দুর্ঘটনা এড়াতে সকল সড়ক বাঁক সোজা করা হবে-পরিকল্পনামন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার
পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান এমপি বলেছেন, দুর্ঘটনা এড়াতে সকল সড়ক বাঁক কে সোজা করার নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। এজন্য বিশাল প্রকল্পও গ্রহণ করা হয়েছে। মহাসড়ক ঘেঁষে যেখানে হাটবাজার গড়ে ওঠেছে, সেখানে ফ্লাইওভার করা হবে। যাতে মানুষ ওভারব্রিজ দিয়ে পারাপার হতে পারে। সড়ক প্রশস্ত করা হবে। কিন্তু এগুলো তো একদিনে করা যাবে না, আমাদের সময় দিতে হবে। এরমধ্যে আমাদের সবাইকে সাবধানও থাকতে হবে। তিনি বলেন, ‘দুর্ঘটনার উপর কারো নিয়ন্ত্রণ নেই। আমরা যখন সড়ক পার হই, গাড়িতে উঠি তখন সাবধান হওয়ার দরকার। ড্রাইভারকে সাবধান হতে হবে, পথচারীকে সাবধান হতে হবে। আইন-কানুন মানতে হবে।’
রোববার বিকাল ৩ টায় সুনামগঞ্জ-দিরাই সড়কের গণিগঞ্জে বাস-লেগুনা’র মুখোমুখী সংঘর্ষের ঘটনায় নিহত ৭ লেগুনাযাত্রীর স্বজনদের সমবেদনা জানাতে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে এসে গণমাধ্যমকর্মীদের এসব কথা বলেন মন্ত্রী।
মন্ত্রী বলেন, ‘আগের থেকে যানবাহনে চাপ অনেক বেড়েছে, গাড়ি-ঘোড়াও অনেক বেড়েছে, দেশের উন্নতি হয়েছে বলেই তো এটি হয়েছে। কিন্তু আমাদের দুর্ভাগ্য মাঝে মাঝে কাঁচা লোক গাড়ি চালায়। আবার অনেক গাড়ির ফিটনেসও নেই। এগুলোও দুর্ঘটনার জন্য দায়ী। কিন্তু এ কথার মানে এই নয় যে, যে লোকগুলো মারা গেছেন তারা ইচ্ছে করে মরছেন। তাদের কপালে কি এটা ছিল? ঢাকা থেকে কাজ করে টাকা নিয়ে আসছে ঈদের সময়, বাড়িতে স্বজনদের নিয়ে আনন্দ করবে, সেটি হলো কই, আমরা কেউ-ই সেটি ফিরিয়ে দিতে পারবো না।’
এসময় নিহতদের পরিবারকে ২০ হাজার টাকা করে আর্থিক সহায়তা তুলে দেন পরিকল্পনামন্ত্রী। পরিকল্পনামন্ত্রী আরও বলেন, ‘এই সহায়তা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী’র পক্ষ থেকে দেওয়া। দুর্ঘটনায় যে ক্ষতি হয়েছে, তা পোষানোর ক্ষমতা কারো নেই। যারা সন্তান-ভাই হারিয়েছেন, তাদেরকে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে সহমর্মিতা জানাতে এসেছি। তাদের দুঃখের সময় পাশে থাকতে চাই আমরা।
সহায়তা প্রদানের সময় সংসদ সদস্য, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মুহিবুর রহমান মানিক, সংসদ সদস্য ধর্মপাশা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন রতন, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ, সংরক্ষিত আসনের সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট শামছুন নাহার বেগম শাহানা, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রে হারুন অর রশিদ, ছাতক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।