বিনা চিকিৎসায় এক মুক্তিযোদ্ধার মানবেতর জীবনযাপন

ধর্মপাশা প্রতিনিধি
বিনা চিকিৎসায় ক্রমশ মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যাচ্ছেন সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলার বংশীকুন্ডা উত্তর ইউনিয়নের সাউদপাড়া গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা আলী উসমান। একাত্তরের রণাঙ্গনের যিনি অসীম সাহসিকতার সাথে জীবন বাজি রেখে মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে দেশমাতৃকার স্বাধীনতায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিলেন তিনি জীবনের শেষ প্রান্তে এসে অসহায় হয়ে পড়েছেন। তিনি দীর্ঘদিন ধরে ফুসফুসের ক্যান্সার, হাপানিসহ নানান জটিল রোগে ভুগছেন। ঢাকা বক্ষব্যাধি হাসপাতালে ৬ মাস চিকিৎসা নিয়ে অর্থাভাবে বছর খানেক আগে তিনি বাড়ি ফিরে এসেছেন। আর্থিক সংকটের কারণে পুনরায় চিকিৎসাসেবা নিতে পারছেন না তিনি।
মুক্তিযোদ্ধা আলী উসমান অবিবাহিত জীবনযাপন করেছেন। তিনি তার এক ভাতিজা আকতার হোসেনকে দত্তক নিয়ে নিজের ছেলের মতো মানুষ করেছেন। ভিটে বাড়িসহ কিছু জমি-জমা থাকলেও এখন একমাত্র আয়ের উৎস মুক্তিযোদ্ধা ভাতার টাকা। তিনি জরাজীর্ণ বাড়িতে কোনরকমে বিনা চিকিৎসায় জীবনযাপন করছেন।
পালিত সন্তান আকতার হোসেন বলেন, ‘আমার বাবা দীর্ঘদিন ধরে ফুসফুসে ক্যান্সারহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত। বর্তমানে শুধু ঔষদপত্রের জন্য প্রতিদিন হাজার টাকার উপরে খরচ হয়। যা যোগান দিতে গিয়ে আমাদের হিমশিম হচ্ছে। তাই চিকিৎসার অর্থ সরবরাহসহ একটি বাড়ি নির্মাণের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে দাবি জানাই।’
অসুস্থ মুক্তিযোদ্ধা আলী উসমান বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিলাম। ৭৮ বছর বয়সে জীবনের শেষ প্রান্তে এসে ক্যান্সারে আক্রান্ত য়ে মানবেতর জীবন যাপন করছি।’
উপজেলার সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার নূর হোসেন বলেন, ‘আমার সহযোদ্ধা আলী উসমান দীর্ঘদিন ধরে বিনা চিকিৎসায় আছেন যা দুঃখজনক। তাঁর চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে প্রশাসনসহ সকলকে পাশে দাড়ানোর জন্য বিনীত আহ্বান জানাচ্ছি।’
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) আবু তালেব বলেন, ‘ওই মুক্তিযুদ্ধার পক্ষ থেকে সাহায্যের আবেদন করা হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা প্রহণ করা হবে।’
উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হোসেন রোকন বলেন, ‘বিষয়টি আমার জানা ছিল না। উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে চিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’