বজ্রপাতে এইচএসসি পরীক্ষার্থীসহ প্রাণ গেল ২ জনের

স্টাফ রিপোর্টার
এইচএসসি পরীক্ষা শেষ করা হলো না সদর উপজেলার ইসলামগঞ্জ কলেজের শিক্ষার্থী একা’র। শনিবার দুপুরে বাড়ির সামনের খলায় (ধান মাড়াইয়ের স্থান) বজ্রপাতে মৃত্যু হলো তার। একই ঘটনায় কৃষি শ্রমিক এখলাছুর রহমানের (৫৫) মৃত্যু ঘটেছে। সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার গৌরারং ইউনিয়নের ভাটি সাফেলা গ্রামের রাধিকা রঞ্জন দাসের মেয়ে নিহত এইচএসসি পরীক্ষার্থী একা। ইসলামগঞ্জ ডিগ্রী কলেজ থেকে এবার এইচ.এস.সি পরীক্ষা দিচ্ছিল সে। ইতোমধ্যে ১৩টি বিষয়ের পরীক্ষার মধ্যে ১১টি পরীক্ষা দিয়েছে সে। একা’র মৃত্যুর ঘটনায় এলাকার শিক্ষার্থী অভিভাবকসহ সকলের মধ্যেই শোকের ছায়া নেমে এসেছে।
ভাটি সাফেলা গ্রামের অসুস্থ গৃহস্থ রাধিকা রঞ্জন দাসের ৩ ছেলে ও ৩ মেয়ে। ৩ ছেলেই প্রবাসে রয়েছেন। শনিবার দুপুরে বাড়ির সামনের খলায় শ্রমিকরা ধান মাড়াইয়ের কাজ করছিলেন। এসময় ঝড়ো হাওয়া ও বৃষ্টি শুরু হলে একাও সহযোগিতার জন্য এগিয়ে যান । কিছুক্ষণের মধ্যেই বজ্রপাত ঘটলে একা রানী দাস ঘটনাস্থলেই মারা যান। গুরুতর আহত কৃষি শ্রমিক এখলাছুল রহমানকে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে আনার সময় পথেই মৃত্যু ঘটে। এখলাছুর রহমান একাদের বাড়িতে কৃষি শ্রমিকের কাজ করেন।
ইসলামগঞ্জ ডিগ্রি কলেজের বাংলা বিভাগের প্রভাষক ফজলুল হক দোলন বলেন,‘একা এইচ.এস.সি পরীক্ষা দিচ্ছিল। ১৩ টি পরীক্ষার মধ্যে ১১ টি পরীক্ষা দিয়েছিল সে। কিন্তু শেষ দুটি পরীক্ষা দেয়া হল না তার। একার মৃত্যুতে পুরো এলাকার শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা শোকাহত।’
সদর থানার ওসি শহীদুল্লাহ্ বজ্রপাতে দুজনের মৃত্যু সংবাদ জানিয়ে বলেন,‘ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।’