মামলার ভয় দেখানোর অভিযোগ জেলা পরিষদ সদস্যের বিরুদ্ধে

দিরাই প্রতিনিধি
দিরাইয়ে ঘাগটিয়া গ্রামে প্রাচীন একটি ফলদবৃক্ষ অবৈধভাবে কেটে ফেলা হয়েছে। এরপর মামলার ভয় দেখিয়ে বৃক্ষটি নিয়েছেন জেলা পরিষদের সদস্য মো. নাজমুল হক। মঙ্গলবার তিনি ঘাগটিয়া গ্রাম থেকে বৃক্ষটি তুলে নিয়ে শফিকের স’মিলে রেখে দেন বলে জানা গেছে। তবে মামলার ভয় দেখানোর বিষয়টি সম্পূর্ণ মিথ্যা দাবি করে জেলা পরিষদের সদস্য নাজমুল হক বলছেন, জেলা পরিষদের জায়গায় অবস্থিত গাছটি বিএনপির উপজেলা কমিটির সভাপতি কামরুজ্জামানের লোকজন কাটতে গেলে জেলা পরিষদ থেকে নিষেধ করা হয়। এরপর আমি জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের সাথে আলাপ করে খাস কালেকশনে ১৫ হাজার টাকায় কিনে রাখি।
ঘাগটিয়া গ্রামের কামরুজ্জামানের ছোট ভাই কনাই মিয়া জানান, যে জায়গায় গাছটি সে জায়গাটুকু আমার বাবা সরকারকে দিয়েছিলেন। কিন্তু চন্ডিপুর গ্রামের জেলা পরিষদের সদস্য নাজমুল মিয়া জেলা পরিষদের জায়গা দাবি করে মঙ্গলবার গাছটি নিয়ে গেছেন।
উপজেলা ছাত্রলীগের একাংশের সভাপতি পারভেজ রহমান জানান, ফাতেমা নগর গ্রামের ব্যবসায়ী নজরুল মিয়া এই জাম গাছটি ৩০ হাজার টাকায় খরিদ করতে গেলে গাছ কাটার মামলায় ফাঁসানোর ভয় দেখান জেলা পরিষদ সদস্য। পরে তিনি নিজেই নানা অজুহাতে গাছটি নিয়ে আসেন।
ভারপ্রাপ্ত ইউএনও সহকারি কমিশনার ভূমি সাহিদুল আলম জানান, উপজেলা পরিষদ, জেলা পরিষদ বা সরকারের জায়গায় হোক গাছ কাটার ব্যাপারে কোন ব্যক্তি সিদ্ধান্ত দিতে পারেন না।