পাম্পে নেই অকটেন পেট্রল, ভোগান্তিতে মানুষ

লিপসন আহমেদ
সুনামগঞ্জের পাম্পগুলোতে পেট্রল—অকটেন সংকট দেখা দিয়েছে। এতে মোটরসাইকেল চালক সহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ পড়েছেন চরম বিপাকে। শনিবার রাত থেকে পাম্পে গিয়ে পেট্রল—অকটেন না পেয়ে ফিরে আসতে হয়েছে চালকদের।
জানা যায়, হওরাঞ্চল হওয়ায় জেলার বিভিন্ন উপজেলায় দ্রুত পৌঁছানোর জন্য প্রধান বাহন মোটরসাইকেল। কিন্তু শনিবার রাত থেকে সব পাম্পে অকটেন ও পেট্রোল বিক্রি বন্ধ রয়েছে। পাম্পে পাওয়া যাচ্ছে শুধু ডিজেল। এদিকে অকটেন ও পেট্রোল বিক্রি বন্ধ থাকায় মোটরসাইকেল ও গাড়ি চলাচল বন্ধ রয়েছে। তবে কর্তৃপক্ষ বলছে, পর্যাপ্ত তেল নেই। তেল আসছে, তেল আসলেই সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।
মোটরসাইকেল চালক শাহিন মিয়া বলেন, মোটরসাইকেল চালিয়ে কোন রকম সংসার চালাই। সেই সকাল থেকে পাম্পে এসে বসে আছি, কিন্তু পাম্প কতৃর্পক্ষ তেল নেই বলে জানিয়ে দিয়েছে।
মোটরসাইকেল চালক আবু হোসেন বলেন, এক কিলোমিটার পথ মোটরসাইকেল হাঁটিয়ে নিয়ে পাম্পে এসেছি। এসে দেখি পাম্পে তেল নেই। এখন কি আর করার পাম্পের সামনেই গাড়ি নিয়ে বসে আছি।
মোটরসাইকেল চালক জিল্লুর মিয়া বলেন, গতকাল (শনিবার) রাতে পাম্পে এসেছিলাম তেল নিতে, এসে দেখি তেল নেই। পরে গাড়ি পাম্পে রেখে হেঁটে হেঁটে বাসায় ফিরেছি। আজকে সকালেও এসে দেখি তেল বিক্রি কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে।
তাহিরপুরের বাসিন্দা জাহিদ মিয়া বলেন, দেশে এসব কি শুরু হলো। একের পর এক সমস্যা লেগেই আছে। বাজার নিয়ন্ত্রণ করার মত কি কেউ নেই।
বিশ্বম্ভরপুরের বাসিন্দা ইমন মিয়া বলেন, সিলেটে বেড়াতে গিয়েছিলাম। সকালে ফোন আসে বাবা খুব অসুস্থ। পরে সিলেট থেকে সুনামগঞ্জে আসি। কিন্তু সুনামগঞ্জে এসে মোটরসাইকেল দ্রুত যেতে বিশ্বম্ভরপুরে চাইলে, চালকরা তেল নেই বলে মোটরসাইকেল চলাচল বন্ধ রয়েছে বলে জানান। বাধ্য হয়ে এখন একঘন্টা বসে থেকে সিনএনজি দিয়ে যেতে হচ্ছে।
জানা যায়, শনিবার রাত থেকে তেল সংকটের কারণ দেখিয়ে তেল পাম্পে অকটেন ও পেট্রল বিক্রি বন্ধ করে রেখেছেন ব্যবসায়ীরা। সিনথিয়া সিএনজি রিফুয়েলিং এন্ড কনভার্সন স্টেশন ম্যানেজার মো. আলামিন মিয়া বলেন, পাম্পে তেল সংকট দেখা দিয়েছে। পর্যাপ্ত তেল নেই, সারা দেশেই একই সমস্যা। তেল আসছে, তেল আসলেই সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।