পোড়খাওয়া

রোকেস লেইস
‘এতো যে মানুষ
মানুষ কোথায় সবগুলা চোর’
ঘাম ঝরানো শ্রমক্লান্তের পোড়খাওয়া আক্ষেপ।

শৌর্য শিশুরা সাদা আর কালো থরে থরে সাজাতে যখন
ব্যস্ত ভীষণ। কখনো, না-করা কর্মটিও করে যাচ্ছে
অতি নিপুণতায় যেনো কতো যুগ থেকে বাপ দাদাদের
তাবৎ ব্যর্থতার হিসাব মিটিয়ে দেয়ার দায়ভার আজ
শুধুই কচিকাঁচাদের। যখন আগামী সম্ভাবনার
প্রতিচ্ছবি, প্রতিরূপে স্বস্তি আর আশ্বস্ততার সুবাতাস
কেটে যাবে কালো মেঘ দুঃসহ যতো অনাচার।

তখনি ঘৃন্য পৈশাচিকতায় কেলিয়ে কদর্য দন্ত নখর
লোলুপ লোভাতুর শ্বাপদেরা হামলে পড়ে
পৌরাণিক অসুরবৃত্তির আদলে খুবলে নিতে সবটুকু
প্রাপ্তি , আঁতুড় ঘরেই তৎপর হয় মৃত্যু ঘটাতে
ভ্রুণের সম্ভাবনার। স্বার্থের নোংরা অহমিকায় এক হয়
সকল পরজীবী তল্পিবাহক কায়েমী স্বার্থশিকারী।

রাজ পথের কালো পিচে প্যাডেল ঘুরানো
জীবনের প্রয়োজনে; দেখে শিখে খাঁটি হয়ে উঠা
জহুরী চোখ, দেখে আর শিখে
চেতনার গভীর থেকে অনায়াস বলে উঠে

‘এতো যে মানুষ
মানুষ কোথায় সবগুলা চোর’
ঘাম ঝরানো শ্রমক্লান্তের পোড়খাওয়া আক্ষেপ।
০৫০৮১৮