত ধান ক্রয় শুরু করতে হবে।
দক্ষিণ বড়দল ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের লটারিতে বিজয়ী কৃষক মছিহুর রহমান মিলন বলেন, লটারির মাধ্যমে কৃষক নির্বাচন হলে কোন অসন্তোষ দেখা দিবে না।
তাহিরপুর সদর ইউপি চেয়ারম্যান বোরহান উদ্দিন বলেন,খাদ্য গোদামে ধান দেয়ার বিষয়ে লটারির মাধ্যমে কৃষক নির্বাচন হওয়ায় কৃষকদের মধ্যে কোন অভিযোগ নেই।
তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আসিফ ইমতিয়াজ বলেন,লটারির মাধ্যমে কৃষক নির্বাচনের কাজ মঙ্গলবার থেকে শুরু করা হয়েছে, ইতিমধ্যে ৫টি ইউনিয়ন লটারী সম্পন্ন হয়েছে, বাকি দুটি ইউনিয়নের লটারী কার্যক্রম চলমান রয়েছে।