দ.সুনামগঞ্জে নদী গর্ভে বিলীন হচ্ছে বসতবাড়ি

কাজী জমিরুল ইসলাম মমতাজ, দ.সুনামগঞ্জ
প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস মহামারির সময় নতুন আতঙ্ক যুক্ত হয়েছে নদী ভাঙন। ভাঙন আতঙ্কে নির্ঘুম রাত কাটছে দক্ষিণ সুনামগঞ্জে উপজেলার নাইন্দা নদীর তীরবর্তী মানুষের।
কয়েক বছর আগে ২ বিঘা জমি ক্রয় করে নাইন্দা নদীর তীরবর্তী দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার জয়কলস ইউনিয়নের সদরপুর গ্রামে বসতি শুরু করেছিলেন মুসলিম আলী ও তার ভাইয়েরা। প্রতিবছরই নদী ভাঙ্গনে বিলীন হচ্ছে তাদের ভিটা। বার বার স্থান পরিবর্তন করেও রক্ষা নেই তাদের। নদী ভাঙ্গনের ফলে চরম অসহায় হয়ে দিন কাটাচ্ছেন মুসলিম আলীর পরিবার। গত দু-বছরের ধারাবাহিক ভাঙনে পথে বসার উপক্রম হয়েছে। নদী ভাঙ্গন রোধে সরকারের প্রদক্ষেপ ও সাহায্য কামনা করেছেন তারা।
সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, এই পরিবারগুলো চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন। বাড়ির ভিটায় বড়বড় ফাটা দেখা দিয়েছে। প্রতিনিয়তই নদী ভাঙ্গন অব্যাহত রয়েছে। সামনে পিছনে পানি থাকায় নদী ভাঙনে বিলীন হওয়ার পথে এই গ্রামের অসহায় পরিবারগুলো। ভাঙন দুশ্চিন্তায় রয়েছেন নাইন্দা নদীর তীরবর্তী শতশত পরিবার।
মুসলিম আলী বলেন, ২ বিগা জমিতে কিনে বসবাস শুরু করেছিলাম নদী ভাঙ্গনের কবলে পড়ে এখন সব শেষ হওয়ার পথে। ছেলে মেয়ে নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছি কখন জানি সবকিছু নদীতে তলিয়ে যায়। আমরা সরকারের সাহায্য চাই।
এ ব্যাপারে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-সহকারী প্রকৌশলী ফারুক আল মামুন বলেন, আমি ভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেছি। ভাঙ্গন রোধে পানি উন্নয়ন বোর্ড দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।
সুনামগঞ্জ পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী (পওর-২) শফিকুল ইসলাম বলেন, ভাঙন কবলিত নাইন্দা নদীর তীরবর্তী সদরপুরে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এ ব্যাপারে শাখা কর্মকর্তাকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।