দ্বীপাল বাবুর মতো ত্যাগীরা আ.লীগকে বাঁচিয়ে রেখেছে-পরিকল্পনামন্ত্রী

জগন্নাথপুর অফিস
পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান এমপি বলেছেন দ্বীপক কান্তি দে দীপালের মতো তৃণমূলের ত্যাগী নেতাকর্মীরাই আওয়ামী লীগ কে বাঁচিয়ে রেখেছে। তিনি আমৃত্যু নিজের জন্য কিছু না করে এলাকার উন্নয়ন নিয়ে কাজ করছেন। অনেক ব্রিজ, কালভার্ট, স্কুল, কলেজ করতে ভূমিকা রেখে গেছেন। এই উন্নয়নগুলো তাঁকে বাঁচিয়ে রাখবে।
মন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা সমাজের পিছিয়ে পড়া মানুষকে এগিয়ে নিতে কাজ করতে চান। এই কাজগুলো করতে আমরা কাজ করছি। দ্বীপক কান্তি দে দীপাল ছিলেন এসব কাজের সারথী। আমরা তাকে স্মরণ করব। তাঁর সুযোগ্য সন্তান সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি দীপঙ্কর কান্তি দে’র পাশে আমার আছি।
মন্ত্রী বলেন, শত ষড়যন্ত্রের মধ্যে ত্যাগী পরিশ্রমী নেতাকর্মীদের কারণে ষড়যন্ত্রকারীরা ব্যর্থ হচ্ছে বার বার। দেশে পরিবর্তনের হাওয়া শুরু হয়েছে। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। এখনো শেখ হাসিনাকে উৎখাতের ষড়যন্ত্র চলছে।
বর্তমান সরকার দুনীতি বিরুদ্ধে যে অভিযান শুরু করেছে তা সারা দেশে চলবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উন্নয়নের পাশাপাশি দুনীতির বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিয়েছেন। সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করছে যারা তাদের রেহাই নেই। পরিকল্পনা
মন্ত্রী বলেন, প্রযুক্তির মাধ্যমে সরকারি সেবাসমূহ জনগণের দোড়গোড়ায় পোঁছে দেওয়ার পাশাপাশি দুনীতিকে বিদায় জানাতে সরকার বদ্ধপরিকর। তিনি সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারীদের প্রকল্প গ্রহণে সর্তক ও শুধু শহর কেন্দ্রীক ভাবনা না রাখতে আহ্বান জানান।
তিনি দলীয় নেতাকর্মীদের বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়নে শেখ হাসিনার উন্নয়নের রাজনীতি কে ত্বরান্বিত করতে ত্যাগের মনোভাব নিয়ে কাজ করে যাওয়ার আহ্বান জানান।
বুধবার বিকালে জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া বাজারে কলকলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ আয়োজিত ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দ্বীপক কান্তি দে দীপালের শোকসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথা বলেন মন্ত্রী।
কলকলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ফখরুল হোসেন’র সভাপতিত্বে ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান মাস্টার’র পরিচালনায় এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি সিদ্দিক আহমদ, জেলা আওয়ামী লীগ সদস্য সিরাজুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আকমল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম, সহ সভাপতি জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র আব্দুল মনাফ, সহ সভাপতি আব্দুল মালেক, উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান বিজন কুমার দেব, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহ্ফুজুল আলম, পরিবারের পক্ষে বক্তব্য দেন প্রয়াতের কাকাতো ভাই সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাব সভাপতি পঙ্কজ কান্তি দে, ছেলে সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি দীপংকর কান্তি দে, শাহজালাল মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ এমএ মতিন, আওয়ামী লীগ নেতা কদ্দুস মিয়া, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি হাবিবুর রহমান, উপজেলা যুবলীগ সভাপতি কামাল উদ্দিন, জেলা যুবলীগের সাবেক সদস্য আলাল হোসেন, মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি রাসেল আহমদ, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাফরোজ ইসলাম, ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা সিপন মিয়া, কামাল হোসেন লিলু, আনোয়ার হোসেন শিপু, স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা শাহ আলম,ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি লায়েক আহমদ, সাধারণ সম্পাদক রাজ শেখর বৈদ্য প্রমুখ।
এদিকে সকালে মন্ত্রী উপজেলা পরিষদ সম্মেলন কক্ষে উপজেলা পরিষদের আয়োজনে শিক্ষিত তরুণ তরুণীদের আইসিটি ও আউটসোর্সিং বিষয়ক প্রশিক্ষণের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন।
জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান বিজন কুমার দেব’র সভাপতিত্বে এতে বক্তব্য দেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহ্ফুজুল আলম, উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফারজানা বেগম, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আকমল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম প্রমুখ।
দুপুরে মন্ত্রী উপজেলা সদরের আব্দুস সামাদ আজাদ অডিটরিয়ামে জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাহফুজুল আলম মাসুমের সভাপতিত্বে ও উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জয়নাল আবেদীনের পরিচালনায় নলকূপ বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন।
এতে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামা লীগের সহ সভাপতি সিদ্দিক আহমদ, সহকারি পুলিশ সুপার হায়াতুল নবী, সুনামগঞ্জের জনস্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল কাশেম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আকমল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রিজু, উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান বিজন কুমার দেব।
এছাড়াও বক্তব্য রাখেন পাটলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সিরাজুল হক, চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আরশ মিয়া, উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী আব্দুর রব সরকার, উপজেলা যুবলীগ সভাপতি কামাল উদ্দিন, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাফরোজ ইসলাম প্রমুখ।
পরে তিনি জগন্নাথপুরের চিলাউড়া-হলদিপুর ইউনিয়নের ৪ শতাধিক পরিবারের মধ্যে নলকূপ বিতরণ করেন। পর্যাক্রমে অন্য ইউনিয়নগুলোতে অনুরূপভাবে নলকূপ বিতরণ করা হবে বলে জানিয়েছেন জগন্নাথপুর উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী আব্দুর বর সরকার।