তাহিরপুরে বিদ্যুৎ ভোগান্তি

এম.এ রাজ্জাক, তাহিরপুর
তাহিরপুরে অসহনীয় হয়ে উঠছে বিদ্যুৎ ভোগান্তি। পবিত্র মাহে রমযান মাসেও তাহিরপুরে বিদ্যুৎ লোডশেডিংয়ের কারণে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে মানুষদের। গত কয়েক সপ্তাহ ধরে এ উপজেলায় সকালে বিদ্যুৎ গেলে আসে বিকালে। আবার সন্ধায় গেলে আসে সকালে। এ উপজেলায় রমযান মাসেও ইফতারি ও সেহরীর সময়ে সময় মতো বিদ্যুৎ না থাকায় রোজাদার মুসল্লিদের কষ্ট ভোগ করতে হচ্ছে।
উপজেলার অনেকেই জানান, পল্লী বিদ্যুতের বাদাঘাট অভিযোগ কেন্দ্রে গ্রাহকরা ফোন করলেই অপর প্রান্ত থেকে তারা বলেন, সুনামগঞ্জ পল্লী বিদ্যুতের ৩৩ কেভি লাইনে সমস্যা, ঝড়ে বিদ্যুৎ লাইন ছিঁড়ে গেছে কিংবা বিদ্যুতের খুঁটি উপড়ে পড়েছে। কিন্তু গ্রাহকরা এসব অজুহাত মানতে নারাজ। তারা বলছেন, বিদ্যুৎ অফিস কর্তৃপক্ষ ও লাইনম্যানদের খামখেয়ালীর কারণেই এ উপজেলার মানুষ ঠিক মতো বিদ্যুৎ পাচ্ছেন না।
বালিয়াঘাট নতুন বাজারের অজিত দাস ও বাদাঘাট বাজারের ব্যবসায়ী আবুল হোসেন জানান, বিদ্যুৎ ঠিক মতো না থাকায় ফ্রিজে থাকা মাছ, মাংস সহ অন্যান্য জিনিস প্রায় সময়ই নষ্ট হচ্ছে।
শ্রীপুর বাজারে ব্যবসায়ী মামুন ও জঙ্গলবাড়ী বাড়ীর ব্যবসয়ী আবুবক্কর জানান, বাদাঘাট পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে ফোন করলেই তারা বলেন, মেইন লাইনে সমস্যা। একবার লাইনে সমস্যা হলে অফিসে বার বার ফোন করেও লাইনম্যানদের দেখা পাওয়া যাচ্ছে না।
সূত্রে জানা যায়, সরকার পর্যাপ্ত পরিমাণ বিদ্যুৎ উৎপাদন করলেও অব্যবস্থপনা, জরাজীর্ণ অবকাঠামো আর মান্ধাতা আমলের খুঁটি দিয়ে বিতরণ লাইন পরিচালনার কারণে বাতাস আসার আগেই বিদ্যুতের খুঁটি পড়ে বা ভেঙ্গে যাচ্ছে।
সুনামগঞ্জ পল্লী বিদ্যুতের জেনারেল ম্যানেজার অখিল কুমার সাহা জানান, সুনামগঞ্জে বিদ্যুতের কোন ঘাটতি নেই। পর্যাপ্ত পরিমাণ জনবল আছে। তবে মাঝে মধ্যে লাইন মেরামতের জন্য মেইন লাইন বন্ধ রাখতে হচ্ছে। যার কারণে একটু সমস্যা হচ্ছে।
তিনি বলেন, আগামী দুই এক দিনের ভিতরে তাহিরপুর উপজেলার বাদাঘাট সাবস্টেশন থেকে বিদ্যুৎ চালু হবে। তখন তাহিরপুরবাসী ভালো বিদ্যুৎ পাবেন, ঘনঘন লোডশেডিং আর পোহাতে হবে না।