লন্ডনে নোয়াখালি উৎসব

লন্ডন প্রতিনিধি
মেঘনার অববাহিকায় বঙ্গোপসাগরের কোল ঘেষে জন্ম নেওয়া নোয়াখালী বাংলাদেশের দক্ষিণ পূর্বাঞ্চলে অবস্থিত চট্টগ্রাম বিভাগের প্রাচীন ঐতিহ্যবাহী একটি জেলা। যার পূর্ব নাম ছিলো ভূলুয়া। ১৮২১ সালে ভূলুয়া নামে প্রতিষ্ঠা লাভের পর ১৮৬৮ সালে এই জেলার নাম বদলে রাখা হয় নোয়াখালী। দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে অবদান, জাতীয় রাজনীতিতে সক্রিয় অংশগ্রহণসহ নানা কারণে সারা বাংলাদেশে এই অঞ্চল বেশ আলোচিত। ২০২১ সালে নোয়াখালী জেলা প্রতিষ্ঠার ২০০ বছর পূর্ণ হয়েছে। এ উপলক্ষ্যে যুক্তরাজ্যে নোয়াখালী সমিতি ইউকের উদ্যোগে নানা আয়োজনের মাধ্যমে নোয়াখালী উৎসব ২০২২ উদযাপিত হয়েছে।
ব্রিটেনের রাজধানী লন্ডনের রয়্যাল রিজেন্সী হলে ১২ই জুন রবিবার স্থানীয় সময় বেলা ১১টায় উদ্বোধন হয়ে নানা উৎসব শেষ হয় রাত ১১ টায়। বেলা ১২টায় আনন্দ র‌্যালি শেষে বাংলাদেশ এবং ইংল্যান্ডের সমবেত জাতীয় সংগীতের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা হয়। এছাড়াও পরিবেশিত হয় নোয়াখালী উৎসব উপলক্ষে করা সূচনা সংগীত। একসাথে দুপুরের খাবারে অংশ নেয় নোয়াখালীসহ যুক্তরাজ্যে বসবাসরত বাংলাদেশের বিভিন্নজেলার মানুষেরা। দুপুরের খাবার পরিবেশিত হয় বেলা ৩টায়। এসময় নোয়াখালীর আঞ্চলিক গান পরিবেশিত হয়। এরপর নোয়াখালীর ইতিহাস, ঐতিহ্যের উপর নির্মিত তথ্যবহুল বিশেষ ডকুমেন্টারি প্রদর্শিত হয়। পুরো অনুষ্ঠানের উপস্থাপনায় ছিলেন আঞ্জুমান মুন্নি ও মিনহাজ খান।
অনুষ্ঠানে যোগ দেন বিলেতের স্থানীয় রাজনীতিবিদ, বেশ কয়েকজন এমপি, মেয়র, কাউন্সিলর বৃন্দ বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত এমপিসহ অনেকে। যোগ দেন সদ্য নির্বাচিত টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিল থেকে নির্বাচিত নির্বাহী মেয়র লূতফুর রহমান। এসময় যুক্তরাজ্যে সাম্প্রতিক স্থানীয় কাউন্সিল নির্বাচনে বৃহত্তর নোয়াখালী অঞ্চলের বেশ কয়েকজন নির্বাচিত কাউন্সিলর, মেয়র, মুক্তিযোদ্ধা ও কমিউনিটিতে অবদান রাখা অনেক ব্যক্তিবর্গকে ক্রেস্ট দিয়ে সম্মাননা জানানো হয়। এছাড়াও শিশুদের চিত্রাংকন ও মেধাবী শিশুদের মাঝে পুরষ্কার বিতরণ করা হয়।
আলোচনায় অংশ নিয়ে বক্তারা নোয়াখালীর ২০০ বছর ধরে চলে আসা ইতিহাস, ঐতিহ্যকে স্মরণ করেন।
আলোচনা অনুষ্ঠান শেষে ফ্যাশন ডিজাইনার শারমিন মৌয়ের পরিচালনায় বাংলাদেশি ঐতিহ্যবাহী পেশাক পরে ফ্যাশন শো অনুষ্ঠিত হয়। এরপর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশনা করেন বাংলাদেশ থেকে সংগীত শিল্পী ফাহমিদা নবী এবং যুক্তরাজ্যের স্থানীয় বেশ কয়েকজন শিল্পী।
আয়োজক নোয়াখালী সমিতি ইউকের সভাপতি আব্দুর রব, সাধারণ সম্পাদক আবু জাফর, নোয়াখালী উৎসব উদযাপন কমিটির আহবায়ক আব্দুল হক রাজ, প্রধান সমন্বয়কারী হুমায়ুন কবির জাহাঙ্গীর, সদস্য সচিব মোহাম্মদ আখতার, এম এহোসেন নিজাম ও আলাউদ্দিন রাসেল প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।
আয়োজকরা বলেন, নোয়াখালীর ঐতিহ্যের ২০০ বছরকে স্মরণীয় করে রাখতে বিলেতে বসবাসরত নোয়াখালীবাসীকে নিয়ে একটি স্মরণীয় দিন হয়ে থাকবে আজকের এই আয়োজনটি। এছাড়াও যুক্তরাজ্যে বেড়ে উঠা তরুণ প্রজন্মের কাছে নোয়াখালীর নাম ইতিহাস, সংস্কৃতি, গৌরব ও ঐতিহ্যের সাথে পরিচিত করিয়ে দিতে পারা আমাদের আয়োজনের অন্যতম সার্থকতা।দিনভর অনুষ্ঠান আয়োজন শেষে রাফেল ড্র অনুষ্ঠিত ও পুরষ্কার বিতরণের মধ্য দিয়ে দিনভর অনুষ্ঠান আয়োজনের সমাপ্তি ঘটে।