রয়টার্সের ফ্যাক্ট চেক/ বাংলাদেশ নিয়ে ছড়ানো ভিডিওটি সঠিক নয়

সু.খবর ডেস্ক
বাংলাদেশে জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধিজনিত বিক্ষোভকে কেন্দ্র করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একটি অপ্রাসঙ্গিক ভিডিও ফুটেজ ছড়িয়ে পড়েছে। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সে প্রকাশিত এক ‘ফ্যাক্ট চেক’ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারকারীরা ভুল করে ২০১৩ সালের ভিডিও ফুটেজকে ২০২২ সালের ঘটনা ভেবে শেয়ার করছেন।
রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, গত ৭ আগস্ট ‘ওয়াল স্ট্রিট সিলভার’ নামের টুইটার একাউন্ট থেকে পোস্ট দেয়া হয় যে, বাংলাদেশে জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে বিভিন্ন শহরে তীব্র গোলযোগ হচ্ছে। এর সাথে আপলোড করা হয় রাস্তায় টায়ার পোড়ানো ও মুহুর্মুহু সাউন্ড গ্রেনেডের শব্দের একটি অডিও-ভিডিও ক্লিপ। হাজার ছাড়িয়ে যাওয়া ভিউয়ের পোস্টটির সত্যতা যাচাই করতে গিয়ে বিশ্বখ্যাত সংবাদ সংস্থা রয়টার্স দেখে ভিডিও ক্লিপটি ৯ বছর আগের ২০১৩ সালের ৬ মে ঢাকায় হেফাজতে ইসলামের আন্দোলনের সময়ের।
বৃহস্পতিবার রয়টার্স প্রকাশিত ‘ফ্যাক্ট চেক: বাংলাদেশে জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদের ভিডিওটি ২০২২ সালের নয়, ২০১৩ সালের’ (ঋধপঃ ঈযবপশ-ঠরফবড় ফড়বং হড়ঃ ংযড়ি ২০২২ ভঁবষ ঢ়ৎড়ঃবংঃং রহ ইধহমষধফবংয, রঃ ফধঃবং ঃড় ২০১৩) শিরোনামের সংবাদে বলা হয়, ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে বিশ্বব্যাপী জ্বালানি সংকটের মধ্যে বিশ্বের দ্রুততম বর্ধিষ্ণু অর্থনীতির দেশ বাংলাদেশে সম্প্রতি জ্বালানি তেল লিটারপ্রতি পেট্রোলের দাম ৫১.২% বাড়িয়ে ১৩০ টাকা, অকটেনের দাম ৫১.৭% বাড়িয়ে ১৩৫ টাকা, ডিজেল ও কেরোসিনের দাম ৪২.৫% বাড়িয়ে ১১৪ টাকা করা হয়েছে।
রয়টার্সের এই প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধিতে বাংলাদেশে যে প্রতিবাদ হয়েছে, তা স্থানীয় গণমাধ্যমে উঠে এসেছে। কিন্তু বর্ণিত টুইটার ও চিহ্নিত আরেকটি ফেসবুক একাউন্টে যে ভিডিও সংযোজন করা হয়েছে তা এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট তো নয়ই, এ বছরেরও নয়, ২০১৩ সালের।
সূত্র : সমকাল