বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতাকে এগিয়ে নেওয়ার প্রত্যয়

সজীব দে, আকরাম উদ্দিন, আসাদ মনি, আল আমিন
বিকেল সাড়ে চারটার সময় অনুষ্ঠান শুরুর কথা ছিল। তার আগেই অনুষ্ঠানস্থল পরিপূর্ণ। রাজনীতিবিদ, শিক্ষাবিদ, আইনজীবী, মুক্তিযোদ্ধা, জনপ্রতিনিধিসহ বিশিষ্টজন এবং সাধারণ পাঠক-শুভানুধ্যায়ীদের আন্তরিক উপস্থিতিতে জাতীয় সংগীত পরিবেশনার মধ্য দিয়ে শুরু হয় অনুষ্ঠান। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি ছিল মঞ্চে। সবাই এক মিনিট নিরবতা পালন করেন জাতির জনক স্মরণে। এরপর প্রতিকৃতিতে ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন।
দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর-এর সপ্তম বর্ষপূর্তির বর্ণিল আয়োজনের শুরুটা ছিল এ রকম। জেলা শিল্পকলা একাডেমির হাসন রাজা মিলনায়তনে শুক্রবার বিকেলে এ অনুষ্ঠান হয়। একটানা প্রায় তিন ঘন্টার এ অনুষ্ঠান অক্ষরিক অর্থেই সুধিজনদের সম্মিলনে রূপ নেয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।
দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের উপদেষ্টা সম্পাদক অ্যাড. বজলুল মজিদ চৌধুরী খসরুর সভাপতিত্বে সুধী সমাবেশে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন, সুনামগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ্, সুনামগঞ্জ-সিলেট সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য অ্যাড. শামীমা শাহরিয়ার, বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ সাদিক, ভারতীয় হাই কমিশনের সহকারী হাই কমিশনার এল কৃষ্ণমূর্তি, সুনামগঞ্জ জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল হুদা মুকুট, পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক হারুন অর রশীদ, সুনামগঞ্জ পৌরসভার মেয়র নাদের বখত, সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. নাজিয়া চৌধুরী।
স্বাগত বক্তৃতা দেন, দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের সম্পাদক ও প্রকাশক পঙ্কজ কান্তি দে। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের সহকারী সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম।
তিনটি বিশেষ পর্ব সঞ্চালনা করেন অ্যাড. এনাম আহমেদ, প্রথম আলোর নিজস্ব প্রতিবেদক খলিল রহমান ও চ্যানেল টুয়েন্টিফোরের জেলা প্রতিনিধি এ আর জুয়েল। আলোচনা সভা শেষে জেলার ৫জন শিক্ষা সংগ্রামীদের মধ্যে শিক্ষা সহায়তা প্রদান, মুক্তিযোদ্ধা মালু মিয়াকে প্রয়াত যুবনেতা মইনুদ্দিন জালাল স্মৃতিপদক এবং দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের বর্ষসেরা প্রতিনিধির আশিক মিয়ার হাতে পুরস্কার তুলে দেন অতিথিরা।
সর্বক্ষেত্রে অকৃত্রিম ভালোবাসা নিয়ে
কাজ করতে হবে : পরিকল্পনামন্ত্রী
প্রধান অতিথির বক্তৃতায় পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান এমপি বলেছেন, প্রতিটি শিশু তার মানসিক বিকাশের প্রাথমিক পর্যায়ে তার পরিবার তথা সমাজে মূল্যবোধ ও আদর্শ ইত্যাদি শেখে। পরবর্তীতে নিজস্ব সংস্কৃতি লালন করার পাশাপাশি বিশ্বের অপরাপর সমাজ-সংস্কৃতি-সভ্যতার অন্তর্নিহিত বোধ অর্জন করতে পারে। আমাদের ভাষা-সংস্কৃতি-ঐতিহ্য বিকৃত হয় এমন কিছু করা যাবে না। এসব ব্যাপারে মমত্ব থাকতে হবে। সর্বক্ষেত্রে বাংলাদেশের জন্য অকৃত্রিম ভালোবাসা ও আনন্দ নিয়ে কাজ করতে হবে। নইলে ভাষা, ঐতিহ্য-সংস্কৃতি এবং বাঙালিকে রক্ষা করা যাবে না। আমাদের হাতেই বাংলাকে রক্ষা করার গুরুদায়িত্ব। এই গুরুদায়িত্ব আমাদের নিষ্ঠার সাথে পালন করতে হবে।
এমএ মান্নান বলেন, দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের প্রতিটি বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠানে আমি এসেছি। নিজের কাছে আমি এটিকে সৌভাগ্যের বিষয় মনে করছি। তিনি বলেন, জাতীয় জীবনে সাংবাদিকরা বিশাল দায়িত্ব পালন করছেন। সংবাদপত্র ও ম্যাগাজিন স্বাধীনভাবে দায়িত্ব পালন করছে। তবে অনলাইনে যেসব খবর ছাপা হয়, সেটি ভয়ংকর। এটি নিয়ে দেশে-বিদেশে চিন্তা ভাবনা চলছে।
সারা দেশে উন্নয়নের কর্মযজ্ঞ
চলছে : পীর মিসবাহ
জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় হুইপ ও সুনামগঞ্জ সদর-বিশ্বম্ভরপুর আসনের সংসদ সদস্য অ্যাড. পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ বলেছেন, সিলেট-সুনামগঞ্জ সড়কে ১৪০ কোটি টাকার উন্নয়নের কাজ চলছে। আমি মাননীয় মন্ত্রী মহোদয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলতে চাই কাজ দ্রুত গতিতে করতে আপনার হস্তক্ষেপ কামনা করি আমরা।
তিনি বলেন, আমার নির্বাচনী এলাকা বিশ্বম্ভরপুরের দুটি উচ্চ বিদ্যালয়কে সরকরিকরণ করা হয়েছে। উন্নয়নের কাজ চলছে। শত শত কোটি টাকার রাস্তার কাজ হয়েছে। পৌর কলেজ নির্মাণ হচ্ছে, ইসলামগঞ্জ কলেজের কাজ চলছে। আমার নির্বাচনী এলাকায় ৯০ শতাংশ বিদ্যুতায়নের কাজ সম্পন্ন হয়েছে।
তিনি বলেন, গত ১০ বছর ধরে সারা দেশে উন্নয়নের কর্মযজ্ঞ চলছে। আমাদের সুনামগঞ্জও এর বাইরে নয়।
তিনি বলেন, মুক্তিযোদ্ধা মতিউর রহমানের বাসার সামনের সড়ক মেরামতের জন্য প্রথমে ২৬ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছিল। কিন্তু কাজে অনিয়মের কারণে এটা টেকসই হয়নি। সম্প্রতি আমি প্রায় কোটি টাকা ব্যয়ে এই সড়ক ও নদীর কাজ শুরু করেছি।
তিনি বলেন, আমরা আশাবাদী ছাতক-সুনামগঞ্জের মধ্যে রেল যোগাযোগ এই সরকারের সময়েই চালু হবে। জগন্নাথপুর-রানীগঞ্জ-আউশকান্দি সেতুর কাজ চলছে। এটি নির্মিত হলে ঢাকার সাথে যোগাযোগ সময় প্রায় ২ ঘন্টা কমে আসবে।
পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নানের দৃষ্টি আকর্ষণ করে তিনি বলেন, সম্প্রতি আমার জাতীয় সংসদে দেয়া বক্তব্যের প্রেক্ষিতে শহরের সরকারি জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয় এবং সরকারি সতীশ চন্দ্র বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে কিছু শিক্ষক পদায়ন করা হয়েছে। কিন্তু শুনতে পাচ্ছি শিক্ষকরা বদলি পরিবর্তন করতে চাচ্ছেন। এ ব্যাপারে আপনার সুদৃষ্টি কামনা করছি।
নদী খননের অনিয়মের বিষয় তুলে ধরে তিনি বলেন, সুনামগঞ্জে কোথায় নদী-খাল খনন করা হয় আমরা জানি না। এ ব্যাপারে আমি শামীমা শাহরিয়ারের বক্তব্যের সাথে একমত। আমরা শুধু জানি খননের জন্য কোটি কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। কিন্তু খনন করা মাটি কোথায় যায় জানি না। এ অবস্থা চলতে পারে না।
তিনি বলেন, আমাদেরকে সততার জায়গা থেকে যেন কেউ সরাতে না পারে। আমি দুর্নীতি করব না, কাউকে করতেও দেব না। সর্বক্ষেত্রে সততা বজায় রাখতে হবে। তিনি বলেন, সুনামগঞ্জের খবর পাঠকের হৃদয় জয় করে টিকে আছে। সাত বছর ধরে এর পথ চলা কখনো থেমে যায়নি। আমি এই পত্রিকার অগ্রগতি কামনা করি।
শেখ হাসিনা একজন গেরিলা
যোদ্ধা : ড. মোহাম্মদ সাদিক
বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশনের চেয়ারম্যান, কবি ও লেখক ড. মোহাম্মদ সাদিক বলেছেন, সুনামগঞ্জের এই শ্রেষ্ঠ সমাবেশে মানুষ কিছু শুনতে এসেছেন। যাতে প্রশান্তি নিয়ে বাড়িতে ফিরতে পারেন তাঁরা। মঞ্চের দিকে তাকালেই এটি বুঝা যায়। এমন একটি আয়োজন সুনামগঞ্জের খবরকে কেন্দ্র করে হওয়ায় খবরকে অভিনন্দিত করি। চলুন আমরা আজ বিভেদ ভুলে যাই, সকলে এক হই। কারণ আঞ্চলিক ইতিহাসই তৈরি করতে পারে বিশ্ব ইতিহাস। সারাবিশ্বের আঞ্চলিক পত্রিকাগুলোকে শুধু একদিন যদি একত্রিত করা হয়, তাহলেই ইতিহাস সৃষ্টি হবে। সেটা হবে বিশ্ব ইতিহাস। সে হিসাবে সুনামগঞ্জের খবর প্রতিনিয়ত সুনামগঞ্জের ইতিহাস সৃষ্টি করে চলছে।
দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের সপ্তম বর্ষপূর্তি ও অষ্টম বর্ষে পদার্পণ অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশনের চেয়ারম্যান, কবি, গবেষক ও লেখক ড. মোহাম্মদ সাদিক।
শুক্রবার শিল্পকলা একাডেমি’র হাছন রাজা মিলনায়তনে অনুষ্ঠানের তিনি আরও বলেন, এই মাসে আমরা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হারিয়েছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সেসময় দেশের বাইরে থাকার কারণে প্রাণে বেঁচে যান। তারই বলিষ্ঠ নেতৃত্বে বর্তমানে দেশবাসী জাতির জনকের স্বপ্ন পূরণে কাজ করছে। তিনি বলেন, সুভাষ বসু বলেছিলেন, ‘আমাকে রক্ত দাও, আমি তোমাকে স্বাধীনতা দিব’। আর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বলেছেন, রক্ত আরো দেব, বাংলাদেশকে মুক্ত করে ছাড়ব, ইনশাল্লাহ। কি অদ্ভুত মিল দু’জনের কথায়।
তিনি বলেন, পাখি হত্যা করলে যেখানে বিচার হয়, হরিণ হত্যার কারণে সুপারস্টার সালমানকে কারাবাস করতে হয়, সেখানে জাতির জনককে খুন করে বিচার করা যাবে না বলে ‘ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ’ নামে আইন করা হয়েছে। খুনিরা প্রকাশ্যে এসে সেসময় বক্তৃতা বিবৃতি দিয়েছে।
তিনি বলেন, বাংলাদেশ স্বাধীন না হলে দৈনিক সুনামগঞ্জের খবর আসত না। আমার কমিশন থাকত না।
তিনি বলেন, কন্যা সন্তান সমাজে ও বংশে বাতি জ্বালাতে পারে না, এটা ভুল ধারণা। আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একজন গেরিলা যোদ্ধা। তিনি দেখিয়ে দিয়েছেন। সমগ্র বিশ্বে আলো ছড়াচ্ছেন তিনি। ভারতের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধি দেখিয়েছিলেন। দেখিয়েছেন প্রাচীন জৈন্তাপুর রাজ্যের প্রমিলা। তিনি অর্জুনের অশ্বমেধ যজ্ঞের ঘোড়া আটকেছিলেন। বৌদ্ধ ধর্মে সুজাতার কারণে গৈাতম বৌদ্ধ বৌদ্ধত্ব লাভ করেছিলেন। তাঁর সাথে দেখা হওয়ার পূর্বে তিনি নির্বাণ লাভ করতে পারেন নি।
তিনি বলেন, সুনামগঞ্জের খবর নারীর প্রগ্রতিকে সাধুবাদ জানায়। উৎসাহিত করে। এজন্য সুনামগঞ্জের খবরকে আমরা অভিনন্দিত করি। সুনামগঞ্জের ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতিকে সুনামগঞ্জের খবর তুলে ধরে ইতিহাস সৃষ্টি করেছে।
তিনি বলেন, পত্রিকার সঙ্গে আমার একটা সম্পর্ক রয়েছে। উচ্চ মাধ্যমিক পড়ার সময় আমি সূর্যের দেশ পত্রিকায় কাজ করেছি। ‘বিন্দু বিন্দু রক্ত’ পত্রিকায় আমি কবিতা লিখেছি। প্রকাশও হয়েছে। কবিতা প্রকাশের আনন্দে নিজ হাতে পত্রিকা বিক্রিও করেছি।
তিনি বলেন, এই সুধী সমাবেশে মানুষ এসেছেন নিজেদের ভবিষ্যৎ জানতে। যোগাযোগের ক্ষেত্রে অসহনীয় সংকটে আছি আমরা। একজন সুস্থ মানুষ সুনামগঞ্জ থেকে সিলেটে গেলে কোমরে ব্যথা হয়ে যায়। তাকে ডাক্তারের কাছে যেতে হয়। তিনি বলেন পণাতীর্থ ও শাহ আরেফিনের (র:) এর ওরসে প্রতিবছর ১০ লাখ লোকের সমাবেশ হয়। কিন্তু দুঃখের বিষয় যোগাযোগের জন্য সড়ক মাত্র একটি। এতে অসহনীয় যানজট ও ভোগান্তির সৃষ্টি হয়। প্রতিবছর হয়ে আসছে। এই সমস্যা সমাধানে আমরা কি কোন চিন্তা করছি ? তিনি বলেন, বড় বড় লঞ্চ ও জাহাজ চলাচলের জন্য নদী খনন করতে হবে ব্যবস্থা করতে হবে। তাহলে সড়কের উপর অতিরিক্ত চাপ পড়বে না।
শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, শিক্ষার উদ্দেশ্যে ডিগ্রি নয়, আলোকিত করা নিজেকে এবং নিজের চারপাশকে। তোমাদেরকে অন্ধজনে আলো দেয়ার জন্য তৈরি হতে হবে। এখন আপনারা বলতে পারেন, আপনি কি করছেন? আমি দেখার হাওরের মাঝখানে যদি কোন ছেলে যোগ্য হয়, তবে সুপারিশ করি তাকে যেন নিয়োগ দেয়া হয়। নিজের ছেলের জন্য করি না। কারণ এটাই আমার কাজ। সাধারণ মানুষের কথা ভুলে গেলে চলবে না। কারণ দেশের ভিক্ষুকও ট্যাক্স দেয়। তার টাকায় সরকার চলে। যেখানে সুযোগ হবে সেখানেই সুনামগঞ্জের স্বার্থ-ঐতিহ্য-উন্নয়নের কথা বলতে হবে।
এসময় তিনি বাইপাস সড়ক, নেত্রকোনা-মোহনগঞ্জ সড়ক, ইমিগ্রেশনসহ ডলুরা শুল্কস্টেশন চালু জরুরি বলে উল্লেখ করেন। ডলুরা শুল্কস্টেশন চালুর বিষয়ে তিনি ভারতীয় সহকারী হাই কমিশনার এল কৃষ্ণমূর্তিও সহযোগিতা করতে পারেন বলে উল্লেখ করেন তিনি।
ভারতের ভিসা এখন
কোন সমস্যা নয় : কৃষ্ণমূর্তি
ভারতীয় হাই কমিশনের সহকারী হাই কমিশনার এল কৃষ্ণমূর্তি বলেন, সেপ্টেম্বর মাসে আমি সিলেট হাইকমিশনে যোগ দিয়েছি। ভিসা প্রক্রিয়া জটিল কিছু নয়। ভারতে যাওয়ার জন্য ভিসা এখন আর কোন সমস্যা নয়। ভিসা প্রসেসিং এখন অনেক সহজ করা হয়েছে। সব কিছু ঠিক থাকলে ভিসা মিস হওয়ার সম্ভাবনা নেই। ঘরে বসেই আপনি আবেদন ফরম পূরণ করতে পারেন। বিশেষ করে সিলেটে আপনাদের আউটসোর্সিং পার্টনার হিসাবে আমরা তো সার্বক্ষণিক রয়েছি-ই।
শুক্রবার বিকালে দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের সপ্তম বর্ষপূর্তি ও অষ্টম বর্ষে পদার্পণ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন ভারতীয় হাই কমিশনের সহকারী হাই কমিশনার এল কৃষ্ণমূর্তি। জেলা শিল্পকলা একাডেমির হাছন রাজা মিলনায়তনে বর্ষপূর্তির অনুষ্ঠানের শুরুতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়।
অনুষ্ঠানে সহকারী হাই কমিশনার আরো বলেন, দালাল থেকে দূরে থাকবেন। যে কোন সময় আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। প্রয়োজনে যে কোন সময় আমাদের এজেন্টদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।
মানুষের পাশে থাকতে
চাই : শামীমা শাহরিয়ার
জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত মহিলা আসনের আসনের সংসদ সদস্য অ্যাড. শামীমা শাহরিয়ার বলেছেন, কর্মী হিসাবে মানুষের পাশে থাকতে চাই।
নদী খনন করতে হবে। নদী ভরাট হয়ে গেছে। নাব্যতা হারানোর কারণে এবারের বন্যা হয়েছে। অপরিকল্পিতভাবে যেখানে সেখানে ঘরবাড়ি করার কারণে এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। এটা নিয়ে ভাবতে হবে।
শুনেছি ১০০ কিলোমিটার ড্রেজিং হয়েছে। কোথায় হয়েছে জানতে চাই। এ ব্যাপারে অনেকেরই প্রশ্ন আছে। আগামীতে ২০০ কিলোমিটার নদী খনন করা হবে। এ ব্যাপারে যেন জনপ্রতিনিধিদের যুক্ত করা হয়। জামালগঞ্জ উপজেলার কানাইখালিতে খনন করা মাটি আবার নদীতেই পড়ে গেছে। এ ধরনের অপরিকল্পিত ড্রেজিং আমরা চাই না।
তিনি বলেন, বোমামেশিন বন্ধ করতে হবে। বোমা মেশিনের কারণে শ্রমিক জীবিকাহীন হচ্ছে। আবার পরিবেশও ধ্বংস হচ্ছে। নদী থেকে চাঁদা আদায় বন্ধ করতে হবে। সকল সরকারি দপ্তরে সিটিজেন চার্টার বসাতে হবে।
তিনি বলেন, পত্রিকায় নারীদের জন্য বিশেষ পাতা করতে হবে। নারীদের সমস্যা সম্ভাবনা তুলে ধরতে হবে। নারী নির্যাতনের কথা কন্টিনিউ পত্রিকায় পাতায় প্রকাশ করতে হবে, যতদিন পর্যন্ত সঠিক বিচার না হয় ।
সুনামগঞ্জের খবরকে
অভিনন্দন : নুরুল হুদা মুকুট
জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল হুদা মুকুট বলেন,‘যদি সুনামগঞ্জের খবর সত্যকে সত্য, মিথ্যাকে মিথ্যা বলে, তবে সুনামগঞ্জ এগিয়ে যাবে।’ তিনি বলেন,‘নৌকা মানে স্বাধীনতার প্রতীক, নৌকা মানে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর প্রতীক, নৌকা মানে জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতীক। সুনামগঞ্জে নির্বাচনের সময় নৌকার বিপক্ষে কাজ করেছে আওয়ামী লীগের কিছু লোক। এদেরকে খোঁজে বের করে সাংবাদিকরা লেখালেখি করলে ভাল হয়।’
তিনি বলেন, ‘জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছিল মোশতাক আহমেদ। মোশতাক আহমদ বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে ক্ষমতা দখল করেছিল। এখনও এই চক্রটি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। আমি বঙ্গবন্ধু’র পরিবারের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাই। সুনামগঞ্জের খবরের ৮ম বর্ষে পদার্পণ করায় আমি অভিনন্দন জানাই খবর পরিবারকে।’
মো. মিজানুর রহমান
ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান বলেন, ‘সংবাদপত্র হলো সমাজের দর্পন। সাংবাদিকেরা এই জেলার সার্বিক উন্নয়নের জন্য লেখালেখি করলে অগ্রগতি তরান্বিত হবে। যেকোনো বিভাগের দুর্নীতির বিরুদ্ধে অনুসন্ধানমূলক সংবাদ বেশি করে প্রকাশ করলে দুর্নীতি কমে আসবে।’ তিনি বলেন,‘যদি পুলিশ বিভাগে দুর্নীতি হয়, তাও লিখবেন সাংবাদিকেরা। মাদকের বিরুদ্ধে বেশি বেশি করে সংবাদ প্রচার করলে মানুষের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি পাবে। চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশের অনুেেরাধ জানান তিনি।
মোহাম্মদ হারুন অর রশিদ
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক হারুনুর রশিদ বলেন,‘সাংবাদিকরা জাতির বিবেক। তাঁদের লেখনির মাধ্যমে যে তথ্য পত্রিকায় উঠে আসে সেগুলো সমাজের উন্নয়নের কাজে লাগে।’ তিনি বলেন,‘সাংবাদিকেরা যেন ভুল তথ্য দিয়ে সংবাদ প্রকাশ থেকে বিরত থাকেন। কারণ ভুল সংবাদ ভুক্তভোগীর হয়রানি বা ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়ায়। সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসন এবং সাংবাদিকেরা এক সেতু বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে কাজ করে যাচ্ছে। আমরা জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিভিন্নভাবে মানুষকে সেবা দিয়ে যাচ্ছি। এসব সেবার বিষয়ে সংবাদ প্রকাশ করা হলে সকল শ্রেণি পেশার মানুষ জানতে পারবে কোথায় কোথায় কী সেবা দেয়া হয়ে থাকে। আমি সুনামগঞ্জের খবর পরিবারকে আন্তরিক অভিনন্দন জানাই।’
আপনাদের স্যালুট : ব্যারিস্টার ইমন
জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম. এনামল কবির ইমন বলেছেন, হাওর দুর্নীতির বিরুদ্ধে একসিলেন্ট জব করেছেন সাংবাদিকরা। সাংবাদিকরা সোচ্চার থাকলে জেলায় দুর্নীতিবাজদের স্থান হবে না। আপনাদের নিউজের কারণেই মাননীয় রাষ্ট্রপতি এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সুনামগঞ্জে এসেছিলেন। এভাবে করাপশনের বিরুদ্ধে আপনারা দায়িত্বশীলভাবেই কাজ করবেন বিশ্বাস করি আমি। আপনাদের স্যালুট। দুর্নীতির বিরুদ্ধে আমাদের সবাইকেই ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। আপনাদের সাথে জনকল্যাণমূলক কাজে থাকতে পারলে নিজেকে ধন্য মনে করব।
তিনি আরো বলেন, বন্যার সময়ও আমাদের প্রত্যন্ত অঞ্চলের বিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষক পানি ভেঙে যান। যার উদাহরণ সারাদেশের আর কোনও জেলায় নেই। শিক্ষায় আমরা পিছিয়ে নেই। সর্বক্ষেত্রেই অগ্রযাত্রা অব্যাহত আছে।
তিনি বলেন, পত্রিকায় বিভৎস ছবি যেন ছাপা না হয়। এগুলো ছোট ছেলেমেয়েদের মনে দীর্ঘস্থায়ী প্রভাব ফেলে। সংবাদ প্রকাশের ব্যাপারে সঠিক তথ্য যাচাই বাছাই করতে হবে। কারণ অনেক সময় সারা জীবনের সব অর্জন একটি সংবাদেই একজনের ধুলিস্যাত হয়ে যায়। এ ব্যাপারে আপনাদের সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।
মেয়র নাদের বখত
সুনামগঞ্জ পৌরসভার মেয়র নাদের বখ্ত বলেন,‘বিগত বন্যায় আমাদের সুনামগঞ্জ পৌর এলাকার রাস্তা-ঘাটের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ড্রেনেজ ব্যবস্থার মারাত্মক ক্ষতি হয়েছে। পৌর এলাকার সার্বিক উন্নয়নের জন্য বেশি বেশি বরাদ্দের প্রয়োজন রয়েছে। এছাড়া শিক্ষা, স্বাস্থ্য. সংস্কৃতি সকল বিষয়ে উন্নয়ন জরুরি প্রয়োজন। সুনামগঞ্জের খবরের সাম্প্রতিক গোলটেবিল আলোচনায় আমরা এসব বিষয়ে বলেছি, নিশ্চয়ই আজকের অতিথিরা সেই বিষয়গুলো পড়বেন এবং ব্যবস্থাও নেবেন’
সুনাগঞ্জের খবর-এর বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠানে মইনুদ্দিন আহমদ জালাল স্মৃতি পদক মুক্তিযোদ্ধা মালু মিয়ার কাছে হস্তান্তরও করেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অধ্যাপক নাজিয়া চৌধুরী।