দিনভর ধামাইল উৎসবে মেতেছিলেন হাজারো মানুষ

স্টাফ রিপোর্টার
‘আবার বাজাও বাজাও রে বন্ধু, বাজাও বাঁশিখান, তোমারও বাঁশির গানে, উদাস হইল প্রাণ/ ওই শোনো কে বাঁশি বাজায়, মরি যন্ত্রণায় গো মরি যন্ত্রণায় / তোমরা দেখো গো আসিয়া।’ ভাটি অঞ্চলের এমন জনপ্রিয় ধামাইল (দলবেধে গাওয়া) গান দিনভর গাইলের ধামাইল শিল্পীরা। একদলের পর আরেক দল গাইলেন। জমজমাট এই আয়োজন দেখতে শত শত উৎসুখ দর্শক ¯্রােতার ভিড়। অন্য রকমের আয়োজন। সুনামগঞ্জের টাইলা গ্রামে দ্বিতীয়বারের মতো শনিবার হলো ‘প্রতাপ রঞ্জন ধামাইল উৎসব’।
বেলা ১১ টায় উৎসবের উদ্বোধন করেন সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল কালাম।
পরে প্রতাপ রঞ্জন স্মৃতি পরিষদের সভাপতি জয়ন্ত তালুকদার পুল্টন’এর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক শ্যামল দে’এর সঞ্চালনায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সিতাংশু শেখর ধর, উপজেলা আওয়ামী লীগের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান দোলন রানী তালুকদার, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাসুক মিয়া, পশ্চিম বীরগাঁও ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান লুৎফর রহমান জায়গীরদার খোকন, প্রতাপ রঞ্জন ধামাইল উৎসব উদ্যাপন পরিষদের সভাপতি মরচু মিয়া, সাধারণ সম্পাদক রাসেল মিয়া, অ্যাডভোকেট মোস্তাক বাহার প্রমুখ।
উৎসব উপলক্ষে সকাল থেকেই ধামাইল শিল্পীদের কেউ কেউ দল নিয়ে, কেউবা একা একা এসেই জড়ো হন টাইলা গ্রামের উৎসবস্থলে। ধামাইল দলের মধ্যে উল্লেখযোগ্যরা ছিল শাল্লার খাগাউড়ার পিয়াইন ধামাইল দল, শান্তিগঞ্জের লোকদল ধামাইল দল, দিরাইয়ের কালনীর কূলে ধামাইল দল, নবীগঞ্জের শ্রীধ্বনি ধামাইল সংঘ ও মোহিনী ধামাইল সংঘ, এছাড়া বড়লেখার বাউলা তপু, ধামাইল শিল্পী সনিবর্মণ, জুনিয়র শান্তা, বৃষ্টি তালুকদার, ঝুমা দেব, রিমা, সম্পা ও অপরিচিতা পলিসহ অসংখ্য ধামাইল শিল্পী এসে দিনভর ধামাইল গেয়ে আনন্দ দিয়েছেন হাজারো দর্শককে।
ধামাইল শিল্পী জুনিয়র শান্তা বললেন, সিলেটের জনপ্রিয় ধামাইল সারা বিশে^ ছড়িয়ে পড়–ক এই প্রত্যাশায় রয়েছি আমরা।
বৃষ্টি তালুকদার বললেন, বৈষ্ণব কবি রাধারমণ ও প্রতাপ রঞ্জনের ধামাইলের কদর বাংলা ভাষাভাষি মানুষের কাছে চিরদিন থাকবে। ধামাইলে বিনোদন দেবার পাশাপাশি মানুষের মনের কথা, সমাজের নানা অসঙ্গতির কথাও তুলে ধরা হয়। ধামাইলকে জনপ্রিয় করতে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়কে আরও বেশি উদ্যোগি হবারও আহ্বান জানান এই শিল্পী।
লোক সাহিত্যের বিশেষ সৃষ্টি ধামাইলকে পৃষ্টপোষকতা দেবার অঙ্গীকারের কথা জানালেন অনুষ্ঠানে আসা অতিথিরাও।