ব্যাংকের বান্ডিলে ৫০০ টাকার জাল নোট পাবার অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার
সোনালী ব্যাংক থেকে ২ লাখ টাকা উত্তোলন করে দুদিন পর টাকার বা-িলে ৫০০ টাকার একটি জাল নোট পেয়েছেন বলে জেলা প্রশাসকের নিকট মৌখিক অভিযোগ করেন শহরের আলীপাড়া’র ব্যবসায়ী মো. এরশাদ আলী। রোববার বিকালে ৫০ হাজার টাকার বান্ডিল নিয়ে জেলা প্রশাসককে দেখান ওই ব্যবসায়ী। সোনালী ব্যাংকের সুনামগঞ্জ শাখার ব্যবস্থাপক এই প্রসঙ্গে বলেন, টাকা কাউন্টার থেকে দেখে ও বুঝে নিতে হয়, কাউন্টার ত্যাগের দুই দিন পর এভাবে অভিযোগ করা যুক্তিসঙ্গত নয়।
অভিযোগকারী এরশাদ আলী জানালেন, বৃহস্পতিবার সোনালী ব্যাংক থেকে দুই লাখ টাকা তুলে নিয়ে বাড়িতে রাখেন তিনি। রোববার একটি মোটর সাইকেল কেনার সময় মোটর সাইকেল শো-রুমের দায়িত্বশীলরা তার সামনেই টাকা গুনার সময় জানালেন, বান্ডিলে একটি জাল ৫০০ টাকার নোট রয়েছে। এরপর সোনালী ব্যাংকে গিয়ে বিষয়টি জানানোর পর তারা (ব্যাংক কর্তৃপক্ষ) বলেন, এই অভিযোগ এখন গ্রহণযোগ্য নয়।
সোনালী ব্যাংকের সুনামগঞ্জ শাখার ব্যবস্থাপক একজন দায়িত্বশীল বলেন, টাকা দেখে-বুঝে নেওয়া গ্রাহকের দায়িত্ব। কাউন্টারের ত্যাগের দুই দিন পর এবং টাকা হাতবদল হবার পর, এমন অভিযোগ কোনভাবেই গ্রহণযোগ্য হতে পারে না। এমন অভিযোগে রাস্ট্রীয় ব্যাংকের সুনামক্ষুন্ন হয়।