পরিবহন ধর্মঘটে ভোগান্তি

স্টাফ রিপোর্টার
সুনামগঞ্জে শুক্রবার ভোর ৬টা থেকে ৩৬ ঘন্টার পরিবহন ধর্মঘট শুরু হয়। ধর্মঘট চলবে আজ শনিবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত। গত বৃহস্পতিবার সুনামগঞ্জ জেলা বাস মিনিবাস মালিক সমিতি ও পরিবহন শ্রমিক সমিতি যৌথভাবে ধর্মঘটের ডাক দেয়।
শুক্রবার সকালে সুনামগঞ্জ পৌর শহরের নতুন বাস স্টেশনে গিয়ে দেখা যায়, সকল যানবাহন সারিবদ্ধভাবে পার্ক করা। কোন বাস সট্যান্ড থেকে ছেড়ে যায়নি। টিকেট কাউন্টারও বন্ধ। বাস চলাচল বন্ধ থাকায় ভোগান্তিতে পড়েছেন যাত্রীরা। তবে ছোট, ছোট ছেলে মেয়ে নিয়ে দূর দূরান্ত থেকে যারা টার্মিনালে এসেছেন তারাই পড়েছেন সবচেয়ে বেশি ভোগান্তিতে। কেউ কেউ অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে বিকল্প ব্যবস্থায় গন্তব্যে যাওয়ার চেষ্টা করছেনএ আবার অনেকেই বাস না পেয়ে আবার বাড়ি ফিরেছেন। বাস না চললেও মালবাহী ট্রাক, ব্যক্তিগত মোটরসাইকেল, অটোরিক্সা ও সিএনজি চলাচল করতে দেখা গেছে।
তাহিরপুর উপজেলার উত্তর বড়দল ইউনিয়নের সাইফুল ইসলাম (৫০) সিলেটে ডাক্তার দেখানোর জন্য নাতনি রেহানা আক্তার (৭) কে নিয়ে ভোরে বাড়ি থেকে বের হন। সুনামগঞ্জ নতুন বাসস্টেশনে এসে তিনি জানতে পারেন দুই দিনের পরিবহন ধর্মঘট চলছে। অনেক চেষ্টা করেও সিলেটে যেতে না পেরে অবশেষে বেলা ১১টায় বাড়ির পথ ধরেন তিনি।
সাইফুল ইসলাম বলেন, এক মাস যাবত নাতনিটা খুব অসুস্থ। অনেক ডাক্তার দেখিয়েছি কিন্তু সুস্থ হয়নি। তাই আজকে সিলেটে যাওয়ার জন্য সুনামগঞ্জে এসেছিলাম। কয়েক ঘন্টা অপেক্ষা করলাম, কিন্তু সিলেটের কোন গাড়ি ছাড়েনি। কপাল খারাপ, তাই অসুস্থ নাতনিকে নিয়ে আবারও বাড়ি চলে যাচ্ছি।
তাহিরপুর থেকে আসা সাইদুর মিয়া বলেন, আমার মা সিলেট ওসমানীতে ভর্তি। আজ উনার অপারেশন। পায়ে হেঁটে হলেও আজ আমাকে আমি সিলেটে যেতে হবে।
লাউড়েগড় থেকে আসা হাফিজ মিয়া বলেন, ছেলে মেয়ে নিয়ে হবিগঞ্জ থেকে সুনামগঞ্জের লাউড়েগড়ে বেড়াতে এসেছিলাম। কয়েকদিন থাকার পর আজকে বাড়িতে যাওয়ার জন্য সেখান থেকে এসেছি। কিন্তু এসে দেখি ধর্মঘট। তাই আবারও আত্মীয়ের বাসায় ফিরে যাচ্ছি।
বিশ্বম্ভরপুর থেকে আসা ইউনুছ মিয়া বলেন, কয়েকদিন পর পর পরিবহনে ধর্মঘটের ডাক দেয়া হয়। এতে সাধারণ মানুষকে খুবই দুর্ভোগে পড়তে হয়। এটা সত্যি দুখঃজনক।
জামালগঞ্জ থেকে আসা রাব্বি মিয়া বলেন, কপাল খারাপ থাকলে সব দিকে হয়। সিলেটে যাওয়ার জন্য এসে সকাল থেকে বাসস্ট্যান্ডে বসে আছি। ভেবেছিলাম যদি গাড়ি ছাড়ে কিন্তু গাড়ি ছাড়ল না। আবারও জামালগঞ্জ চলে যাচ্ছি।
সুনামগঞ্জ জেলা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক জুয়েল মিয়া জানান, মালিক ও শ্রমিকদের স্বার্থে ধর্মঘটের আহবান করা হয়েছে। শান্তিপূর্ণভাবে ধর্মঘট চলছে।
সুনামগঞ্জ বাস মালিক সমিতির সভাপতি মোজাম্মেল হক জানান, চার দফা দাবিতে বাস মালিক সমিতি ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে। ধারাবাহিক কর্মসূচির অংশ এটি। আমাদের দাবি না মানলে আরও কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা দেয়া হবে।
প্রসঙ্গত, পরিবহন মালিক সমিতি ও সড়ক পরিবহন ফেডারেশনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, চার দফা দাবিতে তারা ধর্মঘটের ডাক দিয়েছেন। দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে- সুনামগঞ্জ সিলেট সড়কের লামাকজি সেতু থেকে অবৈধ টোল আদায় বন্ধ, অবৈধ সিএনজি চলাচল বন্ধ, বিআরটিসির বাস চলাচল বন্ধ এবং সুনামগঞ্জ বাস টার্মিনাল সংস্কার।