পৃথক আয়োজনে আ.লীগের শোক দিবস পালন, শোকর‌্যালি নিয়ে উত্তেজনা

স্টাফ রিপোর্টার
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শোক দিবস উপলক্ষে সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের বিবদমান দুই গ্রæপের পৃথক পৃথক শোকর‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
একই সময়ে শোকর‌্যালি বের হলে শহরের ডিএস রোডে দুই গ্রæপের নেতাকর্মীদের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। পরে দলীয় জ্যেষ্ঠ নেতৃবৃন্দ ও পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।
বৃহস্পতিবার দুপুর পৌণে ১ টায় একই সময়ে জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি নুরুল হুদা মুকুটের নেতৃত্বে রমিজ বিপণির কার্যালয় থেকে এবং সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমনের নেতৃত্বে শহীদ আবুল হোসেন মিলনায়তন থেকে পৃথক পৃথক র‌্যালি বের হয়। দুটি শোকর‌্যালি ডিএস রোডের সদর থানার সামনে মুখোমুখি হলে উত্তেজনা দেখা দেয়। এসময় দৌড়াদৌড়ি শুরু হয়। এক পর্যায়ে দলীয় জ্যেষ্ঠ নেতৃবৃন্দ ও পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।
এর আগে দুপুর সাড়ে ১২ টায় শহীদ আবুল হোসেন মিলনায়তনে জেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে শোক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সংগঠনের জেলা কমিটির সহ সভাপতি অ্যাড. আপ্তাব উদ্দিনের সভাপতিত্বে শোকসভায় বক্তব্য রাখেন, সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমন, সহ সভাপতি অ্যাড. শফিকুল আলম, যুগ্ম সম্পাদক নান্টু রায় ও হায়দার চৌধুরী লিটন, সাংগঠনিক সম্পাদক সিরাজুর রহমান সিরাজ, দলীয় নেতা দেওয়ান ইমদাদ রেজা চৌধুরী, রফিকুল হাসান চৌধুরী, ইশতিয়াক শামীম, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোবারক হোসেন, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মলয় চক্রবর্তী রাজু, জেলা ছাত্র লীগের সাবেক সভাপতি অ্যাড. আক্তারুজ্জামান সেলিম প্রমুখ।
বৃহস্পতিবার দুপুরে শহরের রমিজ বিপণিস্থ কার্যালয়ে জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নুরুল হুদা মুকুটের সভাপতিত্বে শোকসভায় বক্তব্য রাখেন, আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাড. মতিউর রহমান পীর, আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. আব্দুল করিম, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল কালাম, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শংকর চন্দ্র দাস, শিক্ষা ও মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক শীতেস তালুকদার মঞ্জু, শ্রম বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. আজাদুল ইসলাম রতন, জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক খন্দকার মঞ্জুর আলম, জেলা যুবলীগের সদস্য ও সাবেক ভারপ্রাপ্ত মেয়র নুরুল ইসলাম বজলু, জেলা যুবলীগের সদস্য সবুজ কান্তি দাস, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক জুবের আহমদ অপু, জেলা ছাত্র লীগের সভাপতি দীপংকর কান্তি দে প্রমুখ।