বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে ধর্ষণ বিরোধী শপথ পাঠ

স্টাফ রিপোর্টার
জেলা প্রশাসন, জেলা উদীচীসহ নানা সংগঠনের বর্ণাঢ্য আয়োজনে সুনামগঞ্জে বাংলা নববর্ষ উদযাপন হয়েছে। উদীচীর দিনভর বর্ষবরণ আয়োজনের শুরুতেই হাজারো দর্শক-শ্রোতা ধর্ষণ বিরোধী শপথ বাক্য পাঠ করেছেন।
নতুন বছরের সকালেই জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে থেকে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের হয়। শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে শোভাযাত্রা স্টেডিয়াম মাঠে গিয়ে শেষ হয়। শোভাযাত্রায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সুনামগঞ্জ- মৌলভীবাজারের সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট শামছুন নাহার বেগম শাহানা, জেলা প্রশাসক মো. সাবিরুল ইসলাম, পুলিশ সুপার বরকতুল্লাহ্ খান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন, জেলা রেড ক্রিসেন্টর সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মতিউর রহমান পীর, জেলা শিল্পকলা একাডেমীর সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শামছুল আবেদীন প্রমুখ। মঙ্গল শোভাযাত্রা শেষে স্টেডিয়ামে সাপের খেলা অনুষ্ঠিত হয়।
সকাল ১০ টা ১ মিনিটে প্রতিবছরের মতো এবারও শহরের ঐতিহ্য যাদুঘর প্রাঙ্গণে শুরু হয় জেলা উদীচীর বর্ষবরণ অনুষ্ঠান। দিনভর এই আয়োজনের শুরুতেই প্রতীকী বেদিতে ২০০১ সালে রমনার বটমূলে বোমা বিস্ফোরণে নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো এবং ১ মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। পরে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন শতবর্ষী বাউল সাধক ফকির মকরম শাহ্।
জেলা উদীচীর সভাপতি শীলা রায়’র সভাপতিত্বে ও জেলা উদীচীর সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম’এর সঞ্চালনায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আলোচনায় অংশ নেন- সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট শামছুন নাহার বেগম শাহানা, জেলা প্রশাসক মো. সাবিরুল ইসলাম, জেলা মহিলা সংস্থার সভাপতি লুবনা আফরোজ, জেলা পরিষদ সদস্য ফৌজিআরা বেগম শাম্মী, মুক্তিযোদ্ধা আলী আমজাদ, মহিলা পরিষদ’র সভাপতি গৌরী ভট্টাচার্য, জেলা শিল্পকলা একাডেমীর সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শামছুল আবেদীন, সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান নিগার সুলতানা কেয়া, জেলা উদীচীর সহসভাপতি রমেন্দ্র কুমার দে মিন্টু, সঞ্চিতা চৌধুরী, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হাসিম প্রমুখ।
আলোচনা শেষে উপস্থিত হাজারো দর্শক শ্রোতা এবং উদীচীর কর্মী সমর্থকদের ধর্ষণ, নারী নির্যাতন ও যৌন নিপীড়ন বিরোধী শপথ বাক্য পাঠ করান জেলা প্রশাসক মো. সাবিরুল ইসলাম।
এই অনুষ্ঠান মঞ্চে বর্ষবরণের সঙ্গিতানুষ্ঠানের পাশাপাশি লোকজ ঐতিহ্য সামগ্রী প্রদর্শন, যেমন খুশী তেমন সাজাসহ নানা আয়োজন উপভোগ করেছেন দর্শকরা।
এছাড়া লোকদল শিল্পী গোষ্ঠী, সরকারী এসসি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, পৌর কলেজসহ বিভিন্ন সংগঠন ও প্রতিষ্ঠানের উদ্যোগে বর্ষবরণ অনুষ্ঠান হয়েছে।



আরো খবর