শহরে প্রবেশ করছে নিবন্ধন বিহীন মটর সাইকেল

স্টাফ রিপোর্টার
নিবন্ধন বিহীন মটর সাইকেলের উৎপাত বেড়েছে শহরে। এতে শহরের ভেতরে যান চলাচলে ধীর গতি সহ ঘটছে দুর্ঘটনা। গত কয়েকদিন যাবৎ এমন চিত্র দেখা দিয়েছে।
জানা যায়, জামালগঞ্জ, বিশ^ম্ভরপুর ও তাহিরপুর উপজেলা থেকে জেলা শহরে চলাচল করা মটর সাইকেলগুলি আব্দুজ জহুর সেতুর উপর এসে থামে। যাত্রীরা সেতু থেকে সিএনজি ও অটো রিক্সা করে শহরে প্রবেশ করেন। উপজেলা সড়কে চলাচলরত এসব মটর সাইকেলের বেশিরভাগের কোনো নিবন্ধন নেই। এমন কি নেই চালকদের ড্রাইভিং লাইসেন্স। অদক্ষ চালকরা এসব রোডে মটর সাইকেল চালান। এতে প্রায়ই ঘটছে দুর্ঘটনা।
এদিকে জেলা ট্রাফিক বিভাগের কোনো নজরদারি না থাকায় অদক্ষ চালক ও তাদের নিবন্ধন বিহীন মটর সাইকেল শহরের ভেতর প্রবেশ করছে। পৌর শহরের ভেতর হাজীপাড়ার রাস্তার কাছে ও জামাইপাড়া সড়কের কাজ চলায় এসব মটর সাইকেল আলফাত চত্ত¡র হয়ে অন্যান্য পাড়ায় প্রবেশ করছে। এসব মটর সাইকেল চালকদের নিয়ন্ত্রণ করা না হলে দুর্ঘটনার সম্ভবনা রয়েছে বলে মনে করছেন সাধারণ মানুষ।
সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার হবতপুর গ্রামের বাসিন্দা নূর উদ্দিন বলেন, জেলা শহর থেকে অন্যান্য উপজেলায় চলাচল করা মটর সাইকেল বেশির ভাগের কোনো কাগজপত্র নেই। অনেক সময় নতুন মটর সাইকেল নিয়ে সড়কে ভাড়া চালাতে নেমে পড়েন চালকরা।
বড়পাড়ার বাসিন্দা দেলোয়ার হোসেন বলেন, শহরের ভেতরে চেক পোস্ট নেই। তাই ব্রীজ থেকে অদক্ষ চালকরা সরাসরি শহরে প্রবেশ করে। অনেক সময় ড্রাইভার সহ ৪ জন নিয়ে মটর সাইকেল চালাতে দেখি। মটর সাইকেলের পেছনে মালামাল বেঁধেও শহরে আসে। এতে শহরে যানজট ও দুর্ঘটনার পরিমাণ বাড়ছে।
শহর ও যানবাহন পুলিশ পরিদর্শক মো. শামছুল আলম বলেন, সুনামগঞ্জে যানবাহনের শৃঙ্খলা পূর্বের চেয়ে ভালো। প্রায় ৭০ ভাগ যানবাহনের নিবন্ধন হয়ে গেছে বলা যায়। তবে চেক পোস্ট না থাকলেও আমাদের নরমাল ডিউটি রয়েছে শহরে।