তিন বছরের মধ্যে সুনামগঞ্জে রেল লাইনের কাজ শেষ হবে-এমএ মান্নান

স্টাফ রিপোর্টার
পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান এমপি বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্ন বাস্তবায়নে আমাদের বিশেষ করে আওয়ামী লীগের সকলকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। স্বাধীনতার সময় যেভাবে এই এলাকার আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা ঐক্যবদ্ধ ছিল এখনো এখনো সেভাবেই ঐক্যবদ্ধ আছে।’
তিনি বলেন,‘আপনাদের কাছে আমার বিনীত নিবেদন ভাই হিসাবে, সন্তান হিসাবে আপনারা আমাদের জন্য দোয়া করেন, সাহস দেন, সমর্থন দেন। তাহলেই এলাকার জন্য আরো কাজ করার সুযোগ পাবো। কাজগুলো সার্বিকভাবে ভাটি অঞ্চলের কল্যাণের জন্যই করবো।’
তিনি বলেন,‘প্রধানমন্ত্রী বলেছেন হাওরাঞ্চলের জন্য বিশেষ প্রকল্প নিয়ে আসেন। আমার উপর আস্থা রাখেন। আপনার সকল প্রকল্প অনুমোদন হবে। শর্ত হচ্ছে সকল প্রকল্পই জনগণের কাজে লাগবে আপনাকে সেই কথা দিতে হবে।’ তিনি বলেন,‘আমি প্রধানমন্ত্রীর কাছে ওয়াদা করেছি। বলেছি নেত্রী আমি আপনার রাজনীতি করি। সবসময় আপনার পাশে থাকবো। আমি মানুষের উপকারে আসে না, এমন কিছ করবো না।
তিনি বলেন, ‘দারিদ্র দূরিকরণের সংগ্রামে আওয়ামী লীগের বিশাল অর্জন হয়েছে। এই সংগ্রামে আমরা হাওর এলাকাবাসী মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আছি। নেত্রীকে এই বার্তা বারবার জানাতে হবে। যেভাবে আমার তাঁর পিতার সাথে আমরা ছিলাম, সেভাবে তাঁর সাথেও আছি। তাহলেই বঝানো যাবে প্রগ্রতিশীল, অসাম্প্রদায়িক জনপদ এটি।’ মন্ত্রী বলেন, আমরা একসঙ্গে-একইভাবে সারা বাংলাদেশকেই এগিয়ে নিতে চাই। আমি সেভাবেই দায়িত্ব পালন করি।’
সুনামগঞ্জবাসী এই সরকারের সময়ে আকাঙ্খিত অনেক উন্নয়নই পাবেন, ছাতক থেকে সুনামগঞ্জের রেল লাইনের কাজ সরকারের আমলেই হবে। আমি কথা দিচ্ছি আগামী তিন বছরের মধ্যে রেল লাইনের কাজ শেষ হবে। আমি রেল মন্ত্রী, রেল সচিবসহ সবার সঙ্গে কথা বলেছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর মূখ্য সচিব ছাতকের কৃতিসন্তান নজিবুর রহমান এবং পিএসসির চেয়ারম্যান ড.মোহাম্মদ সাদিকসহ আমরা সুনামগঞ্জের যারা আছি, তারা সবাই এলাকার কল্যাণের জন্য কাজ করার চেষ্টা করছি।’
তিনি বলেন,‘আমি আওয়ামী লীগের কর্মী। আমরা এই জেলায় মরহুম জাতীয় নেতা আব্দুস সামাদ আজাদ ও প্রয়াত নেতা সুরঞ্জিত সেন গুপ্তকে নিয়ে আমরা ঢাকায় গর্ব করি।’
শুক্রবার সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আয়োজিত ইফতার মাহ্ফিলে প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।
শহরের প্রিয়াঙ্গন কমিউনিটি সেন্টারের ইফতার মাহ্ফিলে স্বাগত বক্তব্য দেন- জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন।
অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক, সংসদ সদস্য ড. জয়া সেন গুপ্তা, সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন, সুনামগঞ্জ-সিলেট সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট শামীমা শাহরিয়ার, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নুরুল হুদা মুকুট, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ বরকতুল্লাহ খান, বাংলাদেশ বর্ডার গার্ড (বিজিবি)’এর অধিনায়ক লে. কর্নেল মাকসুদুল আলম, সুনামগঞ্জ পৌরসভার মেয়র নাদের বখ্ত, তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান করুণা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল, ছাতক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান, দোয়ারাবাজার উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ডা. আব্দুর রহিম, শাল্লা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আল আমিন চৌধুরী, বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সফর উদ্দিন, সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট শামছুন নাহার শাহানা, র‌্যাব’এর সুনামগঞ্জ ক্যাম্পের অধিনায়কলে. কমান্ডার ফয়সল আহমদ, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি অ্যাডভোকেট আপ্তাব উদ্দিন, মুক্তিযোদ্ধা মতিউর রহমান, মুক্তিযুদ্ধ চর্চা ও গবেষণা কেন্দ্র সুনামগঞ্জের সভাপতি বজলুল মজিদ চৌধুরী খসরু, অ্যাডভোকেট শফিকুল হক ও অ্যাডভোকেট খায়রুল কবির রুমেন, দলীয় নেতা অ্যাডভোকেট আলী আমজাদ, অ্যাডভোকেট রইছ উদ্দিন, অ্যাডভোকেট সৈয়দ শায়েখ আহমদ প্রমুখ।
ইফতার মাহ্ফিলে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সহযোগি সংগঠনের বিপূল সংখ্যক নেতা-কর্মী উপস্থিত ছিলেন।