শান্তিগঞ্জে আগুনে পুড়লো ১০ বসতঘর

স্টাফ রিপোর্টার
শান্তিগঞ্জ উপজেলায় বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে আগুন লেগে ১০টি বসতঘর পুড়ে গেছে। শনিবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে উপজেলার শিমুলবাঁক ইউনিয়নে তেরহাল গ্রামে এই অগ্নিকাণ্ড ঘটে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে স্থানীয়দের সহায়তায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন।
জানা যায়, রাত দেড়টার দিকে হঠাৎ করেই বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিটের মাধ্যমে আগুন লাগে। মুহূর্তেই আগুন ছড়িয়ে পড়ে চারিদিক। একে একে ৮টি বসতঘর এবং ঘরে থাকা নগদ টাকা, স্বর্ণালংকার, আসবাবপত্রসহ জিনিসপত্র পুড়ে ছাই হয়ে যায়। এতে নিঃস্ব হয়ে পড়েছে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলো। এই অগ্নিকাণ্ডে প্রায় অর্ধকোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি ক্ষতিগ্রস্তদের।
ক্ষতিগ্রস্তরা হলেন মকছদ আলীর ছেলে সাঞ্জব আলী, মৃত ইলিয়াছ আলীর ছেলে আমির আলী, মৃত ওলী মাহমুদের ছেলে নূর মিয়া, মৃত নূরুল ইসলামের মেয়ে তাছলিমা বেগম, মৃত মনফর আলীর ছেলে আবুল মিয়া, মৃত আবদুস সামাদের ছেলে আলতাব আলী, মৃত আলমদর আলীর ছেলে শওকত আলী, আম্বর আলীর ছেলে আবদুর রহিম, আজর আলীর ছেলে সিরাজুল ইসলাম ও রমাই মিয়া।
কান্নাজড়িত কন্ঠে ক্ষতিগ্রস্ত সিরাজুল ইসলাম ও তাসলিমা বেগম বলেন, আগুনে পুড়ে সব শেষ হয়ে গেছে। ছেলে মেয়ের লেখাপড়ার সার্টিফিকেট, জমিজমার কাগজ সব পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। আমরা এখন অসহায়। ছেলেমেয়ে নিয়ে খোলা আকাশের নিচে আছি।
শান্তিগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার জিসান রহমান নাবিক বলেন, খবর পেয়ে দ্রুত আমরা আগুন নিয়ন্ত্রণে আনি। বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে। আগুনে ৮ টি ঘর পুড়ে অর্ধকোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।
অগ্নিকাণ্ডের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যান শান্তিগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান প্রভাষক নূর হোসেন। এসময় তিনি ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে খাদ্য সহায়তা বিতরণ করেন। এছাড়াও দ্রুত ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে সরকারি সহযোগিতার আশ্বাস দেন।