তাহিরপুরে ভোট কেন্দ্রে সংঘর্ষে আহত ৩০, পুলিশের ৮ রাউন্ড ফাকা গুলি

স্টাফ রিপোর্টার, তাহিরপুর
তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোটগ্রহণ চলাকালে ৩টি কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ প্রার্থী ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ভোটকেন্দ্র দখল নিয়ে হামলা পাল্টা হামলা ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে প্রায় ১০ জন আহত হয়েছে। সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৮ রাউন্ড ফাঁকাগুলি ছুড়েছে। এ ঘটনায় কিছুক্ষণ ভোট গ্রহণ বন্ধ থাকার পর আবারও ভোট গ্রহণ শুরু হয় এবং বিকাল ৪টা পর্যন্ত শান্তিপূর্ণভাবে উপজেলার ৪৬টি ভোট কেন্দ্রে শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহণ সম্পন্ন হয়।
জানা যায়, তাহিরপুর উপজেলার পুরান ঘাট সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে বিএনপির স্বতন্ত্র প্রার্থী আনিসুল হকের সমর্থকরা সকালে একটি কক্ষ তালা দিয়ে মোটর সাইকেল প্রতীকে ভোট দিতে চাইলে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী করুনা সিন্ধু চৌধুরী বাবুলের সমর্থকরা এতে বাধা দেন। এতে সংঘর্ষে উভয় পক্ষের ৭জন আহত হন। গুরুতর আহত আওয়ামী লীগের এক কর্মীকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে।
এছাড়া উপজেলার দিঘলবাঁক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে দুপুর ১ টার দিকে ভোটকেন্দ্র দখল নিয়ে দুই পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়লে উভয় পক্ষের প্রায় ২০ জন আহত হন। এ সময় পুলিশ ৪ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুঁড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এই ঘটনার পরে এই কেন্দ্রে সাময়িক ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়। পরে আবারও ওই কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ শুরু হয়।
অপরদিকে একই ইউনিয়নের সীমান্তঘেঁষা করইগড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভোট কেন্দ্র দখল নিয়ে দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ জড়িয়ে পরলে সেখানেও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৪ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুঁড়ে।
তাহিরপুর থানার ওসি নন্দন কান্তি ধর এর সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, খবর পেয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিত নিয়ন্ত্রনে আনে। এখন উপজেলা সব ভোট কেন্দ্রেই স্বাভাবিক ও শান্তিপূর্ণভাবেই ভোট গ্রহণ করা হয়।