দক্ষিণ সুনামগঞ্জে বিদ্যুৎ প্রকৌশলী লাঞ্ছিত, ছাত্রলীগ সভাপতিসহ দুই জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ অফিস
দক্ষিণ সুনামগঞ্জে বিদ্যুৎ অফিসের আবাসিক প্রকৌশলী ও কর্মীদের শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করা এবং ম্যাজিস্ট্রেট কর্তৃক জব্দকৃত মালামাল লুটের চেষ্টা করায় ছাত্রলীগের সভাপতি সহ ২ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন ও বকেয়া বিদ্যুৎ বিল আদায়ে পরিচালিত অভিযানে এই হামলা করা হয়। বিদ্যুৎ অফিসের আবাসিক প্রকৌশলী মোহাম্মদ তারেক বাদী হয়ে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানায় মামলা করেছেন। মামলার আসামীরা হলেন, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রয়েল আহমদ ও তার বড় ভাই রুকনুজ্জামান।
জানা যায়, সিলেট বিদ্যুৎ আদালতের নির্দেশে গত ১৬ এপ্রিল সুনামগঞ্জ জেলার দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে ভ্রাম্যমাণ আদালত নিয়ে অভিযানে নামে বিদ্যুৎ বিভাগ। অভিযানিক দলটি অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্নকরণ, দীর্ঘদিন ধরে বকেয়া বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ না করায় অনেকগুলো লাইন বিচ্ছিন্নসহ মালামাল জব্দ করেন। বিদ্যুৎ বিভাগের আবাসিক প্রকৌশলীর নেতৃত্বে কর্মীরা জব্দকৃত মালামাল নিয়ে আসার পথে দক্ষিণ সুনামগঞ্জের নোয়াখালি বাজারে বকেয়া বিলের কারণে লাইন বিচ্ছিন্ন করে আসা কয়েকজন গ্রাহকের ক্ষোভের মুখে পড়েন তারা। বকেয়া বিলের কারণে বগলাখাড়া গ্রামের রুকনুজ্জামানের অটো রাইস মিলের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে এসেছিল অভিযানিক দল। এই ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে রোকনুজ্জামান ও তার ভাই দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রয়েল মিয়া নোয়াখালি বাজারের একটি রেস্টুরেন্টে বিদ্যুৎ বিভাগের লোকদের উপর অতর্কিত আক্রমণ করেন। এতে আহত হন আবাসিক প্রকৌশলী নূর মোহাম্মদ তারেক ও ইলেকট্রিশিয়ান শফিকুলসহ কয়েকজন।
এসময় ধস্তাধস্তি করে ম্যাজিস্ট্রেট কর্তৃক জব্দকৃত মালামাল ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করা হলে স্থানীয় লোকজন এসে তাদের উদ্ধার করেন। লাঞ্ছিত আবাসিক প্রকৌশলী বিষয়টি তার উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানান । পরে রাতেই তিনি দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন।
এ ঘটনায় গত ২৪ মে শুক্রবার বিদ্যুৎ আইন ২০১৮ এর ৩৫ ধারায় বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতি লুণ্ঠন, চুরি, অপসারণ করা সহ ক্ষতি সাধনের অপরাধে উপজেলার জয়কলস ইউনিয়নের বগলারখাড়া গ্রামের মৃত রইছ মিয়ার ছেলে রুকনুজ্জামান ও তার ভাই উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রয়েল আহমদকে আসামী করে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ হারুনুর রশীদ চৌধুরী মামলা দায়েরের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।