‘মাতৃদুগ্ধের গুরুত্ব এবং করোনাকালীন সময়ে মা ও সেবাকর্মীদের করণীয়’ বিষয়ে ওরিয়েন্টেশন

‘মাতৃদুগ্ধের গুরুত্ব এবং করোনাকালীন সময়ে মা ও সেবাকর্মীদের করণীয়’ বিষয়ে সিএইচসিপিদের ওরিয়েন্টেশন অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার জেলা পুষ্টি সমন্বয় কমিটির উদ্যোগে এবং কালেক্টিভ ইম্প্যাক্ট ফর নিউট্রিশন (সিআইফরএন) ইনিশিয়েটিভ, কেয়ার বাংলাদেশ এর কারিগরী সহযোগীতায় এই ওরিয়েন্টেশন অনুষ্ঠিত হয়।
দুপুর ১২টায় মাতৃদুগ্ধ সপ্তাহ (০৯-১৬ আগস্ট) পালনের অংশ হিসাবে সিএইচসিপিদের জন্য অনলাইন ভিত্তিক ওরিয়েন্টেশনের উদ্বোধন করেন সিভিল সার্জন ডা. শামস উদ্দিন। ওরিয়েণ্টেশনের উদ্দেশ্য তুলে ধরেন ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ আশরাফুল হক।
মাতৃদুগ্ধ এর পক্ষে প্রচারণা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বৈশ্বিক ও স্থানীয় প্রচেষ্টা বিষয়ক পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন উপস্থাপন করেন এম কেয়ার বাংলাদেশের সিআইফরএন ইনিশিয়েটিভ এডভোকেসি এন্ড ক্যাপাসিটি বিল্ডিং এর সিনিয়র টেকনিক্যাল কোর্ডিনেটর হাফিজুল ইসলাম।
এছাড়া করোনাকালীন সময়ে মাতৃদুগ্ধ দান অব্যাহত রাখার কৌশল ও পরামর্শ সম্পর্কিত তথ্যপূর্ণ পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন উপস্থাপন করেন টেকনিক্যাল ম্যনেজার মো. হাসানউজ্জামান।
অতিথিদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিশম্ভরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডাঃ চৌধুরী জালাল উদ্দিন মোর্শেদ, শাল্লা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডাঃ ফেরদৌস আক্তার।
বক্তব্য রাখেন কেয়ার বাংলাদেশের কালেক্টিভ ইম্প্যাক্ট ফর নিউট্রিশন ইনিশিয়েটিভ এর টিম লিডার নাজনীন রহমান।
ওরিয়েন্টেশনে সুনামগঞ্জ জেলার সুনামগঞ্জ সদর, বিশম্ভরপুর, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ, ছাতক ও জগন্নাথপুর উপজেলার সংশ্লিষ্ট ৮৪ জন কমিউনিটি হেল্থ কেয়ার প্রোভাইডারগণ (সিএইচসিপি) অনলাইনের মাধ্যমে অংশগ্রহণ করেন। সিআইফরএন ইনিশিয়েটিভ, কেয়ার বাংলাদেশ প্রকল্পের টেকনিক্যাল অফিসারদের মধ্যে শ্রী অরুপ রতন দাশ, মোঃ আব্দুল আলীম, মোঃ আব্দুস শুকুর ও মোঃ নাজমুল হাসান কর্মশালায় সক্রিয় অংশগ্রহণ করেন।
এছাড়া কারিগরী সহযোগীতায় ছিলেন কেয়ার বাংলাদেশ এর আইসিটি অফিসার একরামুল হক। অনলাইনভিত্তিক এই কর্মশালাটি সঞ্চালন করেন মোঃ আলাউদ্দিন হোসেন, টেকনিক্যাল অফিসার, কালেক্টিভ ইম্প্যাক্ট ফর নিউট্রিশন ইনিশিয়েটিভ, কেয়ার বাংলাদেশ।
প্রেস বিজ্ঞপ্তি