পরিযায়ী পাখি সংরক্ষণ করতে হবে

স্টাফ রিপোর্টার
বিশ্ব পরিযায়ি পাখি দিবস উপলক্ষে সুনামগঞ্জে র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০ টায় শহীদ আবুল হোসেন মিলনায়তন চত্বর থেকে র‌্যালি বের হয়। র‌্যালিটি শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুনরায় শহীদ আবুল হোসেন মিলনায়তনে এসে আলোচনা সভায় মিলিত হয়।
আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন- সিলেট বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আর এস এম মুনিরুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন প্রাণিবিজ্ঞান সমিতির সাধারণ সম্পাদক ড. তপন কুমার দে। প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন- সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. সাবিরুল ইসলাম, বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন পুলিশ সুপার মো. বরকতুল্লাহ্ খান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের প্রফেসর ড. মো. নিয়ামুল নাসের, শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের জিন প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিভাগের প্রফেসর ড. মো. ফারুক মিয়া, জেলা উদীচীর সভাপতি শীলা রায়, জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা বেলাল হোসেন প্রমুখ।
বক্তারা বলেন- দেশের হাওর ও চরাঞ্চলে শীতের অতিথি পাখি দেখার জন্য হাজার হাজার দেশি-বিদেশী পর্যটকের আগমন ঘটে। পরিবেশ ও পর্যটনকে উৎসাহিত করার জন্য পরিযায়ী পাখি ও আবাসস্থল সংরক্ষণ করা প্রয়োজন। দেশের দ্বিতীয় রামসার সাইট টাঙ্গুয়ার হাওরসহ হাজারো জলাভূমি রয়েছে সুনামগঞ্জ জেলায়। এগুলো পাখির অভয়াশ্রম। এই অভয়াশ্রমগুলোতে আসা পাখিদের সংরক্ষণ করতে হবে। বাংলাদেশে পাখি মারার সঠিক তথ্য ও উপাত্ত জানা না গেলেও প্রতিদিন সারাদেশে বিভিন্ন জাতের পাখি শিকার, পাচার ও নিধনের হার বাড়ছে। এই অবস্থা চলতে থাকলে অনেক প্রজাতির পাখি বিলুপ্ত ও বিপন্ন হয়ে যাবে।’
বক্তারা বলেন,‘নিজ নিজ অবস্থান থেকে স্থানীয় ও পরিযায়ী পাখিদের সংরক্ষণের গুরুত্ব সমাজের সর্বস্তরের মানুষের কাছে ছড়িয়ে দিতে হবে। প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষায় পরিযায়ী পাখির ইতিবাচক ভূমিকা সম্পর্কে বিজ্ঞানি ও পরিবেশবিদসহ সকলকে সোচ্চার হতে হবে।’