পাটলাই নদীতে চাঁদাবাজিতে ব্যবহৃত নৌকা আটক করেছে পুলিশ

স্টাফ রিপোর্টার, তাহিরপুর
তাহিরপুরের পাটলাই নদীতে নৌকায় চাঁদাবাজি করার সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে চাঁদা আদায়ে ব্যবহৃত নৌকা ফেলে চাঁদাবাজরা পালিয়ে গেছে। শনিবার বেলা ১১টায় উপজেলার শ্রীপুর দক্ষিণ ইউনিয়নের সুলেমানপুর বাজার সম্মুখ দিয়ে বয়ে যাওয়া পাটলাই নদীতে এ ঘটনা ঘটেছে।
ঘটনাস্থলে থাকা তাহিরপুর থানার এসআই হুমায়ুন কবীর ও এলাকাবাসী জানান, গত কয়েকদিন ধরে উপজেলার সুলেমানপুর গ্রামের পাবেল, রুবেল, তালহা, হাবিব, লোহাচুরা গ্রামের মনছুর ও মাহতাবপুর গ্রামের হোসেন মিয়া সহ সংঘবদ্ধ চাঁদাবাজ দলটি কয়লা ও চুনাপাথারবাহী নৌকার মাঝিদের মারধর করে অবৈধভাবে চাঁদা আদায় করে আসছিল। এমন সংবাদের প্রেক্ষিতে তাহিরপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে চাঁদাবাজদের ধাওয়া করলে তারা নদীতে নৌকা ফেলে সাঁতরে ও দৌঁড়ে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়।
চাঁদা আদায়ে ব্যবহৃত ফেলে যাওয়া ইঞ্জিন চালিত নৌকাটি জব্দ করে তাহিরপুর থানা হেফাজতে নিয়ে আসা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তাহিরপুর থানার এসআই হুমায়ুন কবীর।
চাঁদাবাজরা প্রতি মালবাহি স্টিলবডি নৌকা থেকে ২ হাজার টাকা এবং বাল্কহেড নৌকা থেকে ৫ হাজার টাকা করে টাকা আদায় করে আসছিল।
কিশোরগঞ্জ জেলার ইটনা থানার আল্লার দান নৌকার মাঝি হীরা মিয়া জানান, আমরা অনেক দিন ধরে পাটলাই নদী দিয়ে কয়লা, চুনাপাথর দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পরিবহন করে থাকি। পাটলাই নদীতে কখনো কোন সময়ে কাউকে চাঁদা দেইনি। সম্প্রতি সংঘবদ্ধ চাঁদাবাজ দলটি জোড় করে চাাঁদা আদায় শুরু করেছে। চাঁদা দিতে না পারলে তারা আমাদের শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে । এমনকি নৌকা থেকে তারা থালাবাসন পর্যন্ত নিয়ে যায়।
তাহিরপুর কয়লা আমদানীকারক সমিতির কোষাধ্যক্ষ হাজি জাহের আলী বলেন,পাটলাই নদীতে নৌ চাঁদাবাজদের অত্যাচারে ব্যবসায়ীরা কয়লা চুনাপাথর পরিবহনে অতিষ্ট হয়ে পড়েছে। এভাবে পুলিশের অভিযান চলমান থাকলে চাঁদাবাজরা নিয়ন্ত্রণে আসবে।