ফসলরক্ষায় সরকার খুবই আন্তরিক

স্টাফ রিপোর্টার
হাওরের বোরো ফসলরক্ষা বাঁধ নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করেছেন সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. বরকতুল্লাহ খান। কাবিটা প্রকল্প বাস্তবায়ন ও মনিটরিং জেলা কমিটির সদস্য হিসেবে তিনি মঙ্গলবার দিনভর জেলার সদর, বিশ্বম্ভরপুর ও তাহিরপুর উপজেলার বিভিন্ন বাঁধ পরিদর্শন করেন। বাঁধ পরিদর্শনকালে পুলিশ সুপার পিআইসির সভাপতি ও স্থানীয় কৃষকদের সাথে নানা বিষয়ে কথা বলেন।
বাঁধ পরিদর্শনকালে পুলিশ সুপার মো. বরকতুল্লাহ খান বলেছেন,‘ সুনামগঞ্জের হাওরের বোরো ফসলরক্ষায় বর্তমান সরকার খুবই আন্তরিক। হাওরের বাঁধ নির্মাণে প্রয়োজনীয় বরাদ্দ প্রদান করা হয়েছে এবং বাঁধের কাজ অন্য বছরের তুলনায় ভাল হয়েছে। গত বছরের চেয়ে চলতি মওসুমে ধানের ফলন ভাল হয়েছে। কিছু কিছু জায়গায় ধান কাটা শুরু হয়েছে। তবে হাওরের বোরো ধান কাটা শেষ না হওয়া পর্যন্ত বাঁধগুলোর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে কৃষকসহ হাওরপাড়ের সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে।’
পুলিশ সুপার আরও বলেন,‘ অন্যান্য বছরের তুলনায় এ বছর হাওর রক্ষা বাঁধ অনেক টেকসই ও মজবুত হয়েছে। কিছু কিছু জায়গায় কাজে সামান্য ত্রুটি ছিল, জেলা ও উপজেলা কমিটির কঠোর নজরদারীতে বাঁধগুলো অনেক ভাল হয়েছে। আমি আশাবাদী এবার কৃষকের গোলা সোনালী ধানে ভরে উঠবে।
পুলিশ সুপার প্রথমে বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার হালিরহাওর, বিশ্বম্ভরপুর ও তাহিরপুর উপজেলার শনির হাওরের বেশ কয়েকটি বাঁধের কাজ পরিদর্শন করেন। পরে বিকালে তিনি সদর ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার দেখার হাওরের বাঁধ, দক্ষিণ সুনামগঞ্জের কাচি ভাঙা ও কাই হাওরের বাঁধ পরিদর্শন করেন।
বিশ্বম্ভরপুরে বাঁধ পরিদর্শনকালে পুলিশ সুপারের সাথে উপস্থিত ছিলেন সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার মাহবুবুর রহমান, ডিওআই ওয়ান
আনোয়ার হোসেন মৃধা, ডিআইও-টু আব্দুল লতিফ তফরদার, বিশ্বম্ভরপুর থানার ওসি মোল্লা মনির হোসেন, ডিবির ওসি কাজী মোক্তাদির হোসেন, ফতেপুর ইউপি চেয়ারম্যান রনজিৎ চৌধুরী রাজন।
এদিকে বিকালে সদর ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জের বাঁধ পরিদর্শন করেন তিনি। বাঁধ পরিদর্শনকালে উপস্থিত ছিলেন দক্ষিণ সুনামগঞ্জের উপজেলা নির্বাহী অফিসার হারুন অর রশিদ, থানার ওসি ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী, পশ্চিম পাগলা ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল হক, কাবিটা প্রকল্প বাস্তবায়ন ও মনিটরিং উপজেলা কমিটির সদস্য মুক্তিযোদ্ধা আতাউর রহমান, দিলীপ কুমার তালুকদার, প্রভাষক নূর হোসেন প্রমুখ।



আরো খবর