তীরে এসে তরী ডুবলো বাংলাদেশের

সু.খবর ডেস্ক
শেষ পর্যন্ত ৩ রানের ব্যবধানে হেরে গেল বাংলাদেশ। টাইগারদের হারিয়ে সেমির আশা টিকে রইলো ক্যারিবীয়দের। ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্যাচ মিস ও বাজে ফিল্ডিংয়ে শেষ পর্যন্ত সুযোগ পেয়েছিল বাংলাদেশ। শেষ বলে প্রয়োজন ছিল ৪ রান। কিন্তু রাসেলের ইয়র্কারে আত্মসমর্পণ করলো মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে হেরে শেষ হলো বাংলাদেশের বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ওঠার স্বপ্ন।
১৪৩ রানের টার্গেটে আজ নাঈমের সঙ্গে ওপেনিংয়ে নেমেছেন সাকিব আল হাসান। ক্যারিয়ারে আজই প্রথমবার ইনিংস ওপেন করতে নামলেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। ৩৬৭ ম্যাচের ৪০৩ ইনিংস পর এই পজিশনে সাকিব। ওপেনিং জুটির ক্রমাগত ব্যর্থতার কারণেই এই সিদ্ধান্ত টিম ম্যানেজম্যান্টের।
কিন্তু ওপেনিংয়ে নেমে হতাশই করলেন সাকিব। পঞ্চম ওভারে আন্দ্রে রাসেলের তৃতীয় বলে মাত্র ৯ রান করে হোল্ডারের ক্যাচ হন সাকিব। পরের ওভারেই নাঈমের স্ট্যাম্প উড়িয়ে দিয়েছেন জেসন হোল্ডার। পাওয়ারপ্লেতে বাংলাদেশের রান ২৯। ওয়েস্ট ইন্ডিজেরও পাওয়ারপ্লেতে রান ছিল ২ উইকেটে ২৯।
দুই ওপেনারকে হারিয়ে বাংলাদেশকে আশা দেখাচ্ছিল সৌম্য-লিটন। তবে দুজনেই এগোচ্ছে মন্থর গতিতে। কিন্তু জুটি ৩১ রানের বেশি হলো না। আকিল হোসেনের বলে সৌম্যের দুর্দান্ত ক্যাচ নেন ক্রিস গেইল। ১৩ বলে ১৭ রান করেন আউট হন সৌম্য।
ছন্দে থাকলে মুশফিকের যেন কী হয়ে যায়। আগের বলে দুর্দান্ত বাউন্ডারি মারলেন, কিন্তু মন ভরলো না। রামপলকে স্কুপ করতে গেলেন, ফলাফল বোল্ড। এতে লিটন দাসের সঙ্গে ভাঙলো ৩০ রানের জুটি।
মুশফিকের বিদায়ের পর চাপটা দ্বিগুণ হয়ে যায় বাংলাদেশের। যদিও মাহমুদউল্লাহ-লিটনের জুটির কারণেই শেষ ওভার পর্যন্ত টিকে ছিল বাংলাদেশ। ১৯তম ওভারের শেষ বলে লিটনের বিদায়ে উত্তেজনা আরো বেড়ে যায়। শেষ বলে প্রয়োজন ছিল ৪ রান। কিন্তু রাসেলের ইয়র্কারে আত্মসমর্পণ করলো মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে হেরে শেষ হলো বাংলাদেশের বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ওঠার স্বপ্ন।
ক্যারিবীয়দের হয়ে একটি করে উইকেট নেন রবি রামপল, জেসন হোল্ডার, আন্দ্রে রাসেল, আকিল হোসেন ও ডোয়াইন ব্রাভো।
এর আগে গুরুত্বপূর্ণ এই ম্যাচে টস জিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন টাইগার অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। টস হেরে ব্যাট করতে নেমে প্রথম ওভারেই মেহেদী হাসান মোকাবেলা করলেন ক্যারিবীয় দুই ওপেনার। প্রথম ওভারে আঁটসাঁট বোলিংয়ে মেহেদী দিয়েছেন মাত্র ৪ রান। ম্যাচে তৃতীয় ওভারেই গেইলকে রান আউট করার সুযোগ পেয়েছিল বাংলাদেশ। সাকিব আল হাসান থ্রো’টা সরাসরি লাগলেই আউট হতেন গেইল।
‘ইউনিভার্স বস’ বাঁচলেও মোস্তাফিজের ওভারে ভাঙলো ওয়েস্ট ইন্ডিজের ১২ রানের উদ্বোধনী জুটি। ওভারের শেষ বলে মুশফিকের তালুবন্দী হয়ে ফেরেন এভিন লুইস। ৯ বলে ১ চারে ৬ রান করেন তিনি।
দলীয় স্কোরকার্ডে ৬ রান যোগ হতেইও গেইলকে বোল্ড করলেন মেহেদী। গেইল করেছেন ১০ বলে ৪ রান। ওয়েস্ট ইন্ডিজ দ্বিতীয় উইকেট হারিয়েছে ১৮ রানে। টি-টোয়েন্টিতে এ নিয়ে চতুর্থবার মেহেদীর বলে আউট হলেন গেইল।

পাওয়ারপ্লে’তে ক্যারিবীয়দের নিয়ন্ত্রণে রেখেছে বাংলাদেশ। গেইল ও লুইসকে বিদায় করে পাওয়ারপ্লের ছয় ওভারে ওয়েস্ট ইন্ডিজ তুলেছে ২৮ রান। বিশ্বকাপে পাওয়ারপ্লেতে বাংলাদেশের বিপক্ষে কোনো দলের এটি দ্বিতীয় সর্বনিম্ন স্কোর।

ম্যাচের ৭ম ওভারে মেহেদীর বলে জীবন পান রোস্টন চেজ। ফিরতি ক্যাচ দিয়েছেন ক্যারিবিয়ান এই ব্যাটার, সহজ সুযোগটা হাতছাড়া করেন মেহেদী। এর পরের বলেই লংঅফে ধরা পড়েছেন শিমরন হেটমায়ার। ৯ রান করে বিদায় নেন এই হার্ড হিটার।
পাওয়ারপ্লে’তে ক্যারিবীয়দের নিয়ন্ত্রণে রেখেছে বাংলাদেশ। গেইল ও লুইসকে বিদায় করে পাওয়ারপ্লের ছয় ওভারে ওয়েস্ট ইন্ডিজ তুলেছে ২৮ রান। বিশ্বকাপে পাওয়ারপ্লেতে বাংলাদেশের বিপক্ষে কোনো দলের এটি দ্বিতীয় সর্বনিম্ন স্কোর।
ম্যাচের ৭ম ওভারে মেহেদীর বলে জীবন পান রোস্টন চেজ। ফিরতি ক্যাচ দিয়েছেন ক্যারিবিয়ান এই ব্যাটার, সহজ সুযোগটা হাতছাড়া করেন মেহেদী। এর পরের বলেই লংঅফে ধরা পড়েছেন শিমরন হেটমায়ার। ৯ রান করে বিদায় নেন এই হার্ড হিটার।
১৩তম ওভারে আহত হয়ে রিটায়ার্ড আউট হন পোলার্ড (৮)। তাসকিন আহমেদের বলে সিঙ্গেল নিয়ে মাঠ ছাড়েন তিনি। পরের বলে রোস্টন চেজের স্ট্রেট ড্রাইভ তাসকিনের পায়ে লেগে নন-স্ট্রাইকের স্টাম্প ভেঙ্গে দিলে শূন্য রানে ফিরতে হয় রাসেলকে। কোনো বল না খেলেই রানআউট তিনি।
সাকিবের ওভারে দারুণ দুটি সুযোগ কাজে লাগাতে পারলো না বাংলাদেশ। সাকিবের বলে চেজের ক্যাচ ফেলেছেন মেহেদী হাসান। যে কিনা নিজের বলেই এর আগে চেজের ক্যাচ ফেলেছিল। এরপর নিকোলাস পুরানকে স্ট্যাম্পিংয়ের সুযোগ নষ্ট করেন লিটন। সাকিবের বলে ক্রিজ ছেড়ে বের হয়েছিলেন, কিন্তু লিটন ধরতে পারেননি।
পুরান-চেজ জুটি যখন ভয়ের কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছিল, তখন দুই সেট ব্যাটসম্যানকেই পরপর দুই বলে ফেরালেন তরুণ শরীফুল ইসলাম। ১৯তম ওভারের দ্বিতীয় বলে নাঈমকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন নিকোলাস পুরান। ছয়টি ওভার বাউন্ডারির সাহায্যে ২২ বলে ৪০ রানে থামেন তিনি। পরের বলেই রোস্টন চেজের স্ট্যাম্প উড়িয়ে দিয়ে তাণ্ডব থামান শরীফুল। ৪৬ বলে ৩৯ রান করেন চেজ।
পুরান-চেজ জুটি যখন ভয়ের কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছিল, তখন দুই সেট ব্যাটসম্যানকেই পরপর দুই বলে ফেরালেন তরুণ শরীফুল ইসলাম। ১৯তম ওভারের দ্বিতীয় বলে নাঈমকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন নিকোলাস পুরান। ছয়টি ওভার বাউন্ডারির সাহায্যে ২২ বলে ৪০ রানে থামেন তিনি। পরের বলেই রোস্টন চেজের স্ট্যাম্প উড়িয়ে দিয়ে তাণ্ডব থামান শরীফুল। ৪৬ বলে ৩৯ রান করেন চেজ। শরীফুলের হ্যাটট্রিক বলে সিঙ্গেল নেন। নিজের তৃতীয় উইকেট পেতে পারতেন শরীফুল। কিন্তু জেসন হোল্ডারের সহজ ক্যাচ ডিপ কভারে ছেড়ে দেন আফিফ হোসেন। পুরো ইনিংসে তিনটি ক্যাচ ফেলল বাংলাদেশ, হাতছাড়া হয়েছে একটি স্টাম্পিং ও একটি রান-আউটের সুযোগও।
শেষ ওভারে ঝড় তুলেছে ক্যারিবিয়ানরা। হোল্ডার-পোলার্ড মিলে ২০তম ওভারে ১৯ রান নেয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ১৪২ রান করে বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা।
বাংলাদেশ একাদশ:
লিটন দাস, মোহাম্মদ নাঈম, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ (অধিনায়ক), সৌম্য সরকার, আফিফ হোসেন, মেহেদী হাসান, শরীফুল ইসলাম, তাসকিন আহমেদ, মোস্তাফিজুর রহমান।
ওয়েস্ট ইন্ডিজ একাদশ:
এভিন লুইস, ক্রিস গেইল, রসটন চেজ, শিমরন হেটমায়ার, কাইরন পোলার্ড (অধিনায়ক), নিকোলাস পুরান, আন্দ্রে রাসেল, ডোয়াইন ব্রাভো, জেসন হোল্ডার, আকিল হোসেইন, রবি রামপল।
সূত্র : সমকাল