মুন্সী আরফান আলী বৈঠকখানা এখন কমিউনিটি সেন্টার

কাজী জমিরুল ইসলাম মমতাজ,
দক্ষিণ সুনামগঞ্জ
পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান নিজের ‘হিজল করচ’ বাড়ির ‘মুন্সী আরফান আলী বৈঠকখানা’ কমিউনিটি সেন্টারে পরিণত হয়েছে। এখন থেকে এলাকার দরিদ্র মানুষরা নিজেদের প্রয়োজনে এটি ব্যবহার করবেন।
জানা যায়, পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নানের শান্তিগঞ্জ বাজারস্থ ‘হিজল করচ’ বাড়িটি দলীয় কার্যালয়. বাসভবন হিসাবে পরিচিত। সম্প্রতি তিনি শান্তিগঞ্জের টিনশেডের বাড়িতে মুন্সী আরফান আলী বৈঠকখানাকে একটি কমিউনিটি সেন্টার করার ঘোষণা দিয়েছেন। এলাকার দরিদ্র মানুষেরা এটিতে বিয়ে-শাদিসহ সামাজিক অনুষ্ঠান করবেন। এলাকার সকলকে বিষয়টি ইতিমধ্যেই জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।
এলাকাবাসী জানান, কমিউনিটি সেন্টারে বিয়ে দেয়ার সামর্থ্য সকলের নেই। মন্ত্রী মহোদয় আমাদের কথা চিন্তা করে যে ঘোষণা দিয়েছেন আমরা অত্যন্ত খুশি। এখন সুন্দরভাবে বিয়ে-শাদি দেয়া যাবে। আমরা মন্ত্রী মহোদয়ের সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করি।
উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান বলেন, মন্ত্রী মহোদয়ের উন্নয়নের আলোয় আলোকিত পুরো সুনামগঞ্জ জেলা। অবহেলিত এই
হাওরাঞ্চলের তিনি আলোর প্রদীপ জ্বালিয়েছেন। সাদামনের এই মানুষটি নিজের সবকিছু বিলিয়ে দিচ্ছেন সাধারণ মানুষের জন্য। নিজের বাড়িটি তিনি হতদরিদ্রদের বিয়ে- শাদির জন্য কমিউনিটি সেন্টার হিসেবে ঘোষণা দিয়েছেন।
পরিকল্পনামন্ত্রীর একান্ত রাজনৈতিক সচিব হাসনাত হোসেন বলেন, অনেকেই আছেন যারা টাকার জন্য সেন্টার ভাড়া করতে পারেন না, যাদের তেমন সামর্থ্যও নেই, সেই বিষয়টি বিবেচনা করেই মাননীয় মন্ত্রী হতদরিদ্রদের জন্য বাড়িটি কমিউনিটি সেন্টার হিসেবে ঘোষণা করেছেন।