ভোট গ্রহণের প্রস্তুতি শুরু

স্টাফ রিপোর্টার
পৌরসভা উপ-নির্বাচনের ভোট গ্রহণের প্রস্তুতি শুরু করেছে জেলা নির্বাচন অফিস। ২৩ টি কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার, ২৩ কেন্দ্রের ১১৭ বুথে ১১৭ জন সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার এবং প্রতি বুথে ২ জন করে ২৩৪ জন পুলিং অফিসারের তালিকা করা হয়েছে বলে নির্বাচন অফিসের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন।
নির্বাচন অফিসের একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা জানান, হালনাগাদ ভোটার তালিকা পৌরসভা উপ-নির্বাচনের প্রার্থী বা তাঁদের সমর্থকরা ইতিমধ্যে সংগ্রহ করেছেন। ভোটগ্রহণকারী কর্মকর্তা বা প্রার্থীদের পুলিং এজেন্টরা এই তালিকা দেখেই ভোটার সনাক্ত করবেন।
বিগত পৌর নির্বাচনে পৌরসভার ভোটার ছিল ৪০ হাজার ৩৭৪ জন, এর মধ্যে পুরুষ ২০ হাজার ৪১৯ এবং মহিলা ভোটার ছিলেন ১৯ হাজার ৯৫৫ জন। এবার মোট ভোটার ৪২ হাজার ৩২২ জন। এরমধ্যে পুরুষ ২১ হাজার ১৪৯, নারী ২১ হাজার ১৭৩ জন।’ কিছু ভোট কর্তন হয়েছে, আবার নতুন ভোটার যুক্তও হয়েছে। উপ-নির্বাচনের ভোট ২৯ মার্চ।
নির্বাচনে মেয়র পদে প্রার্থী আছেন তিনজন। এঁরা হলেন আওয়ামী লীগের নাদের বখত। তিনি প্রয়াত মেয়র আয়ূব বখত জগলুলের ছোট ভাই। তাঁর প্রতীক নৌকা। বিএনপির দেওয়ান সাজাউর রাজা
চৌধুরী সুমন। প্রতীক ধানের শীষ। অন্যজন স্বতন্ত্র প্রার্থী দেওয়ান গণিউল সালাদীন। তাঁর প্রতীক মোবাইলফোন। গণিউল সালাদীন ও সাজাউর রাজা চৌধুরী দুজনই মরমি কবি হাসন রাজার প্রপৌত্র, সম্পর্কে চাচাতো ভাই। দেওয়ান গণিউল সালাদীন সুনামগঞ্জ পৌরসভার টানা তিন বারের চেয়ারম্যান প্রয়াত মমিনুল মউজদীনের ছোট ভাই।
সুনামগঞ্জ পৌরসভায় সর্বশেষ ২০১৫সালের ৩০ ডিসেম্বর ভোট হয়। এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে মেয়র পদে নির্বাচিত হন আয়ূব বখত জগলুল। তিনি পেয়েছিলেন ১৪ হাজার ৮৪৫ ভোট। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন স্বতন্ত্র প্রার্থী দেওয়ান গণিউল সালাদীন। তিনি পেয়েছিলেন ১০হাজার ৪৮৬ ভোট। তৃতীয়স্থানে ছিলেন বিএনপির প্রার্থী মো. শেরগুল আহমেদ। তিনি পেয়েছিলেন ২ হাজার ৪১৪ ভোট।
জেলা নির্বাচন অফিসার আব্দুল মোতাল্লেব বললেন,‘২৩ কেন্দ্রের ২৩ জন প্রিজাইডিং, ১১৭ জন সহকারী প্রিজাইডিং এবং ২৩৪ জন পোলিং অফিসার নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে। কাদের নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে, এটি এখন বলা যাবে না।’



আরো খবর