দ.সুনামগঞ্জে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি শেষ

ইয়াকুব শাহরিয়ার, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ
দক্ষিণ সুনামগঞ্জে ২১ টি মন্ডপে ইতোমধ্যে পূজার প্রস্তুুতি শেষ হয়েছে। মন্ডপ সাজানো ও দৃষ্টিনন্দন প্রবেশদ্বার তৈরিসহ নান্দনিক কারুকাজে মন্ডপের সৌন্দর্য ফুটিয়ে তুলেছেন আয়োজকরা।
আজ সোমবার ষষ্ঠীপূজার মধ্য দিয়ে দেবী দুর্গার স্বর্গ থেকে মর্তলোকে আবির্ভাব ঘটবে এবং ১৯ সেপ্টেম্বর বিজয়া দশমীর মাধ্যমে শেষ হবে। সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় দুর্গোৎসবকে ঘিরে উপজেলার সবক’টি পূজামন্ডপকে সু-সজ্জিত করার কাজ প্রায় শেষ করা হয়েছে। এখন অপেক্ষা শুধু উৎসবের আনুষ্ঠানিকতার।
বৈচিত্রময় দুর্গামূর্তিকে দৃষ্টিনন্দন করে তুলতে প্রতিমাশিল্পীদের যে ব্যস্ততা এতোদিন ছিলো তুলির শেষ আঁচড়ে আঁচড়ে পূর্ণতা পেতে পেতে এখন প্রায় শেষ তাদের এই কর্মব্যস্ততা। ম-পে ম-পে এখন চলছে পূজা উদযাপন কমিটি ও প্যান্ডেল-মঞ্চের কারিগরদের পূজাপূর্ব আনুষ্ঠানিক সভা। নির্বিঘেœ উৎসব উদযাপনের জন্য নিরাপত্তা ব্যবস্থায় ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীও। দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানা পুলিশ সম্প্রতি দুর্গাপূজা নির্বিঘেœ পালন করতে সাংবাদিক, সুশীল সমাজ ও উপজেলার হিন্দু নেতাদের সাথে একাধিক বৈঠকও করেছেন। বৈঠকে প্রতিটি মন্ডপে পুলিশ আনসার থাকার কথাও আলোচনা হয়েছে। থাকবে অতিরিক্ত স্বেচ্ছাসেবীও। আলোচনা সভায় হিন্দু কমিউনিটির সিনিয়র নেতারা বলেন, ‘দক্ষিণ সুনামগঞ্জ একটি সম্প্রীতির উপজেলা। এ উপজেলায় পূজার সময় এখনো বড় ধরনের কোনো আপত্তিকর ঘটনা ঘটেনি। এখানে পুলিশি প্রহরা না থাকলেও আমরা নির্বিঘেœ পূজা পালন করতে পারবো। কারণ আমরা মনে করি, এটি সার্বজনিন উৎসব।’
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ পূজা উদযাপন পরিষদ সূত্রে জানা গেছে, দক্ষিণ সুনামগঞ্জের ৮ টি ইউনিয়নের ৭ টিতে মোট ২১ মন্ডপে শারদীয় দুর্গা পূজা পালন করা হবে। যা গত বছরের তুলনায় ১ টি কম। শিমুলবাঁক ইউনিয়নে কোনো মন্ডপেই পূজা হচ্ছে না।
রবিবার বিকালে উপজেলার বেশ কয়েকটি মন্ডপ ঘুরে দেখা যায়, প্রতিমা তৈরির কাজ প্রায় শেষ। সাজ-সজ্জার কাজও শেষ হয়েছে। আসন বসানো ও লাইটিং-এর কাজ করছে মঞ্চ শ্রমিকেরা। মঞ্চ তৈরির কারিগর হাসান বলেন, ‘প্রতি বছরই আমরা দুর্গা পূজার কাজ করে থাকি। মঞ্চ লাইটিং থাকে আমাদের আন্ডারে। প্রতিমা তৈরি করেন আরেক দল। এটা আমাদের ভালো লাগে যে, সবাই এই পূজা দেখতে আসেন।’
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক জ্যোতি ভূষণ তালুকদার ঝন্টু বলেন, ‘আমাদের প্রস্তুতি সম্পন্ন।’
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি দিলীপ তালুকদার বলেন, ‘আমরা মনে করি এ উৎসব সকলের। উৎসবের ক্ষেত্রে ধর্ম কোনো বাধা হতে পারে না। আমরা সকলের সহযোগিতা কামনা করি।’
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘এ উপজেলায় যাতে কোনো আপত্তিকর ঘটনা না ঘটে পুলিশ সে দিকে সতর্ক দৃষ্টি রাখবে। পুলিশ আনসার সব সময় মন্ডপেই অবস্থান করবে।’