মানুষ রিলিফ নয়, কাজ করে খেতে চায় -এমএ মান্নান

সোহেল তালুকদার, দ. সুনামগঞ্জ
পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি বলেছেন, গ্রামীণ ছোট ছোট অর্থনৈতিক কর্মকা- সচল হতে শুরু হয়েছে। মানুষের চোখে-মুখে খুব বেশি উৎকণ্ঠার চাপ নেই। মানুষ কোভিড-১৯ মোকাবেলা করেই অগ্রসর হতে চায়। তবে সুনামগঞ্জে গত রোববার থেকে বন্যায় মানুষের দৈনন্দিন জীবনযাত্রাকে বাধাগ্রস্ত করেছে। উত্তর সুনামগঞ্জে নদীর পানির উচ্চতা কমায় পানি কিছুটা কমলেও জেলার দক্ষিণ অঞ্চলসহ অন্যান্য অঞ্চল ও জনবসতির ঘরবাড়িতে পানি ওঠেছে। মানুষ চৌকির উপরে রান্না-বান্না করছে। ভাটির মানুষ অবশ্য এমন দুর্ভোগ সয়ে অভ্যস্ত। তিনি বলেন, দুর্গত মানুষের জন্য সরকারি ত্রাণ সহায়তা অব্যাহত আছে, একই সঙ্গে সামাজিক সহায়তা প্রদানও আছে।
তিনি বলেন, বিশ্বে করোনা মহামারি চলছে, করোনা মোকাবেলায় বাংলাদেশের স্বাস্থ্য বিভাগের প্রস্তুতি এখন জোরদার হয়েছে। প্রধান মন্ত্রীর নেতৃত্বে সংশ্লিষ্ট সকল বিভাগে দেশের মানুষের জন্য দিন রাত কাজ করছেন, যাতে এই মহামারি থেকে দেশের মানুষকে রক্ষা করা যায়। তিনি বলেন, করোনা অন্যান্য দেশের মতো ক্ষতি বাংলাদেশে করতে পারেনি। আমরা আগে থেকেই দেশের মানুষকে সচেতন ও স্বাস্থ্য সুরক্ষাসামগ্রী দিতে পেরেছি। এরপরও কিছু ক্ষতি হয়েছে। এই মহামারির মধ্যেই দেশের ৯ টি জেলায় হঠাৎ করে বন্যা দেখা দিয়েছে। আমার নির্বাচনী এলাকা সহ সুনামগঞ্জের ১১ টি উপজেলায়ই বন্যায় ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। তিনি বলেন, মানুষ রিলিফ খেয়ে বাঁচতে চায় না, নিজে কাজ করে উপার্জন করে বাঁচতে চায়। শুধু করোনা মহামারি, প্রাকৃতিক দুর্যোগ, বন্যার মতো দুর্যোগে নয়, ২৪ ঘন্টা সরবার দেশের মানুষের পাশে আছে। তারপরও আমরা দেশের মানুষের জন্য ১০ টাকা কেজি চাল, জিআর, ভিজিএফ, ভিজিডি দিয়ে দেশের মানুষকে সহযোগিতা করে আসছি। তিনি বলেন, করোনা থেকে রক্ষা পেতে মানুষকে মাস্ক পড়তে হবে, সামাজিক দুরুত্ব মানতে হবে, বিশুদ্ধ পানি খেতে হবে। বাড়িঘর পরিস্কার রাখতে হবে।
বৃহস্পতিবার দুপুরে সুনামগঞ্জ জেলার দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার জয়কলস ইউনিয়নের নোয়াগাঁও গ্রামে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ ১০০ পরিবারের মাঝে ১০ কেজি চাল ও এক কেজি ডাল বিতরণ শেষে গণমাধ্যমকর্মীদের এসব কথা বলেন।
এ সময় উপস্থিতি ছিলেন দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জেবুন নাহার শাম্মী, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানার ওসি মোক্তাদির হোসেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান, পরিকল্পনা মন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহকারী হাসনাত হোসাইন, জয়কলস ইউনয়িন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মাসুদ মিয়া, দরগাপাশা ইউনয়িন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মনির উদ্দিন প্রমূখ।