ত্যাগী ও যোগ্যরা কমিটিতে বাদ পড়বে না

স্টাফ রিপোর্টার
দিরাই উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিতসভা চলাকালে মিলনায়তনের বাইরে উপজেলা আওয়ামী লীগের বিবদমান দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও হাতাহতির ঘটনা ঘটেছে। শনিবার দুপুরে উপজেলার বাগানবাড়ি কমিউনিটি সেন্টারের সামনে এই ঘটনা ঘটে। এসময় প্রতিপক্ষের হামলায় পৌর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক জুয়েল মিয়া ও যুবলীগ নেতা সফিক মিয়া আহত হয়েছেন।
শনিবার দুপুরে উপজেলার বাগানবাড়ি কমিউনিটি সেন্টারে দিরাই উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আছাব উদ্দিন সর্দারের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান, সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন, সহসভাপতি অ্যাডভোকেট সফিকুল আলম, রেজাউল করিম শামীম ও অবনী মোহন দাস, দিরাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ রায় প্রমুখ।
বক্তারা নেতা-কর্মীদের ঐক্যবদ্ধভাবে উপজেলা সম্মেলন সম্পন্ন করার অনুরোধ জানিয়ে বলেন, উপজেলা থেকে দুটি প্রস্তাবিত কমিটি দেওয়া হয়েছে। আমরা সমন্বয় করে কমিটি করবো। সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে সম্মেলন সফল করতে হবে। কমিটিতে ত্যাগী ও আওয়ামী লীগের নিবেদিতরা বাদ পড়বে না। বর্ধিত সভায় মিলনায়তনের ভিতরে উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সকল সদস্য এবং ৯ টি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকগণ উপস্থিত ছিলেন।
বর্ধিত সভা চলাকালে মিলনায়তনের বাইরে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ রায় এবং যুগ্মসাধারণ সম্পাদক মোশারফ মিয়া’র সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও হাতাহাতি’র ঘটনা ঘটে। এসময় পৌর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক জুয়েল মিয়া ও যুবলীগ নেতা সফিক মিয়া আহত হন।