তাহিরপুরে সাড়ে তিন লাখ টাকা আত্মসাতের মামলায় দোকান কর্মচারী গ্রেফতার

তাহিরপুর প্রতিনিধি
তাহিরপুর উপজেলার বাদাঘাট বাজারে সাড়ে তিন লাখ টাকা আত্মসাতের মামলায় মেসার্স হোসাইন এন্টারপ্রাইজের দোকান কর্মচারী জাকির হোসেন (৩০) কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সে উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়নের নাগরপুর গ্রামের মোস্তফা মিয়ার ছেলে। মঙ্গলবার দিবাগত মধ্যরাতে তাকে পুলিশ নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে।
জানা যায়, উপজেলার বাদাঘাট বাজারের রইছ উদ্দিনের মালিকানাধীন মেসার্স হোসাইন এন্টারপ্রাইজ নামের এক দোকানে জাকির কর্মচারী হিসেবে কর্মরত ছিল। দোকানের মালিক জাকিরকে বিভিন্ন সময় নগদ টাকা দিয়ে ব্যাংকে পাঠাতো টিটি করার জন্য। এরই ধারাবাহিতকায় গত ১০ অক্টোবর সকালে জাকিরকে সাড়ে তিন লাখ টাকা দিয়ে সুনামগঞ্জ জেলা শহরে পাঠানো হয় টিটি করার জন্য। কিন্তু জাকির ব্যাংকে টাকা টিটি না করে টালবাহানা শুরু করে সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত। এক পর্যায়ে অনেক সময় অপেক্ষা করে দোকানের মালিক সন্ধ্যায় জাকিরের বাড়িতে গিয়ে খোঁজ নিলে জাকিরের বাবা মোস্তফা মিয়া জানান জাকির বাদাঘাট বাজারেই আছে। পরে অনেক খোঁজাখুঁজি করে দোকানের মালিকের ছেলে আতাউর রহমান তাকে বাজারে আনোয়ার হোসেনের দোকানের সামনে পান। পরে ব্যাংকে টাকা টিটি করেছে কিনা জানতে চাইলে সে বিভিন্ন কথা বলে অজুহাত দেখায়। প্রথমে সে বলে টাকা খরচ করে ফেলেছে, হারিয়ে ফেলেছে, ডাকাত নিয়ে গেছে, আবার কখনও সে বলে দোকান থেকে টাকাই নেইনি। পরে ঘটনাটি নিয়ে এলাকায় সালিশে বসলে টাকা আত্মসাতের বিষয়টি প্রমাণিত হয়। সালিশকারীরা তাকে টাকা ও মোটরসাইকেল ফেরত দেয়ার কথা বললে সে এক সপ্তাহের সময় নিয়ে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় গত ১০ অক্টোবর দোকানের মালিক বাদী হয়ে তাহিরপুর থানায় দোকান কর্মচারী জাকিরকে আসামি করে একটি অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে জাকির বাড়িতে এসেছে খবর পেয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা তাহিরপুর থানার এস আই মোহাম্মদ হুমায়ূন কবিরের নেতৃত্বে পুলিশের একটি টিম জাকিরকে তার নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে।
তাহিরপুর থানার ওসি মো. আতিকুর রহমান এ বিষয়ে বলেছেন, মেসার্স হোসাইন এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী হাজী রইছ উদ্দিন বাদী হয়ে জাকিরের বিরুদ্ধে থানায় একটি মামলা করেছেন। মামলা নং ০৩, তারিখ ০৬/১৯ইং। গ্রেফতারকৃত জাকিরকে বুধবার দুপুরে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।