রঙ্গারচর-আদারবাজার ব্যবস্থাপনা কমিটি নিয়ে উত্তেজনা

স্টাফ রিপোর্টার
সদর উপজেলার রঙ্গারচর ইউনিয়নের রঙ্গারচর-আদার বাজার কমিটি গঠন নিয়ে চরম উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে। বাজারের কমিটি গঠন করা হয়েছে প্রায় ৩ মাস আগে। কমিটি গঠনের অনুলিপিও দেয়া হয়েছে ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে। বর্তমানে এই বাজারকে কেন্দ্র করে একটি স্থানীয় স্বার্থান্বেষী মহল পুনরায় নির্বাচনের মাধ্যমে কমিটি গঠনের উদ্যোগ নেয়ায় এই উত্তেজনার সৃষ্টি হয়।
আদার বাজারে ব্যবসায়ীদের রয়েছে ৪২টি দোকান ঘর। এই হিসাবে ৪২জন ব্যবসায়ী রয়েছেন। পুনরায় কমিটি গঠনের মাধ্যমে নির্বাচনে জয়লাভ করার জন্য এখন দেড় শতাধিক দিনমজুর মানুষকে সমিতির সদস্য করা হয়েছে বলে অভিযোগ একাধিক ব্যবসায়ীর।
শুক্রবার সকালে রঙ্গারচর-আদার বাজার গিয়ে দেখা যায়, বাজারের বিভিন্ন স্থানে বড় বড় ব্যানার টাঙিয়ে প্রচারণা চলছে। বিক্ষুদ্ধ ব্যবসায়ীরা উত্তেজিত স্বরে কমিটি গঠনের প্রচারণায় তীব্র নিন্দা জানাচ্ছেন। এ সময় একাধিক ব্যবসায়ী এই প্রতিবেদককে জানান, স্থানীয় বাসিন্দা মহি উদ্দিন পুনরায় কমিটি গঠনের উদ্যোগ নিয়ে প্রায় দেড় শতাধিক খেটে খাওয়া মানুষের কাজ থেকে সদস্য ফিস বাবদ ২০০ টাকা করে আদায় করে নিয়েছেন। বর্তমানে নির্বাচনী প্রার্থীদের কাছ থেকে সর্বোচ্চ ১ হাজার ৫ শত টাকা করে এবং সর্বনি¤œ ১ হাজার টাকা করে নিয়েছেন।
ব্যবসায়ীরা আরও জানান, স্থানীয় গরুর বাজার ইজারা আনতে বলে কিছু ব্যবসায়ীর কাছ থেকে রমজান মাসের আগে

আইডি কার্ডের ফটোকপি নিয়েছেন মহিউদ্দিন। এরপর তিনি বাজারে একটি সভার আয়োজন করে কমিটি করার সিদ্ধান্তের কথা জানান ব্যবসায়ীদের। তখন অনেক ব্যবসায়ী এই সিদ্ধান্ত প্রত্যাখ্যান করেন।
এ প্রসঙ্গে মহিউদ্দিন জানান, বাজারের কমিটি করার জন্য সদস্য বানানো হচ্ছে। বাজারের কিছু মানুষ আইডি কার্ডের কপি ও ছবি’র ব্যবস্থা করে দিচ্ছেন। আমার জানামতে কেউ টাকা নিচ্ছেন না। দীর্ঘদিন যাবত এই বাজারের কমিটি নেই। এই জন্য ঈদের পরে নির্বাচনের তারিখ নির্ধারণ করা হবে। ১৯৬৭ ইং দলিলে এই বাজারের জায়গা রঙ্গারচর-হরিনাপাটীর বাসিন্দা দুই পক্ষের নামে রয়েছে। এবার এই বাজার ইজারা দেয়া হয়েছে রঙ্গারচর বাজার নামে। কোথাও আদার বাজার লেখা নেই বলে জানান তিনি।
ব্যবসায়ী আবু লেইছ বলেন,‘আমার কাছ থেকে আইডি কার্ডের ফটো কপি নিয়েছেন গরুর বাজার ইজারা আনার কথা বলে। পরে তিনি সভা করে কমিটি গঠনের কথা জানান। ৩ মাস আগে এই বাজারের কমিটি গঠন করা হয়েছে, এই জন্য আমি এই সিদ্ধান্ত প্রত্যাখ্যান করি। নতুন সদস্যদের কাছ থেকে এবং নির্বাচনী প্রার্থীদের কাছ থেকে টাকা আদায় করা হয়েছে।’
রঙ্গারচর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল হাই বলেন,‘রঙ্গারচর-আদার বাজার ব্যবস্থাপনা কমিটি গঠন হয়েছে প্রায় ৩ মাস আগে। ১১ সদস্য বিশিষ্ট এই কমিটির অনুলিপি আমার অফিসে সংরক্ষিত আছে। এখন নতুন করে কমিটি গঠনের বিষয়ে আমি কিছুই জানি না।’