তাহিরপুরে দুই সাধকের মিলন মেলা মঙ্গলবার থেকে শুরু

এম.এ রাজ্জাক, তাহিরপুর
তাহিরপুর উপজেলার দুই ধর্মের দুই আধ্যাত্মিক মহাসাধকের মিলন মেলাকে কেন্দ্র করে এখন উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। এ দুটি উৎসব হচ্ছে, সনাতন ধর্মাবল্বীদের অন্যতম বৃহৎ মহোৎসব তাহিরপুর উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়নের শ্রী শ্রী অদ্বৈত্য আচার্য প্রভুর রাজারগাঁও লাউড় নবগ্রাম আখড়াবাড়ী সংলগ্ন যাদুকাটার তীরবর্তী পণতীর্থে ৭শ’ ১৫ বছরের প্রাচীন ঐতিহ্যবাহী ¯œানযাত্রা এবং হযরত শাহ্জালাল (রহ.)’র অন্যতম সফরসঙ্গী হযরত শাহ্ আরেফীন (র)’র মহা পবিত্র ওরশ শরীফ। উপজেলার সীমান্তবর্তী এলাকায় মুসলিম ও সনাতন ধর্মের দু আধ্যাত্মিক মহাসাধকের ভক্তবৃন্দের মিলনমেলা মঙ্গলবার (২রা এপ্রিল, ১৮ই চৈত্র) সকাল থেকে অনুষ্ঠিত হয়ে ৫ই এপ্রিল শুক্রবার সকালে সমাপ্ত হবে। এ নিয়ে উভয় ধর্মের লোকজন বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণ করেছে।
শ্রী অদ্বৈত মহাপ্রভুর আখড়াবাড়ী ও জন্মধাম সংরক্ষণ সংস্কার কমিটি, আন্তর্জাতিক কৃষ্ণ ভাবনামৃত সংঘ ইসকন ও পণতীর্থ সৎসঙ্গ প্রার্থনা কেন্দ্র সূত্রে জানা গেছে, দেশের সনাতন ধর্মবলম্বীদের বৃহৎ ¯œানযাত্রার মুখ্য সময় এ বছর ২রা এপ্রিল, ১৮ই চৈত্র মঙ্গলবার সকাল ৯টা ৭মিনিট ৫৪ সেকেন্ড থেকে শুরু হয়ে রাত্রি ১টা

২০মিনিট ৭ সেকেন্ড পর্যন্ত শতভিষা নক্ষত্রে নির্ধারণ করা হয়েছে। এ উপলক্ষে বালুচরে বারুনী মেলা ৫ই এপ্রিল শুক্রবার সকালে সমাপ্ত হবে।
স্থানীয় আখড়াবাড়ী উৎসব কমিটি ও ইসকন সূত্রে জানা গেছে, সপ্তাহব্যাপী উৎসব ও গঙ্গা¯œান যাত্রাকে কেন্দ্র করে মঙ্গল আরতী, ভজন, লীলা কীর্তন, বৈদিক নাটক, গঙ্গাপূজা, দেশের বেতার, টিভি ও মঞ্চ শিল্পীদের অংশগ্রহণে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং ধর্মীয় আলোচনা সভার অয়োজন করা হয়েছে।
অপরদিকে একই সময় উপজেলার সুনামগঞ্জ ২৮ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের লাউড়েরগড় সীমান্তের মেইন পিলার ১২শ’ ৩ এর সাব পিলার ৭-১০ এলাকায় মেঘালয় গারো-খাসিয়া পাহাড়ের পাদদেশে হযরত শাহ্ আরেফীন (র)’র আস্তানায় ওরশ মোবারক ২রা এপ্রিল সন্ধ্যা থেকে শুরু হয়ে ৫ই এপ্রিল শুক্রবার সকালে আখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে সমাপ্ত হবে।
ওরশ উদযাপন কমিটির নেতৃবৃন্দ জানান, ওরশ ও ¯œানযাত্রাকে কেন্দ্র করে দেশ বিদেশের কমপক্ষে কয়েক লাখ নারী, পুরুষের সমাগম ঘটবে। ইতিমধ্যে দেশের সমগ্র অঞ্চল থেকে হাজার হাজার কাফেলাধারী পাগল ফকির, ভক্ত ও সাধক, দর্শনার্থীদের সীমান্তবর্তী গ্রামগুলো ও আখড়াবাড়ীর আশ পাশের গ্রামগুলিতে অবস্থান করতে দেখা গেছে। পাশাপাশি ওরশস্থলের আস্তানায় ইবাদতখানা, অতিথি ভবন, কাফেলাঘর, বাগানের সৌন্দর্য্য বৃদ্ধি, আখড়াবাড়ী ও ইসকন মন্দিরে প্রস্তুতি ও সংস্কার চলছে।
ওরশের প্রথম দিন থেকে শেষ দিন পর্যন্ত কোরআন তেলাওয়াত, হালকা জিকির, মুর্শিদী, ভাটিয়ালী, ভান্ডারী, পল্লীগীতি, বাউল সঙ্গীত, লোক সঙ্গীত ইত্যাদি আয়োজন ওরশ ও মেলাস্থল মাতিয়ে রাখবে।
সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা যায়, সপ্তাহব্যাপী মিলন মেলাকে শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন করার লক্ষে স্থানীয় সাংসদ ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন এমপি, জেলা প্রশাসক মো. আব্দুল আহাদ, পুলিশ সুপার মো. বরকতুল্লাহ খান, ২৮ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল মাকসুদুল আলম, তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সাইফুল ইসলাম, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কামরুল, উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি হাজী আবুল হোসেন খান ও উপজেলার ৭ ইউপি চেয়ারম্যানকে উপদেষ্টা করে পৃথকভাবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষা, উৎসব উদযাপন ও মেডিকেল টিম গঠন করা হয়েছে।
মেলার সার্বিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা ও প্রস্তুতি প্রসঙ্গে তাহিরপুর থানার ওসি নন্দন কান্তি ধর জানান, আখড়াবাড়ী, পণাতীর্থধামে গঙ্গা¯œান, গড়কাটি ইসকন মন্দির, বারুনী মেলা ও ওরশ মোবারক আস্তানায় পুলিশ, বিজিবি ও আনসার সদস্যদের সমন্বয়ে গঠিত যৌথ বাহিনীর ৪টি অস্থায়ী ক্যাম্প বসানো হবে। এছাড়াও ২জন ম্যাজিষ্ট্রেটের নেতৃত্বে ২টি ভ্রাম্যমান আদালতের পাশাপাশি মেটাল ডিটেকটর দ্বারা আগতদের দেহ, ব্যাগ তল্লাশীসহ ডিএসবি, সাদা পোশাকধারী পুলিশ, গোয়েন্দা সংস্থার বিশেষ নজরদারী এবং ঝুঁকিপূর্ণ সড়কগুলিতে দিবারাত্রি টহল দল মোতায়েন থাকবে।