মুজিববর্ষ উপলক্ষে শিক্ষাবান্ধব কর্মসূচি গ্রহণ

স্টাফ রিপোর্টার
মুজিববর্ষ উপলক্ষে শিক্ষাবান্ধব বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্ম এবং মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনার প্রসার, প্রাথমিক স্তরে শিশুদের ঝরে পড়ার হার রোধ, মাধ্যমিক স্তরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উপস্থিতি নিশ্চিতকরণ, ছাত্র ছাত্রীদের মধ্যে সততা ও নৈতিকতা চর্চার পরিবেশ সৃষ্টির জন্য জেলা প্রশাসন জেলার সকল স্তরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বিভিন্ন উদ্যোগসমূহ গ্রহণ করা হয়।
সভায় ১০০০টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৮৪টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ৪৬টি দাখিল মাদ্রাসা, ৭০টি কওমী মাদ্রাসা, ১১টি কলেজে বঙ্গবন্ধু কর্ণার ও মুক্তিযুদ্ধ পাঠাগার স্থাপন, ১৪৬৬টি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাক প্রাথমিক শ্রেণি কক্ষ সজ্জিত করণ, ৭৩টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ৪৩ টি দাখিল মাদ্রাসা, ২৩ টি কওমী মাদ্রাসা এবং ১১টি কলেছে সততা স্টোর স্থাপন, ৬১টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ৩২টি দাখিল মাদ্রাসা এবং ১১টি কলেজে ছাত্রীদের জন্য গার্লস কর্ণার, ৩৮টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ১৫টি দাখিল মাদ্রাসায় যাতায়তের জন্য নৌযানের ব্যবস্থা, এবং ৭০টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ৩৯টি দাখিল মাদ্রাসা এবং ৭টি কওমী মাদ্রাসা ছাত্রীদের জন্য পৃথক ও নিরাপদ টয়লেট নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।
বুধবার বিকালে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষেসুষ্ঠুভাবে এসব উদ্যোগ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকার’র উপ-পরিচালক মোহাম্মদ এমরান হোসেন, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. হারুন অর রশীদ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ শরীফুল ইসলাম, নবাগত অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. মোকলেছুর রহমানসহ উপজেলা নির্বাহী অফিসারবৃন্দ, জেলা পর্যায়ের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রধান, ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি সচিববৃন্দ।
উল্লেখ্য, স্বাধীনতার মহান স্থপতি হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকীকে স্মরণীয় করে রাখার জন্য ২০২০ সালের ১৭ই মার্চ হতে ২০২১ সালের ২৬ই মার্চ পর্যন্ত সময়কালকে সরকার কর্তৃক ‘মুজিব বর্ষ’ ঘোষণা করা হয়েছে।