যাদুকাটা নদী তীরে পরিবেশ বিপর্যয় পরিদর্শনে ১৫ এনজিও প্রধান

আমিনুল ইসলাম, তাহিরপুর
তাহিরপুরের যাদুকাটা নদীতে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন ও পরিবেশ দূষণ পরিদর্শন করেছেন দেশের আটটি বিভাগের ১৫ টি বেসরকারি সংস্থার নির্বাহী পরিচালকগণ।
রবিবার বাংলাদেশ পরিবেশ আইনজীবি সমিতির আয়োজনে যাদুকাটা নদী তীরে অবৈধভাবে বালু পাথর উত্তোলন ও পরিবেশ দূষণে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের সাথে কথা বলে তাদের দুঃখ-দুর্দশার কথা শুনেন তাঁরা। পরিদর্শন শেষে এনজিও কর্মকর্তারা যাদুকাটা নদীর তীরে আদর্শ গ্রামে দুপুর ১২টায় এক মতবিনিময় সভায় মিলিত হন। বেসরকারি সংস্থা এএলআরডির ব্যবস্থাপনায় এবং বাংলাদেশ পরিবেশ আইনজীবী সমিতি বেলার আয়োজনে এ মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন বেসরকারিী সংস্থা পিইউপি’র নির্বাহী পরিচালক আবু হাসনাত ফারুক, হাসির নির্বাহী প্রধান অ্যাড. আকরাম হোসেন রুমি, রান এর নির্বাহী পরিচালক রফিকুল আলম, এএলআরডি’র প্রোগ্রাম অফিসার মীর্জা আজিম হায়দার, বেলা সিলেট অফিস প্রধান অ্যাড. শাহ সাহেদা, সুনামগঞ্জ জেলা পরিষদের সদস্য সেলিনা আবেদীন প্রমুখ।
সভায় বক্তারা বলেন, প্রভাবশালী ড্রেজার মেশিন মালিক ও প্রশাসনের কারণে এখানে সাধারণ বারকি শ্রমিকরা প্রশাসন কর্তৃক নির্যাতিত হচ্ছেন। তারা বারকি শ্রমিকদের নির্যাতন বন্ধ করার দাবি জানান।
তারা জানান, পরিবেশ ধ্বংসকারীদের নাম ধরে ধরে উপস্থিত এলাকাবাসী নানা অভিযোগ করেছেন। এখানে পরিবেশ দূষণ মারাত্মক আকার ধারণ করেছে। পরিদর্শন বিষয়ে অ্যাড. শাহ শাহেদা বলেন, আমরা মূলত যাদুকাটা পরিবেশ দূষণ ও সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে এলাকাবাসীর মতামত জানতে চেয়েছি এবং এই পরিস্থিতি উত্তরণে তাদের মতামত জানতে চেয়েছি। এখানে পরিবেশ দূষণ রোধে দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে।