বাঙালি হিসেবে গর্ববোধ করুন-পরিকল্পনা মন্ত্রী

সু.খবর ডেস্ক
বাঙালি হিসেবে গর্ববোধ করুন: গ্র্যাজুয়েটদের পরিকল্পনা মন্ত্রী সিলেটের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় লিডিং ইউনিভার্সিটির তৃতীয় সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হলো বুধবার। দক্ষিণ সুরমার রাগীবনগরস্থ সাজানো ক্যাম্পাসে তারুণ্যের উচ্ছাসে মেতে উঠা গ্রাজুয়েটদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখলেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি, পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি।
তিনি তার বক্তব্যে জানালেন, এই প্রজন্মের শিক্ষিত তরুন তরুণীদের প্রতি জাতির প্রত্যাশার কথা।
প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখতে গিয়ে পরিকল্পনা মন্ত্রী প্রথমেই নতুন গ্র্যাজুয়েটদের অভিনন্দন জানান। এরপর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ জাতীয় ৪ নেতা ও মহান মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন।
এরপর তিনি বলেন, তোমরা সৌভাগ্যবান। কারণ, আমরা একহাজার বছর ঔপনিবেশিক শাসনের যঁতাকলে পিষ্ট হয়েছি। সেই যন্ত্রণা থেকে তোমরা মুক্ত। আর জাতিকে এই কষ্ট ও দুর্ভোগ থেকে যিনি মুক্তি দিয়েছেন, তিনি হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।
এরপর তিনি বলেন, বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তারই সুযোগ্য পিতার পদাঙ্ক অনুসরণ করে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। আমরা তোমাদের জন্য কাজ করছি। জলে স্থলে অন্তরীক্ষে তোমাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করছি শেখ হাসিনার নেতৃত্বে। দক্ষিণ এশিয়ার বড়বড় দেশগুলো যেসব প্রকল্প বাস্তবায়নে সাহস দেখাতে পারেনি। আমরা তাই শুরু করেছি। উদাহরণ হিসাবে তিনি কর্নফুলি টানেল ও বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের কথা উল্লেখ করে বলেন, এসব প্রকল্প আমরা শুরু করেছি। আরো বড়বড় প্রকল্প শুরু হবে অচিরেই, যার চূড়ান্ত পরিণতির দায়িত্ব কিন্তু তোমাদের।
স্বাধীনতার তাৎপর্য তুলে ধরতে গিয়ে পরিকল্পনা মন্ত্রী লিডিং গ্রাজুয়েটদের উদ্দেশ্যে বলেন, বাঙালী হিসাবে নিজেদের নিয়ে গর্ববোধ করেন। কারণ, গর্ববোধ করার অধিকার আমাদের আছে। আমরা একটি স্বাধীন জাতি হিসাবে বিশ্বে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছি। যারা বিজাতীয় সংস্কৃতি লালন করে পৃষ্ঠপোষকতা করে অচিরেই তারা ইতিহাস থেকে মুছে যাবে। আমরা ইতিহাস তৈরি করছি। তার ধারাবাহিকতা তোমাদের রক্ষা করতে হবে।
পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান আরো বলেন, বিশ্ব এগিয়ে যাচ্ছে। সেই সাথে পাল্লা দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশও। আমরা স্বাধীন বাংলাদেশের মানুষ। তোমাদেরকে গর্বিত বাঙালী হিসাবে বিশ্বে পরিচয় দিতে হবে।
সমাবর্তন অনুষ্ঠানে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. কামরুজ্জামান চোধুরী।
বক্তব্য রাখেন, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভাইস চ্যান্সেলর ও বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশনের সাবেক সাবেক সদস্য প্রফেসর ড. শরীফ এনামুল কবীর, বোর্ড অব ট্রাষ্টিজ এর চেয়ারম্যান ও লিডিং ইউনিভার্সিটির প্রতিষ্ঠাতা ড. সৈয়দ রাগীব আলী, পাবলিক ডিভিশনের সেক্রেটারি সম্পদ বড়ুয়া, লিডিং ইউনিভার্সিটির ট্রেজারার বনমালি ভৌমিক প্রমুখ।
এদিকে বুধবার বিকেলে এপার বাংলা-ওপার বাংলার নৃত্য উৎসবের উদ্বোধনী করেন মন্ত্রী। এসময় তিনি বলেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি বলেছেন, আমাদের দেশের সংস্কৃতি সুষম সমন্বিত হয়ে উঠবে। সুন্দর সংস্কৃতি পরিবেশ সৃষ্টি করতে সরকার কাজ করছে। দেশকে এগিয়ে নিতে আওয়ামী লীগ সরকার প্রতিটি ক্ষেত্রে হাত দিচ্ছে। দেশের উন্নয়নের অগ্রযাত্রাকে সমৃদ্ধ করতে আমাদের প্রধানমন্ত্রী সর্বক্ষেত্রে কাজ করছেন।
নৃত্যশৈলী সিলেটের আয়োজনে অনুষ্ঠিত এই উৎসবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সম্মিলিত সংস্কৃতিক জোট সিলেটের সভাপতি আমিনুল ইসলাম লিটন।
এসময় উপস্থিত ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বদরউদ্দিন আহমদ কামরান, সিলেট জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা দেবজিৎ সিংহ, সিলেট জেলা কমিউনিস্ট পার্টির সাবেক সভাপতি বেদনান্দ ভট্টাচার্য, বাংলাদেশ নৃত্যশিল্পী সংস্থার নেতা অনিল কিষান সিংহ, বিসিবির পরিচালক শফিউল আলম নাদেল, ক্রীড়া সংগঠক ও আওয়ামী লীগ নেতা বিজিত চৌধুরী, আয়োজক সংগঠন নৃত্যশৈলীর পরিচালক নিলাঞ্জনা দাস জুই প্রমুখ।