বারিক্যা টিলা থেকে পাথর ও গাছ নিয়ে যাচ্ছে একটি চক্র

স্টাফ রিপোর্টার, তাহিরপুর
পর্যটন কেন্দ্র তাহিরপুর উপজেলার বারিক্যা টিলা থেকে গাছ ও পাথর নিয়ে যাচ্ছে টিলার পার্শ্ববর্তী বড়গুপ গ্রামের একটি অসাধু চক্র। স্থানীয়ভাবে এ চক্রটি প্রভাবশালী হওয়ার কারণে কেউ তাদের বিরুদ্ধে কথা বলতে সাহস পায় না। প্রতিদিনই তারা টিলার মাটি খুঁড়ে পাথর উঠিয়ে ঠেলাগাড়ি দিয়ে অন্যত্র বিক্রি করছে। এ বিষয়ে ডিহিবাটি তহশিলের তহশিলদার সেলিম মিয়া বলেন, বারিক্যা টিলার পাথর ও গাছ কাটার সংবাদ শুনে তিনি মঙ্গলবার সকালে সরেজমিন তদন্ত করেন এবং পাথর ও গাছ জব্দ করে ওখানে লাল নিশান টানিয়ে দিয়েছেন। তিনি আরো জানান, তদন্তের সময় তার সাথে স্থানীয় ইউপি সদস্য ও উপজেলা পরিষদের সংরক্ষিত আসনের নারী সদস্য ছিলেন। তদন্তের সময় স্থানীয়রা তাকে জানিয়েছেন, বড়গুপ গ্রামের বিলাল, খসরু, নুর ইসলাম, রহমান, তোফাজ্জল, আজিজুল জাহিদ, শহিদ, রশীদ ও নিজামসহ একটি চক্র বারিক্যা টিলার গাছ ও পাথর নিয়ে অন্যত্র বিক্রি করছে।
দায়ীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করবেন বলেও তিনি জানান।
অভিযোগ প্রসঙ্গে নুর ইসলাম বলেন, কে বা কারা বারিক্যা টিলা থেকে পাথর ও গাছ নিয়ে যাচ্ছে সে বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না।
বারিক্যা টিলার পার্শ্ববর্তী চানপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মুজিবুর রহমান জানান, মঙ্গলবার সকাল বেলা তিনি সুনামগঞ্জ যাওয়ার পথে দেখতে পান টিলার উপর একটি আকাশমনি গাছ গোড়া কেটে মাটিতে পুতে রেখেছে একটি চক্র। এ বিষয়ে তিনি খোঁজ খবর নিলে স্থানীয়রা তাকে জানিয়েছেন, বড়গুপ গ্রামের জাহিদ, জব্বার, জলিল মিয়া, নুর ইসলাম ও আদম আলী টিলার জমি জবর দখলের লক্ষ্যে প্রতিদিনই মাটি খুড়ে পাথর নিচ্ছে এবং বিভিন্ন সময় রাতের বেলা গাছের গোড়া কেটে মাটিতে ফেলে রাখে। সময় বুঝে লোকজনের অজান্তে তারা গাছ উঠিয়ে নিয়ে যায়।
শক্তিয়ারখলা বন বিভাগের বিট কর্মকর্তা বীরেন্দ্র কিশোর রায় বলেন, পর্যটন কেন্দ্র বারিক্যা টিলার গাছ কাটার বিষয়ে দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে তিনি মামলা দায়ের করেছেন। তদন্তের স্বার্থে নাম প্রকাশ করা যাচ্ছে না বলে তিনি এ প্রতিবেদককে জানান।
তাহিরপুর উপজেলা পরিষদের সংরক্ষিত আসনের নারী সদস্য আদিবাসি নেত্রী সুসমা জাম্বিল বলেন, সকাল বেলা কাছারির তহশিলদারের সাথে তিনি ও স্থানীয় ইউপি সদস্য স¤্রাটি মিয়া ছিলেন। তহশীদলার বড়গুপ গ্রামের মানুষদের নিষেধ করেছে তারা যেন বারিক্যা টিলা থেকে পাথর ও গাছ কেটে না নেয়।