পরিবেশ বান্ধব উপায়ে বালু পাথর ও কয়লা উত্তোলনের দাবিতে সমাবেশ

তাহিরপুর উপজেলায় পরিবেশ বান্ধব উপায়ে হাতের সাহায্যে যাদুকাটা নদীতে বালু পাথর ও কয়লা উত্তোলনের দাবিতে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত ১০ সেপ্টেম্বর বিকালে কয়লা ও বারকি শ্রমিকদের যৌথ আয়োজনে উপজেলার বড়খোপ বাজারে এই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
ফরিদ মিয়ার সভাপতিত্বে এবং আব্দুল ছালাম মিয়ার পরিচালনায় সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ কৃষক সংগ্রাম সমিতির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক শাজাহান কবির।
এছাড়াও বক্তব্য রাখেন জেলা ট্রেড ইউনিয়ন সংঘের সভাপতি বাদল সরকার, জেলা বারকি শ্রমিক সংঘের সভাপতি নাসির মিয়া, জেলা হোটেল রেস্টুরেন্ট মিষ্টি বেকারী শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি লিলু মিয়া, হকার শ্রমিক নেতা বিনন্দ কর, বারকি শ্রমিক নেতা নজরুল ইসলাম, সামছুল আলম, আয়ুব আলী, আবু হানিফা, এনাম উদ্দিন, আব্দুর রশিদ, গোলজার উদ্দিন, জালাল উদ্দিন প্রমুখ।
সমাবেশে বক্তারা বলেন, দেশের প্রান্তিক জেলা হাওর অঞ্চলে বিকল্প কর্মসংস্থান না থাকায় তাহিরপুর, বিশ্বম্ভরপুর হাজার হাজার শ্রমজীবী মানুষ বৎসরের প্রায় বেশির ভাগ সময় পাথর বালি মহালে যুগ যুগ ধরে পরিবেশ বান্ধব উপায়ে হাতে বেলচা/বালতি/নেট এর সাহায্যে কয়লা, বালি, পাথর উত্তোলন ও সংগ্রহ করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছিল। কিন্তু বিগত কিছু দিন যাবৎ বিজিবি স্থানীয় ক্যাম্পের সদস্যগণ বাধা নিষেধ দিচ্ছেন। অন্যদিকে প্রায় ৮/১০ বৎসর যাবৎ ইজারা চুক্তি লঙ্ঘন পূর্বক ও আইনের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুঁলি প্রদর্শন করে অবৈধ ড্রেজার/খনন যন্ত্রের মাধ্যমে নদী-বন ও পরিবেশ বিধ্বংসী কার্যক্রম পরিচালনা করার ফলে নদী গর্ভে বিলিন হয়েছে হাট বাজার, স্কুল, ঘর-বাড়ী ও ফসলী জমি। নদীর গড় গভীরতা বৃদ্ধি পেয়েছে, প্রসস্থতা বৃদ্ধি পেয়েছে। সহজ উপায়ে অধিক মুনাফা লাভের উদ্দেশ্যে উচ্চ আদালতে তথ্য গোপন করে মিথ্যা তথ্য উপস্থাপনের মাধ্যমে মুনাফালোভী ইজারাদার চক্র ইজারা গ্রহণের মাধ্যমে অথবা মেয়াদ বৃদ্ধির মাধ্যমে মহাল গুলোতে পরিচালনা করছে তাদের অবৈধ কর্মকান্ড। সম্প্রতি মহাল এলাকায় যে হারে নদীর তীর ধ্বসে পড়েছে, এই অবস্থায় অব্যাহত থাকলে মহালের চারপাশে কোন জনপদ অদুর ভবিষ্যতে থাকবে কি না সন্দেহ আছে ! এ ব্যাপারে সভা-সমাবেশ বিক্ষোভ মিছিল হয়েছে অগনিত। আবেদন-নিবেদন হয়েছে অসংখ্য। শ্রমিক অসন্তোষ ও ক্ষোভের কারণে মাঝে মধ্যে দায়সারা কিছু অভিযান পরিচালনা করলেও দিন দিন ড্রেজার/খনন যন্ত্রের ব্যাপকতা চরম আকার ধারণ করেছে। এতে করে এলাকার হাজার হাজার দরিদ্র মানুষজন কর্মহীন হয়ে পড়ছে। যাদুকাটা নদীতে কয়লা ও বারকি শ্রমিকদের কর্মসংস্থান সৃষ্টির জোর দাবি জানান।
প্রেস বিজ্ঞপ্তি