মাটি কেটে নেয়ায় নষ্ট হচ্ছে ফসলি জমি

দ. সুনামগঞ্জ অফিস
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার পূর্ব পাগলা ইউনিয়নের দামোধরতপী আশ্রয়ণ প্রকল্পের জন্য এস্কোভেটর (মাটি কাটার মেশিন) দিয়ে জানের বন হাওর ও বিতরকুল হাওরের জমি কেটে মাটি আনার কারণে ফসলি জমি নষ্ট হচ্ছে। বড় গর্ত করে মাটি আনার কারণে জমির পাড় ধ্বসে পড়েছে। এ বিষয়ে ভুক্তভোগীরা উপজেলা নির্বাহী অফিসার কাছে অভিযোগ করলে তিনি তাৎক্ষণিক কাজ বন্ধ করা নির্দেশ দেন।
সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, বড় বড় গর্ত করে মাটি আনায় আশাপাশের জমির পাড় ধ্বসে পড়েছে। প্রায় ৩৬ কেদার জমি ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। ফসলি জমিতে পানি না থাকায় ক্ষতির আশংকা রয়েছে। উপজেলা প্রকল্প বাস্থবায়ন অফিস সূত্র জানা যায়: প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের অধীনে ২০১৯-২০২০ অর্থ বছরে দামোধরতপী আশ্রয়ণ প্রকল্পের জন্য ১শত ৫টন গম বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। উক্ত প্রকল্পের সভাপতি (স্থানীয় মেম্বার) পুর্বপাগলা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আজির উদ্দিন। ইতিমধ্যেই তিনি প্রথম কিস্তির বরাদ্দ ২৬ টন গম তুলে নিয়েছেন।
কৃষক মোস্তাক মিয়া বলেন, আমি গরীব মানুষ এই ফসলি জমি আমার স¤পদ। এই জমির ক্ষতি হলে নিঃস্ব হয়ে যাবো।
আশ্রয়ণ প্রকল্পের সভাপতি আজির উদ্দিন বলেন, আমি জমির মালিকদের বলে মাটি আনছি। কারো জমির ক্ষতি হলে আড় দিয়ে মাটি ভরাট করে দেব। দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার জেবুন নাহার শাম্মী বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে উভয় পক্ষের সাথে আলোচনা করে মীমাংসা করে দিয়েছি। মাটি কাটার শেষের দিকে এই জায়গা ভরাট করে দেওয়া হবে।