নদী ভাঙনে বন্ধ হয়ে গেছে ছাতক- দোয়ারা সড়ক

আশিক মিয়া, দোয়ারাবাজার
দোয়ারাবাজার উপজেলার সুরমা নদীর ভাঙ্গনে আবারও বন্ধ হয়েছে ছাতক দোয়ারাবাজারে একমাত্র যোগাযোগ সড়ক। বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে ছাতকের সাথে দোয়ারাবাজারের যোগাযোগ। গত বৃহস্পতিবার ঢাকা থেকে পানি উন্নয়ন বোর্ডের একটি টিম ভাঙ্গন এলাকা পরিদর্শন করেছেন। এদিকে শনিবার সকালে জেলা প্রশাসক মো. সাবিরুল ইসলাম ভাঙন এলাকা পরিদর্শন করেছেন।
জানা যায়,
গত এক সপ্তাহ ধরে নদীর ভাঙনে একটু একটু করে সড়কটি নদীগর্ভে চলে গেলেও প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন রকম পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। গত বৃহস্পতি ও শুক্রবারের বৃষ্টিতে মংলারগাঁও গ্রামের পাশের মাস্টার পাড়া এলাকায় সড়কের বড় অংশ ভেঙ্গে নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যায়। এর আগে বিলীন হয়েছে উপজেলা পরিষদ সংলগ্ন সড়কটি।
এদিকে ভাঙনে মংলারগাঁও, মাজেরগাঁও, মুরাদপুর, পুর্ব মাছিমপুর, পশ্চিম মাছিমপুরের প্রায় শতাধিক পরিবার ভিটে মাটি হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়েছেন। প্রায় অর্ধশতাধিক পরিবার রাস্তার পাশে ঘর তৈরি করে কোন রকম দিন কাটাচ্ছেন।
উপজেলার মাজেরগাঁও গ্রামের সমুজ আলী কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন, ‘বাবার রেখে যাওয়া এই বাড়ির ভিটে ছাড়া আর কিছুই নেই। আমদের ভিটের অর্ধেক অংশ এখন নদী গর্ভে। বাকি অংশটুকু যদি নদীগর্ভে চলে যায় তাহলে আমাদেরও অন্যদের মত রাস্তায় আশ্রয় নিতে হবে।’
নদী ভাঙ্গন প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি তাজুল ইসলাম বলেন, ‘ইতিপূর্বে আমরা কয়েকবার মানববন্ধন কর্মসুচি পালন করেছি। কিন্তু সরকারের পক্ষ থেকে কোর রকম পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। সরকারের নিরব ভূমিকায় আমরা হতাশ।
দোয়ারাবাজার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী মহুয়া মমতাজ বলেন, ‘গত বৃহস্পতিবার ভাঙ্গন এলাকা পরিদর্শন করে পানি উন্নয়ন বোর্ডের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা জরুরী ভিত্তিতে বরাদ্দ দেয়ার জন্য কর্তৃপক্ষকে বলেছেন। এই মুহূর্তে উপজেলা পরিষদের পর্যাপ্ত বরাদ্দ নেই। তাই আমাদের পক্ষ থেকে কিছু করা যাচ্ছে না।’



আরো খবর