তাহিরপুরে ৫০ হাজার মানুষ পানিবন্দি

স্টাফ রিপোর্টার, তাহিরপুর
তাহিরপুরে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় শতাধিক গ্রামের অর্ধলক্ষাধিক মানুষ পানি বন্দি হয়ে পড়েছেন। উপজেলার সকল আভ্যন্তরীণ সড়ক পানিতে নিমজ্জিত থাকায় সড়ক যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। পানির তোড়ে ভেসে গেছে যাদুকটা নদীর ৫ শতাধিক ব্যবাসায়ীর আনুমানিক ১৫ কোটি টাকার মজুদকৃত বালি।
সরজমিন গিয়ে দেখা যায়, অনেক বাড়ি ঘরের উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে পাহাড়ি ঢলের পানি। ঘরে পানি প্রবেশ করায় রান্না করতে গিয়ে বন্যা আক্রান্ত পরিবারগুলো পড়ছেন চরম বিপাকে। এক স্থান থেকে অন্য স্থানে যাতায়াতের নৌকা ব্যবহার করা হচ্ছে। পানিতে নিমজ্জিত থাকায় শতাধিক প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে বন্ধ। একই সাথে যাদুকাটা নদীর দু’তীরে ৫ শতাধিক ব্যবসায়ীর মজুদকৃত ৭০ থেকে ৮০ লক্ষাধিক ফুট বালি পাথর ঢলের পানির তোড়ে ভেসে গেছে। পানিবন্দি শতাধিক গ্রামগুলোর মধ্যে বেশী ক্ষতিগ্রস্ত হলো বালিজুরী, বড়খলা, আনোয়ারপুর, সোহালা, মাহতাবপুর, পিরিজপুর, দক্ষিণকূল, চিকসা, চানপুর, মাহরাম, নোয়াহাট, পাতারগাঁও, ধরুন্দ, ইউনুছপুর, লক্ষ্মীপুর, চিকসা।
বালিজুরী ইউপি সদস্য দক্ষিণকূল গ্রামের বাসিন্দা বাবুল মিয়া বলেন, হঠাৎ করে রাতের বেলা বাড়ি ঘরে ঢলের পানি ঢুকে পড়ে। বর্তমানে পানির মধ্যে আমাদের আতংকে দিনরাত কাটাতে হচ্ছে।
বাদাঘাট ইউনিয়ন পরিষদ সাবেক চেয়ারম্যান ও যাদুকাটা নদীর বালি পাথর ব্যাবসায়ী রাখাব উদ্দিন বলেন, ঢলের পানির তোড়ে তার মজুদকৃত লক্ষাধিক ফুট বালু পানিতে ভেসে গেছে। যার বাজার মূল্য প্রায় ১৮ লক্ষ টাকা।’
তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান করুনা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল বলেন, বন্যায় পানিবন্দি ও ক্ষতিগ্রস্ত গ্রামগুলো তিনি সরজমিনে ঘুরে দেখছেন এবং তাদের খোঁজ খবর নিচ্ছেন।