- সুনামগঞ্জের খবর » আঁধারচেরা আলোর ঝলক - http://sunamganjerkhobor.com -

তাহিরপুরে পিআইও’র বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

আমিনুল ইসলাম, তাহিরপুর
তাহিরপুর উপজেলা শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম মেরামত কাজের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে সাবেক পিআইও’র বিরুদ্ধে। জানা যায়, ২০১৯-২০ অর্থ বছরে তাহিরপুর উপজেলা শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম মেরামতের জন্য কাবিকা প্রকল্প থেকে দুই লক্ষ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। এরমধ্যে প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি পঞ্চাশ হাজার টাকা উত্তোলন করেন। বাকি এক লক্ষ পঞ্চাশ হাজার টাকা প্রকল্প কমিটিকে ছাড়পত্র দেননি উপজেলা সাবেক প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা। সাবেক উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মো. শফিকুল ইসলাম ২০১৯-২০ অর্থ বছরে তাহিরপুর উপজেলায় অতিরিক্ত দায়িত্বে ছিলেন। মূল কর্মস্থল ছিল পাশর্^বর্তী বিশ^ম্ভরপুর উপজেলায়। বর্তমানে তিনি পাশর্^বর্তী বিশ^ম্ভরপুর উপজেলায় কর্মরত রয়েছেন।
সম্প্রতি তাহিরপুর উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি হাফিজ উদ্দিন উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসে বাকি এক লক্ষ পঞ্চাশ হাজার টাকার সন্ধান নিতে গেলে বর্তমানে দায়িত্বে থাকা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা কাজী মাসুদুর রহমান জানান, ঐ টাকা তৎকালীন দায়িত্বে থাকা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা উঠিয়ে নিয়েছেন।
এ বিষয়ে তাহিরপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসের তৎকালীন উপসহকারী প্রকৌশলী সুব্রত দাস বলেন, পিআইও শফিকুল ইসলাম স্যার আমাকে দিয়ে দেড় লক্ষ টাকা উঠানোর পর বলেছিলাম- স্যার টাকাগুলো কোথায় রাখবো। তখন তিনি বলেছিলেন, আমার কাছে জমা রাখেন। পরে আমি ব্যবস্থা নিবো।
সাবেক তাহিরপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, দেড় লক্ষ টাকা আমার হাতে নেই। তবে কোন একাউন্টে আছে তা যাচাই করে দেখতে হবে।
তাহিরপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা কাজী মাসুদুর রহমান বলেন, তাহিরপুর উপজেলা শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়াম মেরামত কাজের টাকা আমরা আমাদের সকল ব্যাংক হিসাব চেক করে দেখেছি কোথাও পাইনি। তবে এই টাকা তৎকালীন পিআইও উত্তোলন করেছেন বলেও তিনি জানান।
তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. রায়হান কবির বলেন, তিনি তাহিরপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসের সাবেক কর্মকর্তাদের সাথে যোগাযোগ করেছেন টাকার সন্ধান দেয়ার জন্য। সন্ধান না দিতে পারলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিবেন বলে জানান।

  • [১]