দোয়ারায় নদীগর্ভে ৫ বাড়ি, মাছিমপুর বিলীন হচ্ছে সুরমায়

দোয়ারাবাজার প্রতিনিধি
নদী ভাঙনে বিলীন হতে চলেছে দোয়ারাবাজার উপজেলার পশ্চিম মাছিমপুর। গত তিন দিনে সুরমা নদীর ভাঙনে এই গ্রামের ৫ টি বাড়ীঘর বিলীন হয়েছে। হুমকির মুখে পড়েছে অর্ধ শতাধিক বাড়ী ঘর। উদ্বিগ্ন গ্রামবাসী ভাঙন রোধে দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন।
গত কয়েক বছর ধরেই দোয়ারাবাজার উপজেলা সদরের আশপাশ এলাকা সুরমা নদীতে বিলীন হয়ে চলেছে। সম্প্রতি উপজেলা পরিষদের আশপাশ অংশে অস্থায়ীভাবে ভাঙন রোধে কাজ হয়েছে। কিন্তু উপজেলা সদরের পশ্চিম মাছিমপুর এলাকায় ভাঙন প্রতিরোধে কোনো কাজ হয় নি। গত তিন দিনে এই গ্রামের আমির আলী, লিলু মিয়া, জামাল মিয়া, আব্দুছ ছোবহান ও শাহাবুদ্দিনের বাড়ীঘর নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে।
বাড়ীঘর হারিয়ে দিশেহারা লিলু মিয়া বলেন, ‘আমার ৪ ছেলের ২ জনই পঙ্গু। অন্য দুজনও আয় রোজগার করে না। আরেকটি বাড়ী নির্মাণের তৌফিক (ক্ষমতা) নাই আমার। আমার জমি বাড়ী যা ছিল, সবই নদীতে গেছে।’
গ্রামের রিক্সাচালক আমির আলী জানালেন, একটি বাড়ী ছাড়া কিছুই ছিল না তার, এই বাড়ীটিই নদীতে গেছে।
গ্রামের আর্পিয়া বেগম বলেন, আমার দুটি বশতবাড়ী এর আগে নদীতে গেছে। সর্বশেষ মাথার গুঁজার যে ঠাই ছিল, সেটিও বিলীন হবার আশক্সকা দেখা দিয়েছে।
এরা সকলেই দ্রত নদী ভাঙন প্রতিরোধে ব্যবস্থা নেবার দাবি জানালেন।
সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সফিকুল ইসলাম বলেন,‘দোয়ারাবাজার উপজেলা সদরের ৭ কিলোমিটার অংশের ভাঙন রোধে ৯২ কোটি টাকার প্রকল্প প্রস্তাবনা একনেকে অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে। আগামী মঙ্গলবার বা এরপরের মঙ্গলবারই একনেক’এ তা অনুমোদন হতে পারে। এরপরই দোয়ারাবাজার নদী ভাঙন রোধে দরপত্র’এর প্রক্রিয়া শুরু হবে।