‘পেটও দানা না দিয়া ভোট দেওয়াত আইছি’

বিশেষ প্রতিনিধি
সকাল ৭ টার সময় ভোটও আইছি, লম্বা লাইন, রইদের (রৌদ্রের) মাঝে কারাইয়া (দাঁড়িয়ে) আছি, পেটও দানা পিনা না দিয়া আইছি, ইতার লাগি মাথায় আন্দাইর করিলিছে, মাথা ঘুরাইয়া পড়ছিলাম, অখন ভোট দিয়া শান্তি পাইছি।
বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২ টায় দোয়ারাবাজারের মান্নারগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোটের দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে থাকা রোজভিনা বেগম (৫৫) এভাবেই ভোট দেবার আগ্রহের কথা বলছিলেন।
কেবল রোজভিনা বেগমই নয়। দোয়ারাবাজারের মান্নারগাঁও ইউনিয়নের মান্নারগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র ও হাজারীগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে নারী ভোটারদের দীর্ঘ লাইন দেখা গেছে।
হাজারীগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে বেলা সাড়ে ১১ টায় ধনপুর-বনারগাঁওবাসীর বুথে একশ’এর বেশি মহিলা ছিলেন লাইনে। সকাল ৮ টায় ভোট দিতে এসেছিলেন হাসিয়া বেগম।
৫৫ বছর বয়সী হাসিয়া বেগম বললেন, আমার চেয়েও বয়স্ক ভোটার লাইনে ছিলেন, তাদেরকে সুযোগ দিতে দিতে এখনো পর্যন্ত লাইনেই আছি।
এবারই প্রথম ভোট দিতে লাইনে দাঁড়িয়েছেন ধনপুরের সুমি বেগম।
হাসতে হাসতে সুমি বললো, প্রথম ভোট দিতে এসেছি, মহিলাদের লাইন স্কুলচত্বর ছাড়িয়ে সড়কে ওঠে গেছে, আগে আসলে আগে পাবেন’এর মতো অবস্থা হয়েছে, আমি যেখানে আছি, সেখান থেকে সামনে যেতে পারছি না, অনেক বয়স্করাও ভোট দিতে আসছেন, এজন্য তাদের আগে সুযোগ দিতে হচ্ছে।


যোগিরগাঁওয়ের নাভিনা আক্তার বৃষ্টিও এবারাই প্রথম ভোটার। বললো, আম্মাকে নিয়ে এসেছি, লাইনে অপেক্ষা করতে করতে আম্মার মাথা ঘুরাচ্ছে।
লাভিনার মা হোসনে আরা বেগম বললেন, ‘কতবার গেছইন মেম্বার চেয়ারম্যান অখল, ভোট দিয়া না গেলে তারার মন খারাপ অইবো, মেয়েটাও এইবার নয়া ভোট দিতো, এর লাগি ধৈর্য্য ধইরা লাইনে আছি।’
ভোট কর্মী (আনসার-ভিডিপি সদস্য) অভয় রানী সুত্রধর বললেন, শৃঙ্খলা রক্ষার জন্য এই কেন্দ্রে আমাদের কিছুই করতে হচ্ছে না, বয়স্কদের আগে ভোট দেবার সুযোগ দিচ্ছেন তারা নিজেরাই।
এই কেন্দ্রের সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার ফারুক আহমদ বললেন, নারী ভোটারদের উপস্থিতি পুরুষ ভোটারের চেয়ে বেশি। এছাড়া বয়স্ক মহিলারা ভোট দিতে সময় বেশি নেন, যাকে ভোট দেবেন তার মার্কা কি এটিও কেউ কেউ আমাদের জিজ্ঞেস করেন, এ কারণে ভোট গ্রহণে সময় বেশি লাগে।
হাজারীগাঁও কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার নৃপেন্দ্র কুমার দাস বললেন, ৭ টি বুথের মধ্যে বড় তিনটি বুথ মহিলাদের জন্য আলাদা করা হয়েছে। মহিলা ভোটার বেশি থাকায় ভিড় বেশি হচ্ছে।