তাহিরপুরে সংঘর্ষে ৫০ জন আহত

স্টাফ রিপোর্টার, তাহিরপুর
তাহিরপুরের পাটলাই নদীতে চাঁদাবাজির দখলদারিত্ব নিয়ে ঘন্টাব্যাপী দু’পক্ষের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে ৫০ জন আহত হয়েছে। গুরুতর আহতদের তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন আহতরা হলেন- রনিক তালুকদার, সুজন মিয়া, স¤্রাট তালুকদার, মুরাদ মিয়া, সামাদ তালুকদার, খলিল তালুকদার, হিরা তালুকদার, জনিক তালুকদার, জুবায়ের তালুকদার, অরিফ তালুকদার, মহসিন তালুকদার, ওমি তালুকতার, শরীফ তালুকদার, আবু লেইছ, তরিকুল ইসলাম সামরুল, জেনু মিয়া, একাবনুর, খলিল মিয়া, আকিক মরল, হাবলু মিয়া, মবলু মিয়া, কবির মিয়া, শাহানুর রহমান, তানজিল মিয়া, মুরসালিন, হাসান মিয়া, সালেহ আহমদ, হাইয়ুল মিয়া।
অপর আহতরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছে। গুরুতর আহত রনিক তালুকদারকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন জরুরী বিভাগে কর্মরত চিকিৎসক উপসহকারী মেডিকেল অফিসার আব্দুল খালেক।
জানা যায়, সোমবার সকাল ৭টায় উপজেলার শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের শ্রীপুর বাজারে পাটলাই নদীতে চাঁদাবাজিকে কেন্দ্র করে তরং, শিবরামপুর ও খালাশ্রীপুরসহ তিন গ্রামের লোকজন দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে ঘন্টাব্যপী সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। সংবাদ পেয়ে তাহিরপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
বড়ছড়া চারাগাঁও থেকে আমদানীকৃত কয়লা ও চুনাপাথর দেশের বিভিন্ন স্থানে পাটলাই নদী দিয়ে পরিবহন করে থাকে নৌ পরিবহন মালিকরা। এতে বিআইডব্লিউটিএ’র নাম ধরে সংঘর্ষে লিপ্ত পক্ষদ্বয়রা দীর্ঘদিন ধরে চাঁদাবাজি করে আসছে। বর্তমানে শ্রীপুর বাজারে থমথম উত্তেজনা বিরাজ করছে।
তাহিরপুর থানা অফিসার ইনচার্জ মো. ইফতেখার হোসেন সংঘর্ষের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এ পর্যন্ত কোন পক্ষই অভিযোগ নিয়ে আসেনি। অভিযোগ আসলে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে।